পদ্মা সেতু : প্রত্যাশিত পথেই আছে সেতুর নির্মাণকাজ

দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় নির্মাণ প্রকল্প পদ্মাসেতুর কাজ প্রত্যাশা অনুয়ায়ীই এগিয়ে চলেছে। মাটির পরীক্ষা, নদী খনন ও নদী শাসনের কাজ এগোচ্ছে দ্রুত গতিতে। বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের (বিবিএ) দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত বছরের নভেম্বর পর্যন্ত প্রকল্পের কাজ শতকরা ২৪ ভাগ বাস্তবায়িত হয়েছে। তবে মূল সেতু নির্মাণ কাজ বাস্তবায়িত হয়েছে ১৫ ভাগ। এর মধ্যে সেতু নির্মাণে বিশেষজ্ঞ ও ঠিকাদারসহ গুরুত্বপূর্ণ ছয়টি বিষয়ে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

সেতু কর্তৃপক্ষের মতে, মাওয়া পয়েন্ট অভিমুখী সংযোগ সড়কের কাজ ২৮ দশমিক ৫০ ভাগ এবং জিঞ্জিরা পয়েন্টে ২০ দশমিক ৫ ভাগ শেষ হয়েছে। সংযোগ সড়কের পাশে সার্ভিস এরিয়ার কাজও দ্রুত এগিয়ে চলছে।

এই প্রকল্পের সবচেয়ে আলোচিত মূল সেতুর অবকাঠামো নির্মাণ, নদী শাসন এবং বিশেষজ্ঞ নিয়োগের কাজ গত মাসে শুরু হয়েছে। অন্যান্য কাজও প্রত্যাশামতই এগিয়ে চলেছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, হেলমেট পরিহিত প্রকল্প কর্মকর্তারা সয়েল টেস্টি ও সংযোগ সড়ক নির্মাণের জন্য শ্রমিকদের নির্দেশনা দিচ্ছেন। কোমরভোগ গ্রামে এক বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে স্থাপন করা হয়েছে নির্মাণ ক্যাম্প। দু’টি মিক্সার মেশিন এবং অন্যান্য নির্মাণ সামগ্রী ওখানে রাখা হয়েছে। প্রায় পাঁচশ’ শ্রমিক কাজ করছে। শ্রমিকদের শরিয়তপুর জেলার জিঞ্জিরা পয়েন্টে এবং মাদারীপুরের শিবচর পয়েন্টেও কাজ করতে দেখা গেছে।

পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের পরিচালক শফিকুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ চার বছরের মাথায় অর্থাৎ ২০১৮ সালের মধ্যে পদ্মা সেতুর কাজ অবশ্যই শেষ হবে।’

দুই পাড়ের সংযোগ সড়ক নির্মাণ ও অন্যান্য অবকাঠামো নির্মাণের জন্য যৌথভাবে আব্দুল মোনেম লিমিটেড ও মালয়েশিয়ার হাইওয়ে কনস্ট্রাকশন ম্যানেজমেন্টকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

গত বছরের ১৭ জুন বাংলাদেশ সরকার চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানির (সিএমবিইসি) সঙ্গে মূল সেতুর প্রায় ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার নির্মাণ কাজের জন্য চুক্তি স্বাক্ষর করে। এরপর ১০ সেপ্টেম্বর আরেকটি চায়না কোম্পানি সিনোহাইড্রো কর্পোরেট লিমিটেডকে নদী শাসনের জন্য নিযুক্ত করা হয়। সিনোহাইড্রো ঢাকা- চট্টগ্রাম মহাসড়কের উন্নয়ন কাজে এবং সিএমবিইসি জয়দেবপুর- ময়মনসিংহ মহাসড়কের উন্নয়ন কাজে দেরি করার অভিযোগ রয়েছে।

সেতুর মূল অবকাঠামো কাজের জন্য ১২ হাজার ১৩৩ কোটি টাকা ও নদী শাসনের জন্য ৮ হাজার ৭০৭ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে। চুক্তি অনুযায়ী উভয় প্রকল্পই ৪ বছরের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় আরও প্রায় ৩৮৩ কোটি টাকার চুক্তি করেছে দক্ষিণ কোরিয়ান কোম্পানি কোরিয়ান এক্সপ্রেসওয়ে করপোরেশনের সঙ্গে মূল সেতুর কাজের দেখভাল এবং নদী শাসন কাজের পরামর্শক হিসেবে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকেও এই প্রকল্পের পরামর্শক হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছে।

দুর্নীতির অভিযোগ তুলে প্রকল্পে অর্থায়ন থেকে বিশ্ব ব্যাংক সরে গেলে সরকার নিজস্ব অর্থায়নে সেতু নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু চার বছর দেরি হওয়ায় প্রকল্পের খরচ বেড়েছে প্রায় ৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা।

কর্মকর্তারা জানান, ফেরি টার্মিনাল স্থানান্তর, নদী সুরক্ষা এবং নিরাপত্তা বিষয়সহ প্রকল্পের বর্তমান প্রাক্কলিত ব্যয় ২৫ হাজার কোটি টাকা।

বিবিএ’র তথ্য অনুসারে এরমধ্যেই চলতি অর্থ বছরে সরকার আট হাজার ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে এবং এ পর্যন্ত প্রায় ৬ হাজার কোটি টাকা ব্যয় করেছে।

বর্তমানে সাড়ে তিন হাজারেরও বেশি মানুষ সেতু তৈরির কাজে নিযুক্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে ৫০০ জন চীন থেকে এসেছেন বাকিরা বাংলাদেশি। দুইশ’রও বেশি চীনা প্রকৌশলী, কর্মকর্তা এবং শ্রমিক কাজ করছেন। জানুয়ারি, ফেব্রয়ারির মধ্যে আরও ছয় হাজার শ্রমিক এই প্রকল্পে কাজে যোগ দেবেন।

এই প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল কাদের জানান, মাটি পরীক্ষার কাজে চীনা প্রতিষ্ঠান কিছু যন্ত্রপাতি মাওয়া ঘাটে নিয়ে এসেছে আরও কিছু চট্টগ্রাম বন্দরে অপেক্ষা করছে। তিনি আরও জানান, জানুয়ারির মাঝামাঝিতে আরও কিছু আধুনিক যন্ত্রপাতি নির্মাণস্থলে এসে পৌঁছাবে।

কর্মকর্তারা জানান, পদ্মা সেতু নির্মাণ সরকারের অতিগুরুত্বপূর্ণ কাজের তালিকায় রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিয়মিত প্রকল্পের অগ্রগতির খবর নিচ্ছেন।

বাংলা ট্রিবিউন

Leave a Reply