টানা হরতাল ও অবরোধে শাক-সবজি নিয়ে কৃষকরা চরম বিপাকে

শেখ মো. রতন: টানা হরতাল ও অবরোধের কারণে শাক-সবজি জেলা হিসেবে খ্যাত মুন্সীগঞ্জে শীতকালীন শাক-সবজি ও তরি-তরকারি বিকিকিনি টালমাটাল হয়ে পড়েছে। শীতের শুরুতে উৎপাদিত ফসলের বেশ ভালোই দরদাম পেয়েছে কৃষক।

তবে চলমান হরতাল-অবরোধের কারণে পরিবহন সঙ্কটে উৎপাদিত শীতকালীন শাক-সবজি ও তরি-তরকারি বাজারজাত করতে গিয়ে বিপাকে পড়েছে কৃষককুল।
এ প্রসঙ্গে, জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপপরিচালক কাজী আব্দুল আজিজ জানান, বিগত বছরের চাইতে এবার শীতকালীন শাক-সবজি ও তরি-তরকারির আবাদ বাড়লেও হরতাল-অবরোধে কৃষকরা তাদের ন্যায্য দাম পাচ্ছে না।

তিনি জানান, বিদায়ী বছরের শেষ দিকে ১ টি ফুলকপি পাইকারী বিক্রি হতো ২০ টাকায়। এখন সেই ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে পানির দরে। বর্তমানে একেকটি ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ৮ টাকা থেকে ১০ টাকায়।

তৎকালীন বিক্রমপুরের রাজধানী রামপালের কৃষক আব্দুর রাজ্জাক জানান, বর্তমানে এক জোড়া (২টি) বাধা কপি বিক্রি হচ্ছে মাত্র ৮ টাকা থেকে ১০ টাকায়। কিছু দিন আগেও ১ টি বাধা কপিই বিক্রি হয়েছে ১০ টাকা থেকে ১২ টাকায়।

আলু আবাদে দেশের বৃহত্তম অঞ্চল মুন্সীগঞ্জে এখন আলুর দামও বেশ কম বলে দাবি করেন সদরের চরাঞ্চলের তাঁতিকান্দি গ্রামের কৃষক আক্তার মাহমুদ। তিনি জানান, বর্তমানে পাইকারী ১০ টাকা থেকে ১২ টাকা কেজি দরে আলু বিক্রি হচ্ছে।

১ কেজি করলা বিক্রি হচ্ছে মাত্র ১৪-১৫ টাকায়। অথচ কম করে হলেও ২০ টাকা কেজি দরে করলা বিক্রি করলে কৃষক লাভের মুখ দেখবে বলে রামপালের কৃষক জমির মিয়া দাবি করেন।

কৃষক স্বপন জানান, বর্তমানে ১ কেজি সিম ১৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। হরতাল-অবরোধের আগে ১ কেজি সিম বিক্রি ২৫ টাকায়। টানা হরতাল-অবরোধের কারণে মুন্সীগঞ্জ অঞ্চলের উৎপাদিত শীতকালীন সবজি বাজারজাত করতে না পারায় খুবই কম দামে স্থানীয় পর্যায়ে কেনা-বেঁচা চলছে।

বজ্রযোগিনীর কৃষক রমজান মিয়া জানান, ১ টি চাল কুমড়ো ৩০ থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি হত। বর্তমানে ১ টি চাল কুমড়া বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা থেকে ২৫ টাকায়। এমতাবস্থায় উৎপাদিত কৃষিপণ্যের কাংঙ্খিত দাম না পাওয়ায় কৃষককুল জমি থেকে তাদের উৎপাদিত শীতকালীন ফসল উত্তোলন করছে না।

মুন্সীগঞ্জ বার্তা

Leave a Reply