সিংগাপুরে নিহত সুমনের দাফন টঙ্গীবাড়ীর হাসাইলে সম্পন্ন

সিংগাপুরে নিহত সুমন মোল্লার দাফন বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় টঙ্গীবাড়ীতে সম্পন্ন হয়েছে। হাসাইল কেন্দ্রিয় জামে মসজিদে জানাজা শেষে তাকে হাসাইল কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এর আগে বুধবার রাত ১১টায় তার লাশ হাসাইল গ্রামের নিজ বাড়িতে আনা হলে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের সুচনা হয়। হাজার হাজার নাড়ি পুরুষ নিহতের বাড়িতে ভিড় জমায়। গত ১৫ ডিসেম্বর দুপুরে সিংগাপুরে নিজ র্কমস্থলের ওয়ার্কশপের এ্যাংগেলের সাথে গলাঁয় ফাস দিয়ে আত্মহত্যা করে সে।

জানাগেছে, উপজেলার হাসাইল গ্রামের মো. ইলিয়াস মোল্লার ছেলে সুমন মোল্লা (২৫) দেড় বছর পূর্বে চাকুরী নিয়ে সিংগাপুরে যান। এর পর হতেই টাকা পয়সা পাঠানো নিয়ে সুমনের সাথে স্ত্রী সাথী এর ঝগড়া বিবাদ চলে আসছিলো। সুমনের বাবা ইলিয়াস মোল্লা জানান, গত ৯ মাস ধরে বৌয়ের কাছেই টাকা পাঠাতো সুমন। আমি কিছু দিন আগে আলু চাষাবাদের জন্য টাকা চাইলে সে আমাকে ৪৬ হাজার টাকা দেয়। এনিয়ে বৌয়ের সাথে তার মন মালিন্য চলছিলো। ঘটনার দিন ১৫ ডিসেম্বর দুপুর ১২টার দিকে সুমন সাথির মোবাইলে ভিডিও কল করে। এর সময় সাথি তার ভাইকে বিদেশ পাঠানোর জন্য সুমনের কাছে ১ লক্ষ টাকা চায়।

সুমন জানায়, প্রতি মাসে আয় করা টাকাতো আমি তোমার কাছেই পাঠিয়ে দেই আমি এখোন ১লক্ষ টাকা কোথায় পাবো। এ সময় আমার কাছে ৪৬ হাজার টাকা পাঠানো নিয়ে দু-জনের কথোপকোতন হয়। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সাথি জানায়, টাকা পাঠাইতে না পারলে তুই গলায় ফাসঁ দিয়ে মরতে পারোনা। এ সময় সুমন রাগে ক্ষোভে ভিডিও কল করা অবস্থায় সাথীকে বলে তুমি দেখ আমি কেমনে গলায়ঁ ফাঁস দিয়ে মরি বলে নিজ কর্মস্থলের ওয়ার্কসপের এংগেলের সাথে গলায় ফাসঁ দিয়ে আতœহত্যা করে। এদিকে সাথি ডিডিও কলে চেয়ে চেয়ে দেখে গলায়ঁ ফাস লাগার পর হাত হতে মোবাইলটি পরে যায় সুমনের।

এ ঘটনায় হাসাইল এলাকায় তিব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে। এলাকাবাসী জানান, নিহত সুমনের স্ত্রী সাথী এলাকায় প্রভাবশালী বংশের মেয়ে হওয়ায় সব সময় শশুর, শাশুরী ও স্বামী পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নির্যাতন করতো। সাথি ও তার পরিবার সুমনের লক্ষ লক্ষ টাকা আতœসাৎ করেছে। সুমনের বাবা তাকে ৫ লক্ষ টাকা খরচ করে বিদেশ পাঠিয়েছে আর মাত্র ৪৬ হাজার টাকা তাকে দেওয়ায় আজ তার লাশ হতে হলো। এ ব্যাপারে একাধিকবার সাথির সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

বিক্রমপুর চিত্র

Leave a Reply