আজ লৌহজং থানার ওসি হাইকোর্টে হাজির হচ্ছে : গৃহবধুর আত্মহনন

লৌহজং উপজেলার নাগেরহাট গ্রামে গৃহবধু সুমি বেগম (২০) আত্মহননের ঘটনায় অবশেষে সালিশককারী ইউপি সদস্য রবেদা বেগম ও জামাল হোসেন গ্রেফতার হয়েছে। সোমবার গভীর রাতে লৌহজংয়ের নিজ বাড়ি থেকে পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে। এদিকে হাইকোর্টের রুল অনুযায়ী মামলাটির অগ্রগতি প্রতিবেদনসহ লৌহজং থানার ওসি মো. তোফাজ্জল হোসেন আজ বুধবার হাইকোর্টে সশরীরে হাজির হচ্ছেন। এসব তথ্য দিয়ে সহকারী পুলিশ সপার মিয়া কুতুবুর রহমান চৌধুরী জানান, এ ঘটনায় সুমির বেগমের বাবা খোরশেদ সরদার বাদী লৌহজং থানায় আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা করে।

এতে এজারভূক্ত আসামী করা হয় সুমী বেগমের স্বামী আব্দুল মান্নানকে। পরে তদন্তে প্রমানিত হওয়ার পর সালিশ বৈঠকে জড়িতদের মামলাটিতে আসামী করা হয়েছে। তিনি জানান, দায়ী পলাতক স্বামী ও সালিশকারী বাকী আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, গত ২০ নবেম্বর লৌহজংয়ের নাগেরহাট গ্রামে এক সালিশ বৈঠকে গৃহবধূকে চাপ প্রয়োগ, গালমন্দ, অপবাদ দেয়া হয়। বৈঠকে স্বামী আব্দুল মান্নানের সাথে দ্বিতীয়বার ঘর সংসার করতে হলে কোন সন্তানের জন্ম দেয়া যাবে না, বন্ধ্যা ও দাসী হয়ে থাকতে হবে বলে শর্তদেয়।

এসব অপমান সহ্য করতে না পেরে এমন সিদ্ধান্তের ১০ মিনিটের মাথায় নিজ ঘরের আড়ার সাথে ওড়না জড়িয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে গৃহবধু সুমি বেগম। কনকসার ইউপির মহিলা সদস্য রবেদা বেগম ছাড়াও সালিসকারীদের মধ্যে ছিলেন নাদের মেম্বার, তপন শরীফ, মুকবুল, সিরাজ মোল্লা, মো. জামাল হোসেন ও তিমিরসহ বেশ কয়েকজন। এসব বিষয় পত্রিকায় প্রকাশের পর এক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট মামলাটির অগ্রগতি প্রতিবেদনসহ লৌহজং থানার ওসিকে ১০ডিসেম্বর হাইকোটে সশরীরে হাজিরের নির্দেশ দেয়। এর পর পুলিশের তৎরতা বেড়ে যায়।

মুন্সিগঞ্জেরকাগজ

Leave a Reply