প্রয়াত চাষী নজরুল : কিছু স্মৃতি কিছু কথা

বয়সে বাবার বয়সী। সম্পর্কটা সমবয়সী বন্ধুর মতো। সদা হাস্যোজ্জ্বল মুখ, প্রাণবন্ত কথা। ভাই বলেই ডাকতাম, আমাকেও ছোট ভাইয়ের মতোই আদর করতেন। সেই মানুষটি আর কেউ নন, আমাদের সবাইকে ছেড়ে অজানার দেশে চলে যাওয়া বাংলার কিংবদন্তি চলচ্চিত্র পরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা চাষী নজরুল ইসলাম। তাঁর সাথে আমার সম্পর্কটা খুব বেশী দিনের না হলেও তাঁকে নিয়ে আজ অনেক স্মৃতিই মনে পড়ছে।

সদা হাস্যোজ্জ্বল প্রাণবন্ত মানুষটির এভাবে দ্রুত চলে যাওয়ার ঘটনায় বারবার মনে পড়ছে কথা সাহিত্যিক তারা শঙ্করের সেই অমর উক্তি, “জীবন এত ছোট কেন?”
ঠিক কখন থেকে তাঁর সাথে পরিচিত হয়ে উঠেছি তা আজ স্মৃতিতে নেই। তবে বলতে পারি টেলিভিশনের পর্দা আর বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে চাষী নজরুল ও তাঁর কর্মের সাথে আমার পরিচয় সেই ছোটবেলা থেকেই। তবে একান্ত ঘরোয়া পরিবেশে প্রথম দেখা ২০১২ সালের মে মাসে। বলা যায়- অনেকটা কাকতালীয়ভাবেই তাঁর সাথে আমার ব্যক্তিগত পরিচয় ও সুসম্পর্ক। আমি তখন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে পিএইচডি গবেষণার কাজ করছিলাম। পাশাপাশি স্বেচ্ছাসেবী কর্মী হিসেবে একটি মানবাধিকার সংগঠনের সাথেও জড়িত ছিলাম। সম্ভবত তিনি ব্যারিস্টার অ্যাড. সিগমা হুদার পরিচালনায় বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার নির্বাহী কমিটির সদস্য ছিলেন। ওই সংস্থার কাজেই রাজশাহী পরে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে গিয়েছিলেন।

আর সেই সুবাদেই হঠাৎ রাজশাহীর প্রবীণ আইনজীবী ও মানবাধিকার কর্মী আবুল কাসেম সাহেব ১৫ মে সকালে আমাকে ফোন দিয়ে জানালেন, চাষী নজরুল ইসলাম রাজশাহীতে এসেছেন, তিনি রাজশাহীর মানবাধিকার কর্মী ও পেশাজীবীদের সাথে কথা বলতে আগ্রহী। ঠিক হলো- সন্ধ্যার পর আমার অফিসেই বসবেন। আমিও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষক ও পেশাজীবীদের ফোনে আসার অনুরোধ জানালাম। চাষী নজরুল ইসলামের কথা শুনে সন্ধ্যার পরপরই শিক্ষক, আইনজীবী ও চিকিৎসকসহ বিভিন্ন পেশাজীবীরা আসলেন। সেদিন চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে চাষী ভাইয়ের মানবাধিকার সংস্থার পূর্বনির্ধারিত প্রোগাম ছিল। সেখান থেকে আসতে রাত ৮টার বেজে গেল। একটু দেরী হওয়ায় সবার সাথে হাত মিলিয়ে তিনি ক্ষমা চাইলেন।

এরপর রাত প্রায় সাড়ে ১০টা পর্যন্ত দেশের রাজনীতি, অর্থনীতি ও সংস্কৃতি তথা সার্বিক বিষয়ে পরস্পর আলোচনা করলেন। মাঝে মধ্যে প্রাণোজ্জ্বল হাসি। দেশ-জাতি আর বিশ্ব পরিস্থিতি নিয়ে তাঁর প্রাণবন্ত বুদ্ধিদীপ্ত আলোচনায় আমরা সবাই মুগ্ধ হলাম।সেদিনকার আলোচনায় ফুঁটে উঠেছিল দেশ-জাতির প্রতি তাঁর অগাদ ভালোবাসার কথা।
এরপর সবার কাছ থেকে বিদায় নিলেন। আমি আর কথা সাহিত্যিক ডা. নাজিব ওয়াদুদ তাঁকে নিয়ে অ্যাড. আবুল কাশেম সাহেবের বাসায় রাতের খাবার খেলাম। সেখানেও দীর্ঘ সময় কথা হলো। পরদিন আমরা তাঁকে বিদায় দিলাম। এরপর থেকেই তিনি যতবারই রাজশাহী অঞ্চলে যেতেন আগেই আমাকে ফোন করে জানাতেন। তাঁর সাথে আমার নিয়মিতই ফোনে যোগাযোগ হতো। প্রথম সাক্ষাতেই মনে হয়েছিল তাঁর সাথে যেন আমার অনেক দিনের পরিচয়।

