মাওয়া ঘাটে পদ্মার রুপালি রানী

হাবিবুল্লাহ ফাহাদ: ‘তো দাদা, পদ্মার পাড়ে গিয়েছেন কিন্তু রুপালি রানীর গল্প বলবেন না তা কি হয়? বলুন না কেমন খেলেন, খুব তেলতেলে ছিল নিশ্চয়ই? আহ্! কত্তদিন চোখে পড়ে না বিশাল বপুর ইলিশ। সব কেমন হারিয়ে যাচ্ছে, তাই না?’

ইলিশ নিয়ে বাঙালির এমন হাপিত্যেস দিন দিন বাড়ছে। নদী আছে। কিন্তু আগের মতো সেই মাছ নেই। হারিয়ে যেতে বসেছে চকচকে বড় ইলিশ। মনে হতেই অনেকের ভেতরটা হু হু করে ওঠে। অনেকে স্মৃতি হাতড়ে দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বলেন, ‘আর কি তেলতেলে কোমল পেটির ইলিশ মিলবে কপালে। কত খেয়েছি। এখন তো ইলিশ হয়েছে হীরক খ-।’ তবে এখনো ইলিশের স্বাদ পুরোপুরি ভুলতে বসেনি বাঙালি। চাইলেই মেলে। বড়টাও মেলে। এজন্য টাকা একটু বেশি গুনতে হয়, এই আর কি।

এতক্ষণে ইলিশের স্বাদ নিতে কারো কারো জিভ হয়ত নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে। কাছে কোথায় মিলবে তেলে ভাজা গরম গরম ইলিশ? চলে যান পদ্মার পাড়ে। মুন্সিগঞ্জের মাওয়া ঘাটে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের আনাগোনা। যার মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি যান টাটকা ইলিশের স্বাদ নিতে। মাওয়া ঘাটের রেস্তোরাঁগুলো রাত-দিন সব সময়ই খোলা। অন্যরকম এক আয়োজন। রেস্তোরাঁর সামনে অ্যালুমিনিয়ামের থালায় টুকরো টুকরো ইলিশের ফুল সাজানো। শুকনো মরিচের সঙ্গে আছে ভাজা ইলিশও। কাঁচাও ভেজে দেবে যখন তখন। কিন্তু যারা একটু বেশি সৌখিন তাদের জন্য আছে আলাদা ব্যবস্থা। আস্ত ইলিশ কিনে রেস্তোরাঁয়ই কেটেকুটে কড়া তেলে ভেজে গরম গরম তুলে দেবে আপনার পাতে। সঙ্গে বেগুন, শুকনা মরিচ পোড়া তো থাকবেই।

মাওয়া ঘাটের রেস্তোরাঁর মালিক জামাল খান। এক দশকের বেশি সময় এখানে দোকান করছেন। বলছিলেন এখানকার ক্রেতাদের ভোজনবিলাসের কথা। ‘রাত নাই, দিন নাই সব সময়ই মানুষ এখানে আসে। ঢাকা থেকে প্রতিদিন শত শত মানুষ আসে শুধু ইলিশ ভাজা খাওয়ার জন্য। অন্য মাছও চলে। তবে ইলিশের কোনো বিকল্প নাই।’

ভরদুপুরে হঠাৎ নাকে ইলিশের গন্ধ লাগছিল ইমতিয়াজের। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়–য়া এই তরুণ মুহূর্তেই বন্ধুদেরও রাজি করালেন। চার বন্ধু মিলে মাওয়া গেছেন ইলিশ খেতে। জানতে চাইলে বলেন, ‘প্রায়ই এখানে আসি। আসলে হলে থাকতে থাকতে অনেক সুস্বাদু খাবারের স্বাদ ভুলতে বসেছি। এখানে এলে মায়ের হাতের ইলিশ ভাজার কথা মনে পড়ে। খেতে খারাপ লাগে না। কিন্তু দামটা একটু বেশি।’

হ্যাঁ দামের এই আপত্তি ইমতিয়াজের নয়, অনেকেরই। মানুষ বুঝে এক টুকরো মাছ ১০০ টাকায়ও বিক্রি হয় এখানে। তবে একটু বুদ্ধিমান হলে দরদাম তো আপনার হাতে। অবশ্য নিয়মিত যারা মওয়া ঘাটে যান, তাদের সবই আয়ত্তে।

শুধু ভাজা ইলিশের স্বাদ নয়, তাজা ইলিশের স্বাদ নিতেও অনেকে হানা দেন মাওয়া ঘাটে। এখানে তাজা ইলিশ, নদীর পাঙ্গাস, চিংড়িসহ অনেক মাছ মেলে। তবে সমস্যা ওই একটাই, দাম একটু বেশি। কী কারণে দাম বেশি? জবাবে মাছ বিক্রেতা হারুন মিয়া জানান, পদ্মা থেকে তোলার সঙ্গে সঙ্গেই মাছ চলে যায় ঢাকায়। অনেক মাছ একসঙ্গে ঢাকায় পাঠায় জেলেরা। এখানে বিক্রির জন্য তাদের কাছ থেকে একটু বেশি দামেই কিনতে হয়। বেচতে হয় বেশি দামে।

