পদ্মায় দেশি-বিদেশি শ্রম আর উপকরণ

সাড়ে তিন হাজার মানুষের সাত হাজার হাত। ছোট থেকে শুরু করে বিশালাকার যন্ত্রপাতি, উপকরণ। ১৪৬০ দিনের বিশাল কর্মযজ্ঞ। এর পরই স্বপ্নের পদ্মা সেতুর দ্বার উন্মোচন। এটি এখন আর কোনো গল্প নয়। সেতুর পিলার স্থাপনে মাটি পরীক্ষার কাজ চলছে। প্রায় দেড় শ শ্রমিক দিন-রাত কাজ করে কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড নির্মাণ করছেন। জমি অধিগ্রহণ শেষ, নদীশাসনের কাজও অনেক দূর। যেখানে সেতুটি হবে, তার পাশেই অপেক্ষা করছে চীন থেকে আসা বিশাল দুই যন্ত্রদানব, যা সেতু নির্মাণে ভাসমান ইউনিট হিসেবে কাজ করবে। এভাবেই দিন দিন বাস্তব রূপ পাচ্ছে স্বপ্নের পদ্মা সেতু। দেশের সর্ববৃহৎ এই নির্মাণ অবকাঠামোতে রড, সিমেন্ট, পাথর সরবরাহের আশায় বুক বাঁধছেন দেশের ব্যবসায়ীরা।

গত রবিবার মাওয়া ঘাট ও আশপাশের এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, পদ্মা সেতু নির্মাণকাজের প্রস্তুতি। মাওয়া ঘাটে পদ্মার তীর থেকে সামান্য টানে সেতুর দ্বিতীয় পিলার স্থাপনের মাটি পরীক্ষার কাজ করছেন চারজন চীনা ও তিনজন বাংলাদেশি শ্রমিক। এর আগে প্রথম পিলারের জন্য মাটি পরীক্ষার কাজ শেষ হয়েছে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, মূল সেতু নির্মাণের জন্য চায়না মেজর ব্রিজের কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড নির্মাণের কাজও চলছে। সেখানে দেড় শর বেশি শ্রমিক কাজ করছেন। কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে স্থাপন করা হয়েছে পাথর ভাঙার মেশিন। পাশেই পদ্মা নদীতে ভাসমান অবস্থায় রয়েছে চীন থেকে আসা ফ্লোটিং ইউনিটের বড় দুটি মেশিন, যা নদীর তলদেশে পিলার বসানো থেকে শুরু করে বিভিন্ন কাজে ব্যবহার হবে। এই কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে কর্মরত শ্রমিকদের একজন মুকুল ইসলাম। কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা থেকে এসে কাজ করছেন মাসে ১১ হাজার টাকা বেতনে। সাত বছরের জন্য নিয়োগ পাওয়া এই শ্রমিক কালের কণ্ঠকে বলেন, ইয়ার্ডে দেড় শরও বেশি শ্রমিক কাজ করছেন। দৈনিক আট ঘণ্টা কাজের বাইরেও ওভারটাইম করছেন তাঁরা। সেতু কবে হবে- এমন প্রশ্নের উত্তরে মুকুল বলেন, ‘সেতু বানানোর জন্যই তো এত আয়োজন। চীন থেকে বড় বড় মেশিন আসছে। আমরাও দিন-রাত কাজ করছি।’