আজ বারবার স্মরণে পড়ছে। সেই ২০১৩ সালের শেষ দিকে কোনো একটি সাংস্কৃতিক উৎসব অনুষ্ঠান উদ্বোধন করতে রাজশাহী গিয়েছিলেন, সাথে কণ্ঠ শিল্পী মনির খান ও রিজিয়া পারভীনও ছিলেন। আমি তখন রাজশাহীতেই ছিলাম, রাজশাহী পৌঁছেই তিনি আমাকে হোটেল নাইসে ঢেকে পাঠালেন। বিকাল ৪টার দিকে একজন ব্যবসায়ীকে সাথে নিয়ে সরাসরি তাঁর রুমে গেলাম, তিনি রুমের দরজা খুলেই বুকে জড়িয়ে ধরে কুশলবিনিময় করলেন। আমাদের বসতে দিলেন, চা-মিষ্টি দিয়ে আপ্যায়ন করালেন। পরে সেখানে আমাদের সাথে যোগদিলেন রিজিয়া পারভীন ও সাংস্কৃতিককর্মী মামুনসহ আরো অনেকে। দীর্ঘসময় রসালো গল্প আর এর ফাঁকে রিজিয়া পারভীনের কণ্ঠে দেশাত্মাবোধক আর আধুনিক গান। সবমিলেই তাঁর সাথে সেদিনটাও কেটেছিলো বেশ আনন্দে।

শয্যাশায়ী হবার পরও ফোনে তাঁর সাথে আমার অনেকবার কথা হয়, ফোন রিসিপ করে তিনি শুধু বলতেন- সরদার আনিছ আমার জন্য দোয়া কর। আমার শারীরিক অবস্থা বেশী একটা ভালো না। সুস্থ হয়ে বিস্তারিত কথা হবে। তিনি হাসপাতালে ভর্তি হলে বেশ কয়েকবার দেখতে গিয়েছি। এত অসুস্থ থেকেও আমার সঙ্গে আগের মতোই হেসে কথা বলেছেন। অনেকের খোঁজ নিয়েছেন। কোনো ভাবেই বুঝতে দেননি কতটা কষ্ট হচ্ছে তাঁর।

এইতো গত ২৫ অক্টোবরও জাতীয় প্রেসক্লাবের মিলনায়তনে ভাষাসৈনিক অলি আহাদের মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনায় চাষী নজরুল ইসলাম তার সুললিত কণ্ঠে স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখলেন। কিন্তু এত তাড়াতাড়ি তাকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করতে হবে এমনটি কখনো ভাবিনি। আজ মনে হচ্ছে যেন আমার পরম আপনজনকে হারিয়ে ফেলছি। পরিবারের আপনজনদের সাথে যেমন করে নিজের সুখ-দুঃখের কথা শেয়ার করে থাকি, তেমনি তাঁর সাথেও করতাম। প্রসঙ্গত: পিএইচডি ডিগ্রী লাভের পর ঢাকায় এসেই ব্যক্তিগত একটি বিষয়ে অনেকটা বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে যাই। তখন আমি সরাসরি তাঁর কাছে গেলাম, তিনি দীর্ঘ সময় ধরে মনোযোগ দিয়ে আমার কথা শুনলেন এবং প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিলেন। সেসময়কার তাঁর সুপরামর্শের কথা জীবনে কখনো ভুলে যাবার মতো নয়। তাই তাঁর প্রতি আমার ভিন্ন এক শ্রদ্ধাবোধ। আমি তাঁকে অভিভাবক মানতাম। যেকোনো বিষয়ে তাঁর সঙ্গে আলোচনা করতাম। তিনি সমাধানও দিতেন।

ফলে একথা আমি জোর গলায় বলতে পারি- চাষী ভাইয়ের মতো মজার মানুষ খুব কমই দেখেছি। তিনি কী খাবার টেবিলে, কী আলোচনার টেবিলে সবাইকে মাতিয়ে রাখতেন। তাঁর কণ্ঠ মানেই মাইক। তিনি ধীরে কথা বললেও মনে হতো জোরে কথা বলছেন। মনে আছে, রাজশাহীতে একবার হোটেল নাইসের কনফারেন্স রুমে অনুষ্ঠান চলছিল, সেখানে সবাই সাউন্ডসিস্টেমের সহযোগিতায় কথা বললেন একমাত্র চাষী ভাইকে বাদে।

