অবশেষে মুক্ত সিরাজদীখানের মনিরুজ্জামান মনির

নামে মিল থাকায় কারাগারে
‘মাগো আদালত আমারে ছাইড়া দিছে। আমারে ছাইড়া দিছে। আর জেলে থাকা লাগবে না’_ এভাবেই মুক্তির আনন্দে কাঁদতে কাঁদতে চিৎকার করে কথাগুলো কিশোরী মেয়েকে বলছিলেন মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখানের কুচিয়ামারা গ্রামের মনিরুজ্জামান মনির (৫৫)। সাদা পাঞ্জাবি ও টুপি পরিহিত বয়স্ক এ লোকের চিৎকারে হাইকের্টের বারান্দায় থমকে দাঁড়াতে হয় উপস্থিত সবাইকে।

জানা গেল, মনিরুজ্জামানকে ২০০২ সালের লালবাগের বোমা বিস্ফোরণ মামলায় কারাদণ্ডপ্রাপ্ত হিসেবে আটক করা হয়। তবে তিনি এবং মামলার দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি এক ব্যক্তি নন। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামির নাম মো. মনির হোসেন (নথি সূত্রে বর্তমান বয়স ৩০)। অথচ মনিরুজ্জামান মনিরকে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে পুলিশ গ্রেফতার করে এবং পরে তাকে কারাগারে পাঠান বিচারিক আদালত। ২৫ বছর বয়সের ব্যবধানের বিষটি বারবার আদালতে তুলে ধরেছেন মনিরুজ্জামান মনিরের আইনজীবী। কিন্তু কিছুতেই তার মুক্তি মেলেনি। অবশেষে হাইকোর্টে এসে গতকাল মুক্তির আনন্দে আবেগ-উচ্ছ্বাসিত হয়ে পড়েন তিনি। এর মধ্যে কেটে গেছে দীর্ঘ আট মাস। এ সময় তাকে কারাগারে থেকে ভোগ করতে হয়েছে নিদারুণ দুঃসহ যন্ত্রণা।

যে অপরাধ তিনি করেননি, তার জন্য সাজা_ এটা কি মেনে নেওয়া যায়_ কথা বলছিলেন মনিরুজ্জামানের স্ত্রী সুফিয়া আক্তার। তিনি বলেন, হাইকোর্ট বিষয়টি তদন্ত করতে বলেছেন। সে অনুযায়ী পুলিশ তদন্তও করেছে। তারা আমাদের বাড়িতে গিয়েছিল, আমার স্বামীসহ পরিবারের সব সদস্যের জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি নিয়েছে। আমার শ্বশুর-শাশুড়ির হজে যাওয়ার পাসপোর্টের ফটোকপিও নিয়েছে। এলাকার মুরবি্বদের সঙ্গে কথা বলেছে। তারপরও আদালতে একটি প্রতিবেদন দিতে পারেনি। তবে হাইকোর্ট আমার স্বামীকে মুক্তি দিয়েছেন। এমনকি পুলিশকে এ কথাও বলেছেন, তাকে এখন থেকেই মুক্তি দেওয়া হলো। তাকে কারাগারে নেওয়া যাবে না।

বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল রোববার এ আদেশ দেন। পাশাপাশি ঘটনা তদন্ত করে দায়ীদের শনাক্ত করে আগামী ২২ জানুয়ারি আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে নির্দেশ দেওয়া হয়। এ ছাড়া ওই দিন মনিরুজ্জামান মনিরকে আদালতে উপস্থিত থাকতেও বলা হয়েছে।

মামলার নথি সূত্রে জানা গেছে, ২০০২ সালের ৩ অক্টোবর রাজধানীর লালবাগ থানার রাজনারায়ণ রোডে একটি বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় ৫ অক্টোবর পুলিশ বাদী হয়ে লালবাগ থানায় মামলা দায়ের করে এবং ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ওই দিনই মো. মনির হোসেন নামে এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়। গ্রেফতারের সময় মামলার নথিতে মনির হোসেনের বয়স দেখানো হয় ১৮ বছর এবং তার পিতার নাম উল্লেখ করা হয় আবদুল বারেক। এ ছাড়া তার অস্থায়ী ঠিকানা লালবাগ হলেও স্থায়ী ঠিকানা উল্লেখ করা হয় মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর থানার আলমপুর গ্রাম। নথি সূত্রে জানা গেছে, আসামি মনির হোসেনকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের পর আদালতে উপস্থাপন করা হলে তাকে জামিন দেন আদালত। এরপর থেকেই মনির হোসেন পলাতক।

আসামি মনির হোসেনের অনুপস্থিতেই ২০০৬ সালের ২ আগস্ট রায় দেন ঢাকার মেট্রোপলিটন বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-৮। রায়ে মনির হোসেনকে তিন বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এরপর চলতি বছরের ২২ এপ্রিল হঠাৎ করেই মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর থানা পুলিশ সিরাজদীখান উপজেলার কুচিয়ামারা এলাকা থেকে মনিরুজ্জামান মনির নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে। যার পিতার নাম মৌলভী আবদুল বারী। পরে তাকে লালবাগের বোমা বিস্ফোরণ মামলার আসামি মনির হোসেন উল্লেখ করে মুন্সীগঞ্জ জেলা আদালতে হাজির করা হয়। ওই আদালত মনিরুজ্জামানকে কারাগারে পাঠান। কারাগারে থাকা অবস্থায় মনিরুজ্জামান মুন্সীগঞ্জ চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত এবং পরে মামলার রায় প্রদানকারী মেট্রোপলিটন বিশেষ ট্রাইব্যুনালে জামিন চেয়ে আবেদন করেন। কিন্তু সব আদালতেই তার জামিন নামঞ্জুর করা হয়। পরে বয়সের ব্যবধান উল্লেখ করে আসামি মনির হোসেনকে খুঁজে বের করতে আদালতে একটি আবেদন করা হয়। ওই আবেদনে মেট্রোপলিটন বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-৮ ঘটনা তদন্তের নির্দেশ দেন।

লালবাগ থানার উপ-পরিদর্শক আহসান হাবিব বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করেন। প্রতিবেদনে বলা হয়, পলাতক মো. মনির হোসেন এবং গ্রেফতার মনিরুজ্জামানের বয়সের পার্থক্য রয়েছে। কিন্তু এরপরও মনিরুজ্জামানকে মুক্তি না দেওয়া হলে পুরো বিষয়টি চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন তার স্ত্রী সুফিয়া আক্তার। গত ২ নভেম্বর হাইকোর্ট একই বেঞ্চ মনিরুজ্জামান মনিরের মুক্তি দেওয়ার বিষয়ে রুল জারি করেন। পাশাপাশি ঘটনা তদন্ত করে একটি প্রতিবেদন দাখিলেরও নির্দেশ দেন। এ ছাড়া মনিরুজ্জামান মনিরকেও আদালতে হাজির করতে বলা হয় একই আদেশে। এরপর কয়েক দফা শুনানির পর গতকাল মনিরুজ্জামানকে আদালতে হাজির করা হয়।

শুনানিতে এক পর্যায়ে আদালত বলেন, আপনারা সবাই দেখুন এ লোকটির বয়স কি ৩০ বছর? নাকি ৫৫ বছর। পরে আদালত বলেন, আমরা তাকে এখান থেকেই ছেড়ে দিচ্ছি। মনিরুজ্জামানকে উদ্দেশ করে আদালত বলেন, আপনি এখান থেকেই সরাসরি বাড়ি চলে যাবেন।

আবু সালেহ রনি
সমকাল

Leave a Reply