মাসে ১২ হাজার টাকা বেতনে নিয়োগ পাওয়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডের আরেক শ্রমিক রাজমিস্ত্রি চঞ্চল বলেন, ‘সেতু হবে তো বটেই। না হলে এত কাজ হবে কেন?’
ঢাকা থেকে মাওয়ার দিকে যেতেই আচমকা চোখে পড়বে সড়ক প্রশস্ত করার কাজ। দুই পাশেই সড়ক প্রশস্তের কাজ করছে বাংলাদেশের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান আবদুল মোনেম গ্রুপ। এটি মূলত পদ্মা সেতুর সংযোগ সড়ক বা এপ্রোচ রোড। বালি ফেলে তা বসিয়ে সমান করার কাজ চলছে। এর উপরের স্তরে ব্যবহারের জন্য ইটের সুরকি ও বালি মজুদ করে রাখা হয়েছে। মূল সেতু নির্মাণ, সংযোগ সড়ক বা নদী শাসন- সব কাজে ব্যবহারের জন্য ‘সার্ভিস এরিয়া’ নির্মাণের কাজও পুরোপুরি চলতে দেখা গেছে। আবদুল মোনেম গ্রুপ এ কাজটিও করছে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন উপকরণ পরীক্ষার জন্য ল্যাবরেটরি স্থাপন শেষে তা হস্তান্তর করা হয়েছে। সার্ভিস এরিয়ায় অফিস করার যাবতীয় উপকরণ এনে রেখেছে চায়না মেজর ব্রিজ কর্তৃপক্ষ। পদ্মা সেতু নির্মাণের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশনের বাংলাদেশ প্রধান রেম কালের কণ্ঠকে জানান, মূল সেতু নির্মাণের জন্য ইতিমধ্যে চীন থেকে বিভিন্ন যন্ত্রপাতির চারটি চালান বাংলাদেশে এসেছে। মূল সেতু নির্মাণে যেসব রড ও স্টিল লাগবে, তা চীন ও ভারত থেকে আনার পরিকল্পনা রয়েছে। এ ছাড়া সিমেন্ট, পাথর ও বালি নেওয়া হবে বাংলাদেশ থেকেই। তিনি জানান, সেতু নির্মাণে প্রায় সাড়ে তিন হাজার শ্রমিক কাজ করবে। এর মধ্যে বাংলাদেশের তিন হাজার শ্রমিক থাকবে। বাকি পাঁচ শ শ্রমিক চীনা। চীনা প্রকৌশলী ও শ্রমিকদের একটি অংশ ইতিমধ্যে এসে কাজ শুরু করেছে।

পদ্মা সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়ার পর থেকেই দেশীয় সিমেন্ট ও রি-রোলিং মিল মালিকরা আশায় বুক বাঁধতে শুরু করেছেন। পদ্মা সেতু নির্মাণে বিপুল চাহিদার কথা বিবেচনায় নিয়ে অনেক সিমেন্ট কম্পানি তাদের উৎপাদন সক্ষমতা বাড়িয়েছে। রড, সিমেন্ট, পাথর ও বালিসহ বিভিন্ন উপকরণ সরবরাহের জন্য ভেতরে ভেতরে প্রস্তুতি নিয়ে রাখছেন এ দেশের ব্যবসায়ীরা। তবে মূল সেতু নির্মাণের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন এখনো বিভিন্ন উপকরণের চাহিদা ও তার উৎসস্থল চূড়ান্ত করেনি বলে জানা গেছে।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, পদ্মা সেতুতে সিমেন্ট বা অন্যান্য উপাদান ঠিক কী পরিমাণ লাগবে, তা এখনো চূড়ান্ত করা হয়নি। কারণ, মূল সেতুর কোন অংশ কোন দেশে তৈরি হবে, তা নিয়ে এখনো কাজ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। সেতুর যত বেশি অংশ বাংলাদেশে তৈরি হবে, তত বেশি স্থানীয় উপকরণ ব্যবহারের সম্ভাবনা থাকবে। এসব বিষয় নিয়ে মূল সেতু নির্মাণে কার্যাদেশ পাওয়া ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এখনো কাজ করছে। তার কোনো কিছুই এখনো চূড়ান্ত হয়নি। তবে পদ্মা সেতুর পাইলিং ড্রাইভ হ্যামার জার্মানিতে তৈরি করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

দেশের নির্মাণ খাতের কাঁচামালের জোগানদাতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সেতু নির্মাণে পাথর, সিমেন্ট, বালি বা অন্যান্য উপকরণ সরবরাহের আশায় প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন এসব খাতের ব্যবসায়ীরা। তাঁদের কারো কারো সঙ্গে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান যোগাযোগ করছে বলে জানা গেছে। তবে অনেকেই বলেছেন, এখনো তাঁদের সঙ্গে কেউ যোগাযোগ করেনি। ফলে আশা-নিরাশার দোলাচলে আছেন অবকাঠামো নির্মাণ খাতের উপকরণের জোগানদাতা শিল্পপ্রতিষ্ঠানের মালিকরা।

