আগামীকাল বৃহস্পতিবার মাওয়া ঘাটের ২৮ বছরের ব্যস্ততা থেমে যাচ্ছে

মাওয়া ফেরিঘাট কাল বৃহস্পতিবার শিমুলিয়ায় নতুন ঘাটে স্থানান্তর নিয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান ড. সামসুদ্দোহা খন্দকার স্টেক হোল্ডারদের সাথে মতবিনিময় করেছেন। মাওয়া পদ্মা সেতুর রেস্ট হাউজে এই মতবিনিময়ে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিআইডব্লিউটিএর সদস্য (অর্থ) মো. মনিরুজ্জামান, সদস্য প্রকৌশল মফিজুল হক, পরিচালক (নৌ.স.প) মোহাম্মদ হোসেন, পরিচালক (বন্দর) শফিকুল ইসলাম, পরিচালক (নৌ.নি ট্রা) মো. মফিজ, প্রধান প্রকৌশলী মজিবুর রহমান, নির্বাহী প্রকৌশলী হারুনুর রশিদ, লৌহজং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল রশিদ সিকদার, বিআইডব্লিউটিএর উপ পরিচালক আব্দুস সালাম, বিআইডব্লিউটিসির এজিএম আশিকুজ্জামান, বাস মালিক ঐক্য পরিষদের সভাপতি আলী আকবর, লঞ্চ মালিক সমিতির প্রতিনিধি আব্দুল রউফসহ সংশ্লিষ্ট স্টেক হোল্ডার প্রতিনিধিগন।

সব ঠিকঠাক থাকায় সভায় কাল বৃহস্পতিবার শিমুলিয়ায় ‘মাওয়া ঘাট’ স্থান্তরের ব্যাপারে সকলে সম্মতি জ্ঞাপন করে। এরই মধ্যে দিয়ে মাওয়ার ২৮ বছরের ব্যস্ততা থেমে যাচ্ছে। ১৯৮৬ সাল থেকে মাওয়ায় ফেরি ঘাটটি চালু হয়। কয়েকবার ভাঙ্গন দেখা দিলেও মাওয়া এলাকায়ই এই ঘাটটি চালু ছিল। আর দিনদিন এর গুরুত্বও বেড়ে যায়। দেশের শ্রেষ্ঠত ফেরিঘাট হিসাবে মাওয়া স্থান পায়। তাই মাওয়াকে বন্দর ঘোষণা করা হয়।

এর আগে বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান শিমুলিয়ার নতুন ঘাট পরিদর্শন করেন। মাওয়ার প্রায় দু’কিলোমিটার পূর্বদিকের এই শিমুলিয়া ঘাটের কাজ পরিদর্শন করে সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা দেন। সড়ক শিমুলিয়া ঘাট সড়ক পথে ঢাকা-মাওয়ার দূরত্ব দুই কি.মি. বাড়লেও নৌ পথে এ দূরত্ব কিছুটা কম হবে বলে জানান তিনি। এদিকে পদ্মা সেতুর জায়গায় অবৈধভাবে মাওয়া ফেরিঘাট স্থাপন করে ঘাট পরিচালনা করায় পদ্মা সেতুর কাজে মারাত্মক অসুবিধা হচ্ছিল।

পদ্মা সেতুর কাজ ব্যাপকভাবে শুরু হলেও ঘাটের কারণে এ সমস্যা হচ্ছে। নভেম্বরের মধ্যে এই মাওয়া ঘাট সম্পূর্ণভাবে সরিয়ে নেয়া না হলে ঠিকাদারকে হয়ত ক্ষািতপূরণ দিতে হতে পারে । এমন শঙ্কার কথা জানিয়েছেন পদ্মা সেতুর প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম। তাই নতুন ঘাটের কাজ অসম্পূর্ণ অবস্থায় রেখেই মাওয়া ঘাটকে শিমুলিয়ায় সরিয়ে নেয়া হচ্ছে।

তবে এতে যান পারাপারে কোন সমস্যা হবে না বলে জানিয়েছেন বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়োরম্যান। তিনি জানান, সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে শিমুলিয়া ঘাটের সংযোগসড়ক পুরোপুরি সম্পন্ন হতে আরও কয়েক দিন লাগবে। তার পরও একপাশ দিয়ে যান চলবে আর অপরপাশ দিয়ে রাস্তার উন্নয়ন হবে এমনভাবে শিমুলিয়া ফেরিঘাট চালু করা হচ্ছে। তিনি বলেন, মাওয়া থেকে শিমুলিয়া ঘাটের মান আরও ভাল হবে এবং কাজ অনেক সুন্দর হবে। তাই এ ঘাট দিয়ে যাত্রী পারাপারও হবে স্বাচ্ছন্দে।

মুন্সিগঞ্জেরকাগজ

Leave a Reply