তবে ছোট ডিঙিতে করে জেলেরা মাছ ধরে ঘাটে ভিড়লে সেখান থেকে তুলনামূলক কম দামে মিলতে পারে তাজা মাছ। অবশ্য তাজা মাছের জন্য একটু অতিরিক্ত টাকা গুনতে গেলে খুব একটা কষ্ট হয় না ক্রেতাদের। তাই বলছিলেন বজলুর রহমান। মধ্যবয়সী এই মানুষটি ঢাকা থেকে প্রায়ই মাওয়া যান তাজা মাছের গন্ধ নিতে। ‘তাজা’ বলে কথা। এখন তো তাজা রাখতে মাছে দেওয়া হয় বিভিন্ন ধরনের রাসায়নিক দ্রব্য, যা মানুষের শরীরের জন্য বিষ। বিষমুক্ত খাবারের স্বাদ নিতে তো একটু বাড়তি খরচ হবেই। সেই চিন্তা করে কী লাভ বলুন?

উত্তাল পদ্মা পাড়ি দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ দক্ষিণাঞ্চলে যায়। কেউ ফেরিতে, কেউ ছোট লঞ্চে, চটজলদি যেতে কারো পছন্দ স্পিডবোট। তবে স্পিডবোট কিংবা লঞ্চে উত্তাল পদ্মা পাড়ি দেওয়া কম কথা নয়। ‘জীবনটা হাতে নিয়েই পদ্মা পাড়ি দেই। দরিয়া পাড়ি দিলেই বাড়ি। কবে যে হবে পদ্মাসেতু। সেদিন কষ্ট কমবে’ বলছিলেন জামান মিয়া।

লঞ্চের সারেং ফজলুল হক দিলেন রোমাঞ্চকর আরও তথ্য। বলেন, ‘আসলে স্টিয়ারিং হাতে থাকলেও জাহাজের নিয়ন্ত্রণ মাঝেমধ্যে হারাইয়া ফেলি। তখন মনে মনে আল্লাহরে ডাকি। পদ্মার ঢেউয়ের লগে বাড়াবাড়ি চলে না। ঢেউ যেই কূলে নেবে, হেদিকেই যাইতে হইবে। এই যে পদ্মার কঠিন খেলা।’

কদিন আগে মাওয়া থেকে ছেড়ে যাওয়া পিনাক-৬ লঞ্চটি ডুবে যেতে দেখেছেন আমির আলী। এখনো স্মৃতি জ্বলজ্বলে। ‘চোখের সামনে ডুবতে দেখছি। শত শত মানুষ লইয়্যা ডুইবা গেল পিনাক। সেই যে ডুবলো আর খুঁইজ্যা পাওন গেল না। হেদিন সবাই কইছিল আরেকটু দেরি কইরা লঞ্চটা ছাড়তে। পদ্মায় বেশুমার ঢেউ আছিল সেদিন। কিন্তু সারেং কতা শুনে নাই’ বলেন তিনি।

এবার ইলিশ নিয়ে প্রতারণার কথায় আসা যাক। অভিযোগ আছে, পদ্মার পাড়ে পদ্মার ইলিশ বলে বিক্রি করা বেশির ভাগ ইলিশই নাকি ঢাকা ও এর আশপাশের বাজার থেকে কেনা হয়। যেগুলোর কোনোটাই পদ্মার নয়। ওখানে ইলিশ খেতে আসা একজনের মুখেই শোনা গেল এই কেচ্ছা। মুন্সিগঞ্জের বাসিন্দা সুব্রত ম-ল জানান, এখানে পদ্মার ইলিশ বলে যেগুলো বিক্রি হয় সেগুলো বরিশালের ছোটখাটো নদী থেকে ধরা। পদ্মার ইলিশের অনেক দাম। তাই ধরার সঙ্গে সঙ্গে এগুলো চলে যায় ঢাকার আড়তে। সেখান থেকে ভারতে।

ইলিশ নিয়ে প্রতারণার অভিযোগ থাকলেও ভোজনরসিকদের মধ্যে এ নিয়ে এতটুকু চিন্তা নেই। ‘ইলিশ তো তাই না। হতে পারে পদ্মার নয়। কিন্তু তাই বলে পদ্মার ইলিশের সঙ্গে স্বাদে খুব বেশি তফাত তাও তো নয়। আর যারা পদ্মার ইলিশ বলে বিক্রি করছেন এটা তাদের কৌশল। পদ্মার ইলিশ শুনেই তো আমাদের সান্ত¦না, হা…হা…হা।’ এ স্বীকারোক্তি ইলিশপ্রেমী তানিয়া মির্জার। তিনি পেশায় আইনজীবী। বাচ্চাদের নিয়ে প্রায়ই আসেন ইলিশের সোঁদা গন্ধ নাকে নিতে।

তো মাওয়া যাওয়ার জন্য এখনই যারা জায়জোগাড় সারছেন তাদের জন্য সোজা রাস্তা গুলিস্তান। সেখান থেকে মাওয়াগামী বেশ কিছু যাত্রী পরিবহন আছে। সুবিধা বুঝে একটিতে চড়ে বসলেই পৌঁছে যাবেন পদ্মার পাড়ে।

এই সময়

Leave a Reply