মুজিবুর রহমান খোকা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন

মুন্সীগঞ্জে পুলিশের হুমকিতে
মুন্সীগঞ্জে পুলিশের হুমকিতে আওয়ামী লীগ নেতা মুজিবুর রহমান খোকা (৬০) হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে এখন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। এর আগে পুত্রের মামলার বাদী এসআই তাহের ও তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই রাসেল আহম্মেদ ৪১ হাজার ৫শ’টাকা তাঁর কাছ থেকে উৎকোচ গ্রহন করেন। ঢাকা হৃদরোগ ইনস্টিটিউডে ভর্তি থাকা এই নেতা রবিবার সন্ধ্যায় জানান, তাঁর পুত্র দিপু দেওয়ানকে (২২) একটি অস্ত্র মামলায় মঙ্গলবার রিমান্ডে আনে মুন্সীগঞ্জ থানা পুলিশ। মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই রাসেল আহম্মেদ এদিন রাতেই তাঁর পুত্রকে মারধর না করার শর্তে ২০ হাজার টাকা উৎকোচ গ্রহন করে।

পরদিন বুধবার দুপুরে আরও ২০ হাজার টাকা দাবী করে এই দারোগা ফোনে বলেন, “নয়ত ছেলের লাইফ নষ্ট করে দেয়া হবে, সাথে তাকেও (খোকা) রিমান্ডে এনে নির্যাতন করা হবে। পুলিশ পারে না এমন কিছু নেই…।” মোবাইল ফোনে মারাত্মক হুমকিসহ প্রবল চাপ সৃষ্টি করে এই দারোগা। এক পর্যায়ে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। মূমূর্ষু অবস্থায় তাঁকে প্রথমে মুন্সীগঞ্জ ও পরে বুধবারই ঢাকার হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। কিছুটা সুস্থ হওয়ার পর রবিবার সন্ধ্যায় এই প্রতিনিধিকে তিনি ঘটনা খুলে বলেন।

প্রবীন এই আওয়ামী লীগ নেতা জানান, এর আগে একই থানার দারোগা আবু তাহের তার ছেলে দিপু দেওয়ানকে ৯ নবেম্বর সন্ধ্যায় আটক করে এবং ষড়যন্ত্র করে গভীর রাতে নির্মাণাধীন রান্না ঘর থেকে দুই রাউন্ড গুলিসহ একটি পিস্তল উদ্ধার করা হয়। এদিকে এই অস্ত্র মামলার বাদী এসআই আবু তাহের তাঁর ছেলেকে রক্ষার কথা বলে বিপদগ্রস্ত এই পিতার কাছ থেকে তিন দফায় ২১ হাজার ৫শ’ টাকা উৎকোচ গ্রহন করেন। এব্যাপারে এসআই আবু তাহের বলেন, “এই কথা বইলা সে ভুল করলো। আমি টাকা নেই নাই।’

একই ভাবে অভিযোগ অস্বীকার করে এসআই রাসেল বলেন, “বিপক্ষে গেলেই অভিযোগ আসে। বুধবার দুপুরের দিকে দিপুর বাবাকে ফোন করেছি সত্য। তবে টাকা চাইনি, হুমকিও দেইনি। অস্ত্র উদ্ধারের চেষ্টা করেছি।” নারায়ণগঞ্জ ২শ’ শয্যা হাসপাতালের কর্মচারী ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি বর্তমান মুন্সীগঞ্জ শহর আওয়ামী লীগের সদস্য মুজিবুর রহমান খোকা বলেন, “মোবাইল ফানে যে কথাগুলো আমাকে দায়োগা সাহেব বলছেন, তার রেকর্ড বের করলেই সব তথ্য বেরিয়ে আসবে।” তিনি বলেন, পুলিশ মানুষিক যে টর্চার আমাকে করেছে এখনও তা ভুলতে পারি না।”

মুন্সিগঞ্জেরকাগজ

Leave a Reply