টঙ্গীবাড়ীতে যুব সমাজের সচেতনেতা বিষয়ক অভিযান

এইচ. এম. আরিফ: “বদলে দিতে, নিজে বদলে যাও; অন্যকেও বদলাতে উৎসাহিত করো,” এই মূলমন্ত্রকে সামনে রেখে টঙ্গীবাড়ী উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামের কান্দির পাড়ার যুব সমাজ নেমেছে এক অভিযানে। না, এটা কোন অস্ত্র হাতে যুদ্ধের অভিযান নয়; বরং সচেতনতা বৃদ্ধির অভিযান। ধূমপান, মদ, গাজা, ইয়াবার মতো প্রাণঘাতি নেশাদ্রব্য পারমাণবিক বোমার মতো যুব সামাজের নৈতিকতাকে বিধ্বংস্ত করে দিচ্ছে, ভেঙ্গে দিচ্ছে নিজের ক্যারিয়ার এবং মা-বাবার স্বপ্ন।

জুয়ার আসরে বড়দের মোনাজাত; ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্যে কতটাই মঙ্গল বয়ে আনবে? এই প্রশ্নে যাদের ভাবার কথা, তারা না ভাবলেও; এই সমাজের কতিপয় সচেতন যুবক, বিপথগামী যুবকদের রক্ষার্থে ‘শিমুলিয়া শিমুল সংঘ’ নামে একটি সামাজিক সংগঠন গড়ে তুলেছে। সংগঠনটির কাজ হচ্ছে সকল অসামাজিক কার্যাবলি চিহ্নিত করে সংঘবদ্ধভাবে তার প্রতিবাদ জানানো এবং সচেতনতা সৃষ্টির মাধ্যমে তা প্রতিরোধ করা। এ উদ্দেশ্যে সংঘঠনটি কতটাই সফল; এখন তা আর প্রশ্ন নয়; বরং তার ফল ভোগ করছে এলাকার জনগন।

সংগঠনটির আতœপ্রকাশ লগ্ন থেকে সংগঠনটির কর্মীরা গ্রামে গাজা সরবরাহ রোধে সক্ষম হয়েছে, জুয়ার আসর ভেঙ্গে দিয়েছে। ফলে, অভ্যন্তরীণ কিছু অপরাধও থমকে গিয়েছে। কোন মারধর বা রক্ত চক্ষুর শাসানি নয়, সংঘঠনটির কর্মীরা ধূমপানের কুফল সম্পর্কে সকলকে সচেতন করে যাচ্ছে। বিপথগামীদের সচেতন করে দেয়া হচ্ছে-তারা নিজেরা বিপথগামী এবং অন্যকেও তারা বিপথগামী করছে এবং তাদের বিপথগামীতার আসন্ন ভয়ংকর পরিণাম সম্পর্কেও তাদেরকে সচেতন করা হচ্ছে। সংগঠনটির কর্মীদের বন্ধুসুলভ আচরণে অনেক বিপথগামী বিপথ থেকে ফিরতে শুরু করেছে। কর্মীরা তাদের এ মহৎ কাজ চালিয়ে যেতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ এবং চালিয়েও যাচ্ছে।

তাদের সাফল্যে কান্দির বাড়ি সমাজের সভাপতি, আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান বলেন, “আমি অত্যন্ত আনন্দিত যে, আমার সমাজের সচেতন যুবকরা সামাজিক কাজে দলবদ্ধভাবে এগিয়ে এসেছে এবং তার সুফল সমাজবাসি ভোগ করতে শুরু করেছে।” গ্রামের টানা তিনবারের নির্বাচিত সাবেক মেম্বার, মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন বলেন, “তরুণরাই পারে একটা সমাজ বা দেশকে বদলে দিতে। আমার সমাজের সচেতন যুবকেরা তা আবারো প্রমাণ করলো।”

ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ইয়াকুব মাল বলেন, “তরুণদের মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের পথ ত্বরাণিত হয়েছিলো। আমার বিশ্বাস, প্রতিটি আদর্শ সমাজ গঠনেও তারা সে ধারাবাহিকতা বজায় রাখবে।” কাউকে হেয় প্রতিপন্ন করে নয়, সমাজের সর্বস্তরের জনগনের স্বদইচ্ছাই বদলে দিতে পারে প্রতিটা সমাজের অসামাজিক প্রেক্ষাপট।

বিক্রমপুর চিত্র

Leave a Reply