বিএডিসির ৮৬ হাজার ৭২০ বস্তা সার গায়েব

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি) গুদাম থেকে ৮৬ হাজার ৭২০ বস্তা নন-ইউরিয়া সার গায়েব হয়ে গেছে। বস্তাগুলোতে চার হাজার ৩৩৬ মেট্রিক টন সার ছিল বলে গুদাম কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

এ ঘটনায় গুদামের ভারপ্রাপ্ত সহকারী পরিচালক (সার) রেজাউল করিম ও গুদামরক্ষক খোর্শেদ আলমকে অভিযুক্ত করে মামলা হয়েছে। তাঁদের চাকরি থেকেও সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

সার ডিলাররা জানান, গুদামে সার না থাকায় চার জেলার ডিলারদের এখন খালি হাতে ফিরে যেতে হচ্ছে। এতে রবি মৌসুমে সার সংকটের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বিএডিসি কিশোরগঞ্জ গুদামের সহকারী পরিচালক শহিদুল্লাহ শেখ বলেন, ঘটনাটি এক দিনে ঘটেনি। অনেক দিন ধরে ঘটেছে। তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় গতকাল রোববার ভৈরব থানায় তিনি মামলা দায়ের করেছেন। ওই সারের বাজারমূল্য সাত কোটি ৩০ লাখ ২৯ হাজার টাকা হতে পারে। বিএডিসির প্রধান কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক (বিক্রয়) আলী আজগর ভৈরব গুদামের দুজনকে বরখাস্ত করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিএডিসি সূত্র জানায়, ২০০৫ সালে সাময়িকভাবে ভৈরব গুদামটি বন্ধ করে দেয় বিএডিসি। পরে ২০০৭ সালে পুনরায় এটির কার্যক্রম শুরু হয়। তখন থেকে খোর্শেদ আলম গুদামের রক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। রেজাউল করিমও এক বছর ধরে গুদামে কর্মরত। ভৈরব গুদাম থেকে ডিলারের মাধ্যমে কিশোরগঞ্জ, নরসিংদী, গাজীপুর, মুন্সিগঞ্জ জেলার মোট ২০ উপজেলায় নন-ইউরিয়া সার সরবরাহ হয়।

১১ নভেম্বর রেজাউল করিম লিখিতভাবে সার কম থাকার বিষয়টি কিশোরগঞ্জ গুদামের সহকারী পরিচালককে জানান। পরে হিসাব করে দেখা যায়, ১২ নভেম্বর পর্যন্ত সময়ে টিএসপি এক হাজার ৫৮৫, ডিএপি ৮০০ এবং এমওপি দুই হাজার ৯১৭ মেট্রিক টন মজুত থাকার কথা। কিন্তু সেখানে টিএসপি এক হাজার ৪৬৩, এমওপি দুই হাজার ২৩১ ও ডিএপি ৬৪২ মেট্রিক টন কম রয়েছে।

কিশোরগঞ্জের ইটনা এলাকার ডিলার স্বপন সাহা বলেন, ‘গুদামে ২৪২ বস্তা সারের টাকা জমা দিয়েছি। কিন্তু সার পাচ্ছি না। কখন দেবে তা-ও বলছে না।’
মুন্সিগঞ্জের ডিলারদের প্রতিনিধি মো. মনিরুজ্জামান বলেন, ‘এক সপ্তাহ আগে ৬০০ বস্তা সারের টাকা জমা দেওয়া আছে। এখন রসিদ হাতে ঘুরছি। কয়েক দিনের মধ্যে সার না পেলে কৃষকদের সঙ্গে ডিলারদের ভুল বোঝাবুঝি সৃষ্টি হবে।’

ডিলাররা কবে সার পাবেন—এমন প্রশ্নের জবাবে বিএডিসি কিশোরগঞ্জ গুদামের সহকারী পরিচালক শহিদুল্লাহ শেখ বলেন, এ ঘটনায় গুদাম সিলগালা হবে। ডিলারদের নতুন করে আবেদন করতে হবে। আরও কিছু আইনগত প্রক্রিয়া শেষে সার দেওয়া শুরু হবে।

ঘটনার পর থেকেই রেজাউল করিম ও খোর্শেদ আলমের মুঠোফোন বন্ধ রয়েছে। তাঁরা দুজনই গা ঢাকা দিয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। ভৈরব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বদরুল আলম তালুকদার বলেন, মামলাটি দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) পাঠানো হবে।

প্রথম আলো

Leave a Reply