গজারিয়ায় শিল্প প্রতিষ্ঠানের উৎপাদন কমেছে ৫০%

টানা অবরোধ-হরতাল ও সহিংসতায়
মোঃ পিয়া সরকার: গত কয়েক মাসে দেশে অবরোধ হরতাল ও সহিংসতায় দেশের শিল্প কারখানা গুলোতে এর প্রভাব পরছে। দিন দিন এর প্রভাব আরও ব্যপক আকার ধারন করছে। গজারিয়ায় বিভিন্ন শিল্প কারখানা গুলো ঘুরে কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে যানা যায় হরতাল ও সহিংসতার কারনে তাদের উৎপাদন, আমদানি-রপ্তানি কমে গেছে ৫০-৭০%। গজারিয়া উপজেলায় ৮টি ইউনিয়নে ছোট বড় প্রায় ১০০ শিল্প প্রতিষ্ঠান থাকলেও সরকারী হিসেব এর সংখ্যা ৬৭টি।

এর মধ্য সবচে বেশি শিল্প প্রতিষ্ঠান হল বাউশিয়া ১৪টি, ভবেরচর ৮টি, বালুয়াকান্দি ১২টি এবং হোসেন্দী ইউনিয়নে ৮টি। দেশের নামি-দামি শিল্প প্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা টিস্যু, আরোয়ার সিমেন্ট, আনোয়ার জুট মিল, হামদর্দ, খান ব্রাদার্স, স্কয়ার কোং. লিঃ, আঃ মোনায়েম কোং লিঃ, নিউ হোপ এবং ওয়েলপ্যাক পলিমার লিঃ সহ আর অনেক প্রতিষ্ঠান। বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা যায় তারা বলেন জানুয়ারি মাসের শুরু থেকেই দেশে লাগাতার অবরোধের ডাকদেয় বিএনপি-জামায়তসহ ২০ দলীয় জোট।

টানা অবরোধের মাঝে বিভিন্ন জেলায় ৩৬ থেকে ৪৮ ঘন্টা হরতালের ডাকদেয়। তারা ভোরের ডাককে বলে লাগাতার অবরোধ-হরতালের কারণে শিল্প প্রতিষ্ঠান গুলো আমদানি রপ্তানি ব্যহত হয় যায় ফলে উৎপাদন ও কমে যায়। উৎপাদিত পন্য রপ্তানি বন্ধ থাকায় তাদের বাদ্য হয়ে উৎপাদন কমাতে হচ্ছে এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাচামাল আমদানির অভাবে উৎপাদন কমাতে হচ্ছে। এর ফলে শিল্পপ্রতিষ্ঠান গুলোতে উৎপাদন কমে গেছে ৫০-৭০%।

নিউ হোপের ম্যানেজার, আলী রেজা সাজেদ ভোরের ডাককে বলেন দেশে টানা অবরোধ-হরতাল ও সহিংসতার কারনে আমাদের সব ধরনে আমদানি রপ্তানি বন্ধ, এর ফলে আমাদের উৎপাদন কমে যায় প্রায় ৭০-৮০%। তিনি আরও বলেন, আমাদের উৎপাদনকৃত পন্যের কাচামাল ভারত এবং মালয়শিয়া থেকে আমদানি করতে হয়। কিন্তু লাগাতার অবরোধের কারনে কাচামাল আমদানি করা বিঘ্ন হচ্ছে তাই উৎপাদন ও কমে যাচ্ছে।

ওয়েলপ্যাক পলিমার লিঃ এর অফিস ইনচার্জ আতাউর রহমান ভোরের ডাককে বলেন লাগাতার অবরোধ-হরতাল থাকায় তাদের উৎপাদনকৃত পন্য রপ্তানি বন্ধ থাকে এর ফলে উৎপাদন কমে যায়। তিনি আরও বলে তাদের উৎপাদিত সব পন্য দেশের বাহিরে ইউরোপ ও ইউ এস এ রপ্তানি করা হয়। হরতাল-অবরোধ থাকলে ফ্যাক্টরী থেকে পন্যবাহী কোন গাড়ি বের না হওয়ায় বাধ্য হয়ে উৎপাদন কমাতে হয়।

এই জন্য তাদের প্রতি ১০ দিনে এক হাজার ইউএস ডলার ক্ষতিপূরনণ দিতে হয় বিদেশী প্রতিষ্ঠান গুলোকে। এই ক্ষতিপূরণ এবং উৎপাদন কমে যাওয়া প্রতি দিন তাদের লোকসান হচ্ছে এক হাজার ইউএস ডলার। অন্য আরও শিল্প প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে যানা যায় তারা বলে দেশে প্রায় লাগাতার অবরোধ-হরতাল থাকার কারণে পন্য আমদানি রপ্তানি বন্ধ রাখতে হয় ফলে উৎপাদন কমাতে হয়।

গজারিয়া আলোড়ন

Leave a Reply