সিরাজদিখানে ছাত্রীর ছবি ইন্টারনেটে পোষ্ট : আটক এক

এক লাখ টাকা দাবি
মুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখানে এক কলেজ ছাত্রীর ছবি বিকৃত করে মুঠোফোন ও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার জৈনসার ইউনিয়নের ভাটিমভোগ এলাকার কলেজছাত্রীকে একই এলাকার একদল বখাটে কলেজে যাওয়া-আসার পথে উত্ত্যক্ত করতো। মেয়েটির চেহারা মতন আরেকটি ভিডিও চিত্র মোবাইলে ও ইন্টারনেটে প্রকাশ করে তার পরিবারের কাছে বস্নাকমেইল করে ১ লাখ টাকা দাবি করায় থানায় দুই জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। এ নিয়ে এলাকায় তোলপাড় চলছে। এ ঘটনায় রাজিবুর মোল্লা নামে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পুলিশ ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ঐ কলেজ ছাত্রী এবার বিক্রমপুর কে বি ডিগ্রী মহাবিদ্যালয়ের এইচ এস সি পরিক্ষার্থী। কলেজে যাওয়ার সময় প্রায় প্রতিদিন উপজেলার জৈনসার ইউনিয়নের ভাটিমভোগ গ্রামের আব্দুল রহমান মোল্লার ছেলে রাজিবুল মোল্লা ও একই গ্রামের মৃত জামাল ডাক্তারের ছেলে সুমন দেওয়ান তার ভগি্নপতি খালেক জমাদ্দারের ফোন ফ্যাঙ্রে দোকানে বসে কলেজে যাওয়ার সময় কুপ্রস্তাব দেয়। দিনদিন অশালীন ব্যাবহার ও কুপ্রস্তাবের মাত্রা বাড়তে থাকে। গত ৭ ডিসেম্বর রবিবার সকালে কলেজে প্রাইভেট পড়ার জন্য রওনা হইলে রাজিবুল মোল্লা ও সুমন দেওয়ান রাস্তায় একা পেয়ে হাত ধরে টেনে রাস্তার নীচে নিয়ে যৌন নিপীড়ন করে।

এই সময় ঐ ছাত্রী চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসার আগে আসামীরা মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে বেশী বাড়াবারি না করতে বলে দ্রুত চলে যায়। কলেজ ছাত্রীর মা শিল্লী রানী ভদ্র বলেন, রাজিবুল মোল্লা ও সুমন দেওয়ান গত সোমবার সন্ধ্যায় আমার বাড়ি এসে ১লাখ টাকা দাবি করে বলে বেশী বাড়াবাড়ি করলে তোমার মেয়ের ছবি এলকার সবার মোবাইলে ও ইন্টারনেটে দিয়ে দিমু। সুমন বলে তোমার মেয়ে খারাপ, তুমি তোমার মেয়েকে রাজিবুলের কাছে বিয়ে দাও। আমি হতাশ হয়ে বিষয়টি আমি আমার আত্মীয় স্বজন এবং পরে এলাকার চেয়ারম্যানকে জানাই। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয়রা জানায়, ঐ কলেজ ছাত্রীর নামে অন্য মেয়ের নীলছবির বিকৃত ছবি প্রকাশ করা হয়েছে।

১ সপ্তাহ আগে বখাটেরা ঐ নীলছবির ভিডিও চিত্রটি মোবাইলে ও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়। এ ঘটনায় কলেজছাত্রীর বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একই এলাকার আব্দুল রহমান মোল্লার ছেলে রাজিবুল মোল্লা ও একই গ্রামের মৃত জামাল ডাক্তারের ছেলে সুমন দেওয়ানকে আসামি করে সিরাজদিখান থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক ( ওসি প্রশাসন) মোঃ ইয়ারদৌস হাসান ধর্ষণের ঘটনা স্বীকার করে বলেন, কলেজছাত্রী নিজে বাদী হয়ে ২ জনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছে।

জনতা

Leave a Reply