সংশ্লিষ্টরা জানান, দুই পাড়ের সংযোগ সড়ক, নদী শাসন ও মূল সেতু নির্মাণে প্রায় সাত লাখ ৩০ হাজার টন সিমেন্ট লাগতে পারে। এর মধ্যে মূল সেতু নির্মাণে সিমেন্ট নেওয়ার জন্য দেশের প্রধান প্রধান সিমেন্ট কম্পানির সঙ্গে চায়না মেজর ব্রিজ কর্তৃপক্ষ যোগাযোগ করেছে বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে একটি নেতৃস্থানীয় সিমেন্ট কম্পানির ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘পদ্মা সেতুতে সিমেন্ট নেওয়ার জন্য ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান আমাদের কম্পানির সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। এখনো বিষয়টি দুই পক্ষের মধ্যে আলোচনা পর্যায়ে রয়েছে, চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। অন্য সিমেন্ট কম্পানিগুলোর সঙ্গেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান যোগাযোগ করছে বলে আমরা জানতে পেরেছি।’

পদ্মা সেতুতে সিমেন্ট নেওয়ার জন্য ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের তরফে কোনো যোগাযোগ করা হয়েছে কি না, জানতে চাইলে অন্য একটি সিমেন্ট কম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) জানান, এখনো আমাদের সঙ্গে কোনো ধরনের যোগাযোগ করেনি। তবে বাংলাদেশের সিমেন্ট খাত স্বয়ংসম্পূর্ণ। দেশের বৃহৎ অবকাঠামো প্রকল্পগুলোতে বিরতিহীনভাবে মানসম্পন্ন সিমেন্ট সরবরাহ করে অতীতেও সক্ষমতার প্রমাণ রেখেছে দেশের সিমেন্ট খাত।

পদ্মা সেতুতে স্টিল ব্যবহার হবে বেশি। তাই পাথরের চাহিদা কম হবে। তবে ঠিক কী পরিমাণ পাথর লাগবে, তার সঠিক হিসাব পাওয়া যায়নি। তা সত্ত্বেও সিলেটের জাফলং থেকে পদ্মা সেতুতে পাথর নেওয়া হবে- এমন আশায় প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন সেখানকার পাথর ব্যবসায়ীরা। জাফলংয়ের পাথর ব্যবসায়ীদের একজন এনাম খান। এত দিন লন্ডনে ছিলেন তিনি। পদ্মা সেতুতে পাথর সরবরাহ করার আশায় সেখান থেকে দেশে ফিরেছেন। কিনেছেন ২০টি ট্রাক। কালের কণ্ঠকে তিনি বলেন, প্রতি কিলোমিটারের জন্য প্রায় ২৫ লাখ ঘনফুট পাথরের দরকার হয়। সে হিসাবে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার লম্বা পদ্মা সেতুর জন্য প্রায় দেড় কোটি ঘনফুট পাথর লাগতে পারে। শুনেছি, পদ্মা সেতুতে জাফলংয়ের পাথর ব্যবহার করা হবে। তবে এখনো চায়না মেজর ব্রিজের পক্ষ থেকে পাথর নেওয়ার বিষয়ে কেউ আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। অন্য কারো সঙ্গে যোগাযোগ করেছে, তেমনটাও শুনিনি। তবে আমরা পাথর সরবরাহ করতে প্রস্তুত রয়েছি।

বাংলাদেশ অটো রি-রোলিং মিলস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শেখ মাসুদুল আলম মাসুদ কালের কণ্ঠকে বলেন, পদ্মা সেতুতে ব্যবহারের জন্য রড নেওয়ার বিষয়ে এখনো আমাদের সঙ্গে ঠিকাদাররা যোগাযোগ করেননি। তবে শুনেছি, চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন চীন থেকে স্ল্যাব তৈরি করে আনবে। সেটি হলে পদ্মা সেতুতে বাংলাদেশের কোনো উপকরণই ব্যবহৃত হবে না। পদ্মা সেতুতে দেশীয় মানসম্পন্ন উপকরণের বদলে বিদেশি উপকরণ ব্যবহার করলে তা হবে বাংলাদেশের জন্য আত্মঘাতী।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply