পদ্মা সেতু ও মেট্রো রেলে গতি বাড়াচ্ছে সরকার

২০১৭ সালে পদ্মা সেতু, ২০১৯ সালে মেট্রো রেল চালুর উদ্যোগ
কয়েক দফা মেয়াদ না বাড়িয়ে কোনো প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়েছে- এমন নজির বাংলাদেশে বিরল। তবে বিপুল প্রত্যাশিত পদ্মা সেতু ও মেট্রো রেল প্রকল্পের কাজ নির্ধারিত সময়ের আগেই শেষ করার চ্যালেঞ্জ নিয়েছে সরকার। এর মধ্যে পদ্মা সেতু নির্মাণের সময়সীমা প্রায় বছরখানেক কমিয়ে ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে এবং মেট্রো রেলের সময়কাল পাঁচ বছর কমিয়ে ২০১৯ সাল নির্ধারণ করেছে সরকার। প্রকল্প দুটি বাস্তবায়িত হলে সরকারের জনপ্রিয়তা বাড়বে বলে মনে করছেন নীতিনির্ধারকরা।

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সরকারের উচ্চপর্যায়ের এক বৈঠকে দেশের অবকাঠামো খাতের সবচেয়ে বড় এ প্রকল্প দুটির নির্মাণকাজ আগেভাগে শেষ করার এ সিদ্ধান্ত হয়েছে। একই সঙ্গে দেশের সবচেয়ে বড় বিদ্যুৎকেন্দ্র মাতারবাড়ী ঘিরে টাউনশিপ গড়ে তুলতে মহেশখালীতে সাধারণ মানুষের জন্য জমি হস্তান্তরের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের সিদ্ধান্তও হয়েছে।

এ ছাড়া ২৫ কোটি টাকার বেশি অর্থ ব্যয় হবে- এমন প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ, ডিপিপি বা টিপিপি প্রণয়ন এবং পরামর্শক নিয়োগের কাজ দ্রুত শেষ করা হবে। এসব কাজে অর্থায়নের জন্য ‘প্রজেক্ট প্রিপারেটরি ফান্ড’ বা প্রকল্প প্রস্তুতিমূলক তহবিল গঠন করবে সরকার। এর জন্য কর্মপন্থা নির্ধারণের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে অর্থ ও পরিকল্পনা বিভাগকে। এ ধরনের তহবিল গঠন প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, অর্থ মন্ত্রণালয়কে যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তা যথাসময়ে পালন করা হবে।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কম্পানির সঙ্গে করা চুক্তি মতে, কাজ শুরুর ১৪৬০ দিনের (চার বছর) মধ্যে মূল পদ্মা সেতুর নির্মাণ শেষ হবে। মাটি পরীক্ষার মাধ্যমে গত বছরের ১ নভেম্বর এ কাজ শুরু করেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। সে হিসাবে ২০১৮ সালের নভেম্বর মাসে প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হওয়ার কথা। তবে প্রধানমন্ত্রীকে সেতু বিভাগের সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানিয়েছেন, ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ সম্পন্ন হবে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বৃহৎ ও অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত প্রকল্পগুলো নিয়ে ‘ফাস্ট ট্র্যাক’ কমিটির বৈঠকে আনোয়ারুল ইসলাম আরো জানিয়েছেন, এরই মধ্যে পদ্মা সেতু নির্মাণ প্রকল্পের আর্থিক অগ্রগতি ২৫ শতাংশ অর্জিত হয়েছে। মূল সেতু নির্মাণ ও নদীশাসন কাজের তদারকি চলমান। চীনে সেতুর সুপার স্ট্রাকচার তৈরি হচ্ছে। আগামী মার্চে নদীশাসন ও এপ্রিলে টেস্ট পাইলিংয়ের কাজ শুরু হবে।

বর্ষাকালে কাজ ব্যাহত হবে কি না, প্রধানমন্ত্রীর এমন জিজ্ঞাসার জবাবে সেতু বিভাগের সচিব জানান, আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের কারণে বর্ষাতেও পাইলিংয়ের কাজ অব্যাহত রাখবে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

মেট্রো রেলের নির্মাণকাজ ২০১৯ সালের মধ্যে শেষ করার পরিকল্পনার কথা তুলে ধরে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এম এ এন সিদ্দিক বলেন, মেট্রো রেলের ডিপো নির্মাণের জন্য রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) কাছ থেকে ভূমির বরাদ্দ ও দখল পাওয়া গেছে। এ বছরই প্রকল্পের দরপত্র ডাকার কার্যক্রম শুরু হবে। প্রকল্পের সমাপ্তির সময় ২০২৪ সালের পরিবর্তে ২০১৯ সাল নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রকল্প এলাকার বিভিন্ন সেবা ব্যবস্থা স্থানান্তরের জন্য সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। এরই মধ্যে সেবা স্থানান্তর নকশা (ইউটিলিটি শিফটিং ড্রয়িং ডিজাইন) পাওয়া গেছে। মতিঝিল এলাকায় রিসিভিং স্টেশন এবং বিভিন্ন স্থানে কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডের জন্য প্রয়োজনীয় জায়গার বিষয়ে সমীক্ষা চলছে। সংশ্লিষ্ট এলাকায় রেলওয়ে, সিটি করপোরেশন এবং গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের জায়গা রয়েছে বিধায় জমির সংকট হবে না।

এদিকে মাতারবাড়ী আল্ট্রাসুপার ক্রিটিক্যাল কোল ফায়ার্ড পাওয়ার প্রজেক্ট এলাকায় জমির দাম বেড়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান প্রকল্পভুক্ত মহেশখালী এলাকায় জমি কিনতে শুরু করেছে। এ বিষয়ে বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব মনোয়ার ইসলাম প্রধানমন্ত্রীকে জানান, প্রকল্পটি বাস্তবায়নের সঙ্গে সঙ্গে মহেশখালী এলাকায় অনেক শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে উঠবে এবং নগর উন্নয়ন হবে। এ জন্য ভবিষ্যতে অনেক জমি লাগবে। তা ছাড়া প্রকল্পের স্বার্থেই যোগাযোগব্যবস্থারও উন্নয়ন জরুরি। দিন দিন ওই এলাকায় জমি কেনার জন্য আগ্রহী লোকের সংখ্যা বাড়ছে। তাই পরিকল্পিত উন্নয়নের প্রয়োজনে ওই এলাকায় এখনই জমি বেচাকেনা সীমিত করা প্রয়োজন।

এ সময় মহেশখালী এলাকার খাসজমি দ্রুত চিহ্নিত করে তা দখলে নেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত লবণচাষিদের পুনর্বাসনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। এ ছাড়া প্রকল্পকেন্দ্রিক পরিকল্পিত উন্নয়নের জন্য কী পরিমাণ ব্যক্তিমালিকানাধীন জমি ভবিষ্যতে দরকার হতে পারে সে বিষয়ে সমীক্ষা চালানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। একই সঙ্গে মহেশখালী এলাকায় ব্যক্তি পর্যায়ে জমি হস্তান্তরে নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য ভূমি মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply