মেঘনার সোনারগাঁ-মুন্সীগঞ্জ-গজারিয়া এলাকায় চলাচলে ভয়

মেঘনার সোনারগাঁ-মুন্সীগঞ্জ-গজারিয়া এলাকা দিয়ে চলাচলকারী বালুবাহী বাল্কহেড ও ইঞ্জিনচালিত নৌযানের শ্রমিক-কর্মচারীরা সন্ত্রাসীদের ভয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। স্থানীয় দুটি ইজারাদার গ্রুপ নানাভাবে তাদের হয়রানি করছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

এ এলাকায় নদীপথে বালুবাহী বাল্কহেড থেকে চাঁদা আদায়কারী দুটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে দ্বন্দ্ব বিদ্যমান রয়েছে। আর ইজারাদার প্রতিষ্ঠান দুটির দ্বন্দ্বের জের ধরেই এসব এলাকা দিয়ে চলাচলকারী নৌযান ও শ্রমিক-কর্মচারীদের ওপর বিভিন্ন সময় নেমে আসে অমানুষিক নির্যাতন। এভাবেই দিনের পর দিন তারা তা সহ্য করে যাচ্ছে নির্যাতন। তবে নৌযান শ্রমিকদের ওপর নির্যাতন বন্ধের ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ কার্গো ট্রলার বাল্কহেড ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের নেতারা।

নারায়ণগঞ্জের পাগলার বাংলাদেশ কার্গো ট্রলার বাল্কহেড ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম জানিয়েছেন, নৌশ্রমিকদের ওপর হামলা-নির্যাতন বন্ধে প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিদের কাছে লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। প্রশাসন এ ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা না নিলে নৌ ধর্মঘটসহ নানা আন্দোলন কর্মসূচি হাতে নেওয়া হবে।

মেঘনা নদীর ত্রি-মোহনা হিসেবে পরিচিত সোনারগাঁ-মুন্সীগঞ্জ-গজারিয়া এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে চলছে নানা ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। একের পর এক সন্ত্রাসী হামলা ও মারধরের ঘটনায় নৌশ্রমিকরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। এ ব্যাপারে প্রশাসনকে একাধিকবার জানানো হয়েছে। তবে স্থানীয় বালুমহালের দুটি ইজারাদার প্রতিষ্ঠানের দ্বন্দ্বের জের ধরে নৌশ্রমিকদের ওপর হামলা চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ বাংলাদেশ কার্গো ট্রলার বাল্কহেড ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের নেতাদের।

শ্রমিকদের অভিযোগ, ইদানীং চিকন বালু আনতে গিয়ে চাঁদনী ট্রেডার্সের লোকজনের হামলার শিকার হয়েছে এমভি আজিজুল হাকিমের সুকানি পারভেজ, এমভি রোমান-৩-এর সুকানি সহিদ, এমভি নাছিরাবাদ-১-এর সুকানি আবদুল খালেক, এমভি সাঈদের সুকানি সগির, এমভি রাতুল আবিদ নৌযানের সুকানি জলিল, এমভি কেআই নৌযানের সুকানি তোতা মিয়া, এমবি নাছিরাবাদ-২-এর সুকানি জাফর। এ সময় মারধর করে তাদের টাকাপয়সা নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।

এদিকে নৌযান শ্রমিকদের ওপর হামলা বন্ধে ইতিমধ্যে নৌপুলিশের ডিআইজি, নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার, নারায়ণগঞ্জ সদর, ফতুল্লা, সোনারগাঁ, গজারিয়া ও মুন্সীগঞ্জ থানার ওসির কাছে সহযোগিতা চেয়েও পাওয়া যায়নি। তাই হতাশ শ্রমিকরা নৌযান চালানো থেকে বিরত থাকছে। নৌযান শ্রমিকদের ওপর হামলা বন্ধে প্রশাসনিক পদক্ষেপ দাবি করেছে বাংলাদেশ কার্গো ট্রলার বাল্কহেড ওয়ার্কার্স ইউনিয়ন। শিগগিরই এ ব্যাপারে প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা না নিলে নৌধর্মঘটসহ নানা কর্মসূচি হাতে নেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদল জানান, বালু উত্তোলনে কোনো অনিয়মই বরদাশত করা হবে না। সেই লক্ষ্যে নিয়মিত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাসহ কোস্টগার্ড ও নৌপুলিশ কাজ করছে। শ্রমিকদের কোনো সমস্যাসহ নদীপথের অরাজকতা বন্ধে নানামুখী প্রচেষ্টা চলছে।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি আবুল খায়ের ফকির জানান, বালু উত্তোলন নিয়ে কিছু সমস্যা আছে। এসব বিষয়ে পুলিশ সতর্ক রয়েছে। নৌটহলও বাড়ানো হয়েছে। এ ছাড়া বালু উত্তোলনে দুই পক্ষের বিবাদ মেটানো নিয়েও কাজ চলছে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply