লৌহজংয়ে শিশু অপহরণ গুজব!

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে শনিবার দিনভর ছিল দুটি শিশু অপহরণের গুজব। শিশু দুটিকে থানা হেফাজতে এনে খোঁজ করা হয় তাদের বাবার। শেষে বিকেল ৫টায় শিশু দুটির বাবা লৌহজং থানায় এসে তাঁর সন্তানদের বুকে জড়িয়ে ধরেন।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, শনিবার সকালে মশদগাঁও গ্রামের সাত্তার শেখের বাড়িতে দুটি অপরিচিত শিশুকে কান্না করতে দেখে পাড়া-পড়শিরা উদ্বিগ্ন হয়। একপর্যায়ে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, মেম্বার ও থানায় খবর দেয় এলাকাবাসী। এই গ্রামে দুটি শিশু অপহরণ করে আনা হয়েছে এবং একটি বাড়িতে গোপনে রাখা হয়েছে বলে তারা পুলিশকে জানায়। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে এক নারীসহ শিশু দুটিকে থানা হেফাজতে নিয়ে আসে। খবর দেওয়া হয় তাদের বাবাকে। বিকেল ৫টায় বাবা খবর পেয়ে লৌহজং থানায় এসে হাজির হলে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়। শিশু দুটি হাউমাউ করে কেঁদে তাদের বাবার কোলে গিয়ে ওঠে। এ দৃশ্য দেখতে থানায় ভিড় করে শতাধিক লোক।

খবর নিয়ে জানা যায়, শিশু দুটির বাবা মো. পান্না (৩৮) ঢাকার নবাবপুরের বাসিন্দা। পান্নার সঙ্গে স্ত্রী বৃষ্টির বিয়ে হয় ১০ বছর আগে। এরই মধ্যে তাঁদের কোল জুড়ে আসে মেয়ে কবিতা (৫) আর ছেলে কাউসার (আড়াই বছর)। খুব শান্তিতে চলছিল তাঁদের সংসার। হঠাৎ করে সুখের সংসারে মেঘের ঘনঘটা বাসা বাঁধে। স্ত্রী বৃষ্টি এক পুরুষের হাত ধরে স্বামী সংসার আর সন্তান রেখে অজানার উদ্দেশে পাড়ি দেন। পান্না দুটি সন্তান নিয়ে পড়েন বিপাকে। রিকশা চালিয়ে সামান্য আয় তাঁর। কাজের লোক রাখা বা বাড়তি খরচ করা তাঁর পক্ষে সম্ভব নয়। সে কারণেই পাশের বাসার ভাড়াটিয়ার কাছে মেয়ে কবিতা ও ছেলে কাউসারকে পালক দেওয়ার জন্য দিয়ে দেন। ভাড়াটিয়া মমতাজ বেগম তাঁর চাচার কোনো সন্তান নেই বলে বাচ্চা দুটিকে তাঁর বাবার বাড়ি মশদগাঁও গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসেন। ঘটনার বিস্তারিত জেনে একটি জিডি করে শিশু দুটিকে তাদের বাবা পান্নার কাছে বুঝিয়ে দেন ওসি মো. তোফাজ্জেল হোসেন।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply