গ্যাস সংকটে চরম বিপাকে গৃহিনীরা : সংকট নিরসনে সাংসদের কথার ফুলঝুড়ি!

শেখ মো. রতন: মুন্সীগঞ্জ শহর-শহরতলীতে দীর্ঘ দিন ধরেই তীব্র গ্যাস সংকটের কারনে নাকাল নগরবাসী। রান্না-বান্নার কাজ নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন গৃহিনীরা। গ্যাস সংকটের কারণে বিকল্প হিসাবে বাধ্য হয়ে গ্যাসের চুলা ছেড়ে খড়ি (লাকরি) বা কোরোসিনের চুলায় রান্নার করছেন তারা। আবার ফ্লাট বাড়িতে খড়ি বা কোরোসিন ব্যবহারের সুযোগ না থাকায় রান্নার কাজ সারছেন মধ্যরাতে। স্থানীয় তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন কর্তৃপক্ষ বলছেন গ্যাস সরবারহের বিষয়টি নিয়ন্ত্রন করেন তিতাসের কেন্দ্রীয় কার্যালয়। আঞ্চলিক কার্যালয়ের দায়িত্ব হচ্ছে সংযোগ দেওয়া ও গ্রাহক পর্যায়ে গ্যাস বিল সংগ্রহ করা।

গত কয়েক বছরের টানা গ্যাস সংকট সম্প্রতি আরও প্রকট আকার ধারন করেছে। শহরের বেশ কয়েকটি পাড়া-মহল্ল্রার আবাসিক গ্যাস সংযোগ লাইনে গ্যাস সরবারহ শূন্যের কোঠায় থাকায় চরম দূর্ভোগে পড়েছেন শহরের কয়েক হাজার পরিবার। গ্যাসের দাবীতে মুন্সীগঞ্জবাসী কয়েক দফায় আন্দোলনে নামলেও অবস্থার কোনো পরিবর্তন হয়নি। বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা অবগত থাকলেও সমস্যা সমাধানে কোনো উদ্যোগ নেই তাদের।

আবাসিক এলাকায় রাত ১২টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত সামান্য গ্যাস পাওয়া গেলেও দিনের বেলায় গ্যাসের অভাবে চুলা জ্বালাতে পারছেন না গৃহিনীরা। এতে করে রাতের ঘুম হারাম করে পরিবারের সদস্যদের জন্য রান্না করছেন তারা।

এই চিত্র মুন্সীগঞ্জ শহর-শহরতলীতে দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে। গ্যাস সংকটের কারণে খাবার তৈরি করতে প্রতিদিন চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। চুলায় গ্যাস না থাকায় খড়ির চুলায় রান্নার কাজ করতে হচ্ছে।

গ্যাস অফিস সুত্র জানায়, মুন্সীগঞ্জে গ্যাসের চাহিদা ৫ দশমিক ২৫ এমএমসিএম (মিলিয়ন ঘন মিটার)। কিন্তু পাওয়া যাচ্ছে কত মিলিয়ন ঘন মিটার তা জানা নেই কর্তৃপক্ষের। মুন্সীগঞ্জে আবাসিক প্রায় সাড়ে ৯ হাজার ও ৪৫টি শিল্প ও বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে সংযোগ রয়েছে। যার দরুন স্কুল শিক্ষকসহ খেটে খাওয়া দিন মজুর ও চাকরিজীবীদের তিন বেলা পেট ভরে খেতে পারছেন না এই গ্যাস সংকটের জন্য। শিশু-কিশোররা বেশির ভাগ সময়ই সকালে না খেয়ে পাঠদানের জন্য ছুটে চলে যান। এতে করে তাদের লেখা-পড়ায় মনোযোগ কম হচ্ছে।

প্রতি মাসের আইনশৃঙ্খলার মাসিক মিটিংয়ে মুন্সীগঞ্জ তিন আসনের সংসদ সদস্য মৃনাল কান্তি দাস মুন্সীগঞ্জে গ্যাসের সংকট নিরসন করবেন এমন কথার ফুলঝুড়ি দিলেও কাজের নামে ঠনঠনাঠন।

এ বিষয়ে তিতাস গ্যাসে এন্ড ট্রান্সমিশন মুন্সীগঞ্জ আঞ্চলিক কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আরমানুর রেজা ভূঁইয়া, গ্যাস সরবারহের বিষয়টি নিয়ন্ত্রন করে তিতাসের কেন্দ্রীয় অফিস। আঞ্চলিক অফিসের কাজ হচ্ছে সংযোগ দেওয়া ও গ্রাহক পর্যায়ে বিল সংগ্রহ করা। গ্যাস সঙ্কট নিরসনের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার জানানো হয়েছে। তবে এখনো বরাদ্ধ বৃদ্ধি করা হয়নি। তাই আমরা নিরুপায়।

টাইমটাচনিউজ

Leave a Reply