চাষী নজরুল ইসলাম ও তাঁর কর্মকে তাঁর সহকর্মীরাই হয়তো বেশী মূল্যায়ন করতে পারবেন। তবে একজন সাধারণ মানুষ হিসেবে বলতে পারি- স্বাধীন বাংলায় চলচ্চিত্র জগতের পাশাপাশি তিনি ছিলেন আমাদের সমাজের একটি উজ্জ্বল নক্ষত্র ও অভিভাবক। তিনি ছিলেন ক্ষণজন্ম সৃজনশীল প্রাণপুরুষ। সেই সৃজনশীল কর্মের মাধ্যমেই তিনি মানুষের মাঝে চিরঞ্জীব থাকবেন। যত দিন বাংলাদেশ থাকবে তত দিন বাঙালি জাতি বীর মুক্তিযোদ্ধা চাষী নজরুলকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে। স্বাধীন বাংলার প্রথম মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র ‘ওরা ১১ জন’-এর পরিচালক তিনি। এর চেয়ে বড় পরিচয় আর কী হতে পারে!

দিনে দিনে আমরা একেক করে জাতির গর্বিত সন্তানদের হারাচ্ছি। একজন হারানোর শোক না কাটতেই আরেকজন পরপাড়ের যাত্রী হচ্ছেন। এভাবে আমরা অল্প সময়ের ব্যবধানে সাংবাদিক আতাউস সামাদ, এবিএম মূসা, সাহিত্যিক হুমায়ুন আজাদ, কবি শামসুর রহমান, কথা সাহিত্যিক হুমায়ুন আহমেদ, তাঁর গর্বিত মা আয়েশা ফয়েজ, ভাষা সৈনিক আব্দুল মতিন তথা ভাষা মতিন, ড. পিয়াস করিম, বিচারপতি মোস্তফা কামালসহ বেশ কয়েকজন গুণীজনকে হারালাম। এবার আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন বাঙালী জাতির গর্বিত সন্তান বিশিষ্ট চলচ্চিত্র পরিচালক চাষী নজরুল ইসলাম। দেশ স্বাধীনের পর চাষী নজরুল ইসলামের মতো একজন সৃজনশীল চলচ্চিত্র পরিচালক পাওয়া বাংলাদেশের জন্য ছিল পরম সৌভাগ্যের যা তাঁর সহকর্মীদের কণ্ঠেই ফুটে উঠেছে। গোটা জাতিকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে তিনি আজ চলে গেলেন এক অজানার দেশে।

তিনি যে কত বড় মাপের মানুষ ছিলেন, মৃত্যুর পর দলমত নির্বিশেষে হাসপাতাল, এফডিসি ও বাসায় তাঁর মরদেহের পাশে হাজারো মানুষের উপস্থিতি ও তাঁর জানাযায় অংশ গ্রহণই প্রমাণ করে।

ফলে জাতি আজ হারালো একজন অভিভাবককে, হারালো এক গর্বিত সন্তানকে। যিনি জাতির এক আলোকবর্তিকা হিসেবে ছিলেন। জাতি গঠনে বিশেষ করে মহান মুক্তিযুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে জীবনবাজি রেখে তিনি যে অবদান রেখে গেছেন তা আমরা কোনো ভাবেই শোধ করতে পারবো না। এছাড়া সৃজনশীল প্রতিভায় রুচিশীল চলচ্চিত্র নির্মাণের মাধ্যমে বিভিন্ন বিষয়ে জাতিকে দিয়ে গেছেন অনেক দিক নির্দেশনা।

আজীবন তিনি সত্য ও ন্যায়ের পথে সংগ্রাম করে গেছেন। সাধারণ মানুষের অধিকার রক্ষায় এবং শাসকগোষ্ঠীর অন্যায়-অবিচারের বিরুদ্ধেও তিনি ছিলেন সর্বদা সোচ্ছার ও এক লড়াকু সৈনিক। তিনি ছিলেন ক্ষণজন্মা এক পুরুষ।

তাঁর মৃত্যুতে জাতির যে অপূরণীয় ক্ষতি হলো তা কোনো ভাবেই পূরণ হবার নয়। তাঁর সব অবদানের কথা জাতি সর্বদা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে বলেই আমার প্রত্যাশা। সেই সাথে তাঁর জীবন ও কর্ম ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে অনুকরণীয় ও পাথেয় হয়ে থাকবে।

এ জন্য তাঁর সব স্মৃতি ও কর্মকে যথাযথভাবে সংরক্ষণে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানাচ্ছি। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলে আশা করি ।

সবশেষে মরহুমের শোক সন্তপ্ত পরিবার-আত্মীয়স্বজন ও অসংখ্য গুণগ্রাহীর প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ এবং মরহুমের আত্মার শান্তি কামনা করে এখানেই শেষ করছি। মহান আল্লাহ তাকে সর্বোচ্চ প্রতিদান দান করুন। আমিন।

ড. সরদার এম. আনিছুর রহমান
লেখক: শিক্ষা ও সমাজ বিষয়ক গবেষক।ই-মেইল: sarderanis@gmail.com

বেঙ্গলিনিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply