গনকপাড়ায় পুলিশ-সন্ত্রাসীর গোলাগুলি : আটক ২ (ভিডিও)

মুন্সীগঞ্জ শহরের গনকপাড়া এলাকায় পুলিশ ও সন্ত্রাসীদের গোলাগুলিতে জিয়া (৩৫) নামের এক পুলিশ কনস্টেবল গুলিবিদ্ধ হয়েছে। বুধবার বিকেল ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সন্ত্রাসী কানা সুমন (৩৩) ও জুয়েলকে (৩০) গ্রেফতার করেছে। গুলিবিদ্ধ পুলিশ কনস্টেবল জিয়াকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থাণীয় সূত্র জানায়, ঘটনার সময় পুলিশ ও সন্ত্রাসীদের গোলাগুলিতে গনকপাড়া এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পুলিশ ও সন্ত্রাসীরা এ সময় কমপক্ষে অর্ধশতাধিক গুলিবর্ষন করেছে। সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জুলমত হোসেন জানান, সদর থানা পুলিশের তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী কানা সুমনকে গ্রেফতার করতে অভিযান চালায় পুলিশ।

এ সময় সন্ত্রাসী কানা সুমন ও তার বাহিনী পুলিশের উপর গুলি চালায়। এতে দুই পক্ষের মধ্যে গোলাগুলি শুরু হয়ে যায়। এ সময় সন্ত্রাসীদের গুলিতে পুলিশ কনস্টেবল জিয়া বা হাতে গুলিবিদ্ধ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। তিনি আরও জানান, ঘটনার পর থেকে পুলিশের একাধিক টিম গনকপাড়া এলাকায় চিরুনি অভিযান শুরু করেছে। বিকেল সাড়ে ৩টায় এ প্রতিবেদন লেখার সময় অভিযান অব্যাহত ছিল।

এদিকে পুলিশের অপর একটি সূত্রে জানায়, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের ফকির দুই কনস্টেবল নিয়ে গনকপাড়া এলাকায় অপর একটি ঘটনায় তদন্ত গিয়েছিল। এ সময় সন্ত্রাসী কানা সুমনসহ অপর সন্ত্রাসীদের সঙ্গে বিরোধ জড়িয়ে পড়ে ধস্তাধস্তিতে লিপ্ত হয়। এ সময় সন্ত্রাসীরা পুলিশ কনস্টেবল জিয়াকে গুলি করলে পুলিশের সঙ্গে গোলাগুলি শুরু হয়। সুমন ও জুয়েল নামের দুই সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বার্তা২৪
======

গনকপাড়ায় সন্ত্রাসী-পুলিশ বন্দুকযুদ্ধে কনস্টেবল গুলিবিদ্ধ

শেখ মো. রতন:মুন্সীগঞ্জ সদর থানার অদূরে শহরের গনকপাড়া এলাকায় পুলিশ ও সন্ত্রাসীদের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধে জিয়াউর রহমান (৩৫) নামের এক পুলিশ কনস্টেবল গুলিবিদ্ধ হয়েছে। বুধবার বিকেল সাড়ে ৩ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় পুলিশ সন্ত্রাসী কানা সুমন (৩৪) ও জুয়েলকে (৩২) গ্রেফতার করেছে। গুলিবিদ্ধ পুলিশ কনস্টেবল জিয়াকে প্রথমে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। অবস্থার অবনতি ঘটায় তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সদর থানার এস আই মো. সৈকত হোসেন জানান, তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী কানা সুমনকে গ্রেফতার করতে অভিযান চালায় পুলিশ। এ সময় কানা সুমন ও তার বাহিনী পুলিশের উপর গুলি চালায়। এতে দুই পক্ষের মধ্যে গোলাগুলি শুরু হয়ে যায়। এ সময় সন্ত্রাসীদের গুলি কনস্টেবল জিয়াউর রহমানের বাম হাতের কনুইয়ের নিচে বিদ্ধ হয়। তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন।

পুলিশ কানা সুমনের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে বন্দুকের ৯ টি কার্তুজ ও ১ কেজি গাজা উদ্ধার করেছে।

এস আই মো. সৈকত হোসেন আরও জানান, ঘটনার পর থেকে পুলিশ গনকপাড়া এলাকায় চিরুনি অভিযান শুরু করেছে। বিকেল সাড়ে ৩টায় এ প্রতিবেদন লেখার সময় অভিযান অব্যাহত ছিল।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের ফকির জানান, সদর থানা পুলিশ গনকপাড়া এলাকায় একটি ঘটনার তদন্ত করতে গিয়েছিল। এ সময় সন্ত্রাসী কানা সুমনসহ ৩-৪ জন সন্ত্রাসীর সঙ্গে তাদের কথা কাটাকাটি হয় এবং এক পর্যায়ে তা ধস্তাধস্তিতে গড়ায়। এ সময় সন্ত্রাসীরা পুলিশ কনস্টেবল জিয়াকে গুলি করলে পুলিশের সঙ্গে তাদের গোলাগুলি শুরু হয়। পুলিশ ৩ রাউন্ড পিস্তলের গুলি ছোড়ে।

এদিকে এলাকাবাসী বলেছে, দুইপক্ষে অর্ধশতাধিক গুলি বিনিময় হয়েছে। এতে গনকপাড়া এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

এ প্রসঙ্গে মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার জানান, আসামি গ্রেফতার করতে গেলে এ ঘটনা ঘটে। সুমন ও জুয়েল নামের দুই সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় সদর থানায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে। আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান চলছে। এলাকায় এখন থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ওই এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

রাইজিংবিডি

===========

মুন্সীগঞ্জে পুলিশ গুলিবিদ্ধ

মুন্সীগঞ্জে পুলিশ গুলিবিদ্ধমুন্সীগঞ্জের তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী কানা সুমন (৩২) কে গ্রেফতার করতে গেলে সন্ত্রাসীদের গুলিতে কনস্টেবল জিয়াউর রহমান গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এসময় সদর থানার ওসি আবুল খায়ের ফকির আহত হয়েছেন।

ঘটনাস্থল থেকে সন্ত্রাসী সুমন ওরফে কানা সুমন ও সন্ত্রাসী জুয়েল শেখ (৩০) কে আটক করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেল সোয়া ৩ টার দিকে শহরের গণকপাড়া এলাকার মিলন ক্লাবের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

সূত্র জানায়, ওসিসহ পুলিশের একটি টিম সুমনকে আটক করতে গেলে সুমনের সন্ত্রাসী বাহিনী পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে। এসময় কনস্টেবল জিয়াউর গুলিবিদ্ধ হন এবং আহত হন ওসি।

পরে পুলিশের আরেকটি টিম ঘটনাস্থলে অভিযান চালিয়ে ৯ রাউন্ড কার্তুজ ও সুমনের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে এক কেজি গাঁজা উদ্ধার করে।

সন্ত্রাসী সুমন ওরফে কানা সুমন শহরের মধ্য কোর্টগাঁও এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে। অপর আটক সন্ত্রাসী জুয়েল শেখ (৩০) একই এলাকার বছির উদ্দিনের ছেলে।

পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আহত কনস্টেবলকে জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়ার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরো জানান, আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে। ঘটনাস্থলসহ এর আশেপাশের এলাকায় অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

শীর্ষ নিউজ
========

Leave a Reply