ভাষা সংগ্রামী সফিউদ্দিন আহমেদ

সুমিত সরকার সুমন: বিক্রমপুরে ব্রিটিশ শাসনামলে বাবা জলকদর দেওয়ানের বাড়িটি হয়ে উঠেছিল বাম রাজনীতিকদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল। সে সময় বাড়ির বাংলোতে বাম রাজনীতিকদের মাঝে খাবার বিতরন ও তাদের চিঠি আদান-প্রদান করতেন তিনি।

বিপ্লবী কমিউনিষ্টদের সংস্পর্শে এভাবেই রাজনীতির প্রতি দুর্বলতা জন্মেছিল সফিউদ্দিন আহমেদের। মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার গাওদিয়া ইউনিয়নের হারিদিয়া গ্রামের জলকদর দেওয়ানের ছোট ছেলে তিনি।

তখন তিনি ছিলেন স্কুলের ছাত্র। পাশাপাশি কলকাতা থেকে প্রকাশিত “জনশক্তি” পত্রিকা বিক্রির হকারি করতেন। পত্রিকা বিক্রি ও পড়ার মধ্য দিয়ে তাকে কাছে টানে সাংবাদিকতাও। পরবর্তীতে ব্রিট্রিশ আমলের তেভাগা আন্দোলনসহ নেত্রকোনায় অনুষ্ঠিত সর্ব-ভারতীয় সভায় জিতেন ঘোষের সঙ্গে বিক্রমপুর কৃষক সভার কর্মী হিসেবে যোগাদন করেন।

মাত্র ১৭ বছর বয়সে বড় ভাই শামসুদ্দিন আহমেদের সঙ্গে ১৯৪০ সালের লাহোর সম্মেলনে যোগ দেন সফিউদ্দিন আহমেদ। এরপর ১৯৪৮ পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠীর “উর্দু হবে একমাত্র রাষ্ট্র ভাষা”-ঘোষনার প্রতিবাদ করে কারাবরন করেন তিনি।

ঢাকার জগন্নাথ কলেজ ছাত্র-সংসদের জিএস থাকাকালীন সফিউদ্দিন আহমেদ ঝাপিয়ে পড়েছিলেন বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনে। ১৯৪৭ সাল থেকে ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট ও রাজশাহীসহ বিভিন্ন কারগারে বিভিন্ন মেয়াদে সর্বমোট ১০ বছর জেলবন্দি জীবন কাটিয়েছেন। এছাড়া রাজনৈতিক কারনে তিনি ১’শ ৩০ দিন অনশনে কাটান।

রাজশাহীর খাপড়া ওয়ার্ডে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে জেলবন্দি ছিলেন তিনি। বন্দি অবস্থায় খাপড়া ওয়ার্ডে হাজতিদের ওপর যে গুলিবর্ষণ হয় সে সময় নিজের বুদ্ধি মত্তায় সফিউদ্দিন প্রাণে রক্ষা পান।
১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে আত্মগোপন করে সাংবাদিকতার মাধ্যমে যুদ্ধ করেছেন তিনি। সফিউদ্দিন আহমদ সংবাদপত্র ও মফস্বল সাংবাদিকতাকে ব্রত করে দেশ ও জনগণের সদস্যা এবং গণমনের অধিকার সম্বন্ধে সচেতন করার দায়িত্বটুকু নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে পালন করে গেছেন।

তিনি অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র থাকাকালীন অবস্থায় কমিউনিটি পার্টি অব ইন্ডিয়ার সাপ্তাহিক মুখপত্র “জনযুদ্ধ” পত্রিকা ও বোম্বে থেকে প্রকাশিত ইংরেজী ভার্সন “পিপলস ওয়ার বোম্মে” পত্রিকার প্রতিনিধি হিসেবে যোগ দিয়ে সাংবাদিকতার জগতে প্রবেশ করেন।

১৯২২ সালের ১ নভেম্বর মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার হারিদিয়া গ্রামে জন্ম গ্রহন করেন সফিউদ্দিন আহমেদ। ২০০৯ সালের ২২ অক্টোরবর মৃত্যু বরন করেন।
তিনি সাংবাদিকতায় ১৯৯৯ সালে জনকণ্ঠ প্রতিভা “সম্মাননা’ ৯৮ প্রাপ্তি পদক, ২০০২ সালে মাওলানা মনিরুজ্জামান (চট্টগ্রাম) স্বর্ণপদক, মাওলানা ভাসানী স্বর্ণপদক ও তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া পদক পাওয়ার গৌরব অর্জন করেন।

বিডিলাইভ

Leave a Reply