ভবেরচরের আলীপুরা নয়াকান্দি সড়কের বেহাল দশা

জনভোগান্তি চরমে
মোয়াজ্জেম হোসেন জুয়েল: গজারিয়া উপজেলা ভবেরচর ইউনিয়নের প্রত্যন্ত গ্রাম আলীপুরা-নয়াকান্দি ঢাকা-চট্রোগ্রাম মহাসড়কের সংযোগ সড়কের বেহাল দশায় জনভোগান্তি চরম আকার ধারন করেছে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকাবাসী।ঢাকা-চট্রোগ্রাম মহাসড়কের সংযোগ আলীপুরা-নয়াকান্দি সড়কটি।

এই সড়কটি দিয়ে আলীপুরা, নয়াকান্দী, ভিটিকান্দী, লুটেরচর, শেখের গাঁ গ্রামের শত শত মানুষ ঢাকা –চট্রোগ্রাম মহাসড়কের সংযোগ থাকার কারনে নানান যায়গায় যাতায়াত করে থাকে। অধিকাংশ রাস্তাটি এমন হয়েছে যে রিক্সা চলাচলত দুরের কথা মানুষ পায়ে হেটে চলতেও কষ্টকর পরিস্থিতির শিকার হচ্ছে ্সোয়া কিলোমিটার দীর্ঘ এ সড়কটি দিয়ে। খুবই ব্যস্ততম সড়ক হলেও উন্নয়নের কোনো ছোয়া স্পর্শ করেনি।

অন্যদিকে, কৃষক মৌসুমি ফলন সময় মতো পরিবহনের কারনে হাটবাজারে পৌছাতে না পারায়।ফলে কৃষকের অনেক ফলন কম দামে জমিতেই বেচা হয়।বিভিন্নি স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসায় যাতায়তকারী ছাত্রছাত্রীরা জানান, আমাদের এই সোয়া কিলোমিটার সড়কটি পাকা না থাকার কারনে বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টিপাতে, অনেক যায়গায় গর্ত হয়েছে, রাস্তার পাশ ভেঙ্গে যাওয়ার কারনে কোন প্রকার রিক্সা চলেনা।

যার ফলে দূর্যগ এর সময় ও বৃষ্টিতে ভিজে পায়ে হেটে যাতায়ত করতে হয়।এসময় ক্ষোভের সাথে রোগীর আতœীয় জানান, আমি আমার মেয়েকে ঢাকা হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছি, ডাক্তার বলেছে সকাল ১০টায় থাকার জন্য, এখন বাজে ৮টা পায়ে হেটে বৃষ্টিতে ভিজে ভবেরচর বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে বাসে উঠতে হবে, কখন পৌছাবো জানিনা।রাস্তাটি আজ পাকা করণ থাকলে, আমরা এরকম বিড়ম্বনা পরতামনা।

সরেজমিনে দেখা যায়, ঢাকা-চট্রোগ্রাম মহাসড়কের সংযোগ উপ সড়ক আলীপুরা-নয়াকান্দী সড়কটি দুই পাশ ভেঙ্গে গেছে।সড়কের অর্ধেক জায়গায় ইট বিছিয়ে চলাচলের ব্যবস্থা করা হলেও অধিকাংশ স্থনে ইট উঠে গিয়ে সৃষ্টি হয়েছে গর্তে। ১৯৯৪ইং সালে ণির্মিত দীর্ঘ এই সোয়া কিলোমিটার রাস্তাটি এতই ঝুকিপূণ হয়ে পড়েছে যেকোন প্রকার যানবাহন অধিক ভাড়্ার বিনিময়ে ও সড়কটিতে আসতে রাজি হয়না গুরুত্বপূর্ন সড়কটি সংস্কার ও পাকাকরণের প্রয়োজনিয়তা উপলদ্ধ করে পদক্ষেপ নিতে দাবি জানাচ্ছে স্থানীয় জনগন।

গজারিয়া আলোড়ন

Leave a Reply