হরতাল ও অবরোধের কারণে শিমুলীয়া ফেরিঘাটে যানবাহন কম

শেখ মো. রতন: ২০ দলের টানা হরতাল ও অবরোধের কারণে ব্যস্ততম শিমুলীয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের শিমুলীয়া ফেরিঘাটে যানবাহন ব্যাপকহারে কমে গেছে। যেখানে পদ্মা পারাপারে যানবাহন ঘণ্টার পর ঘণ্টা দীর্ঘ লাইন ধরে অপেক্ষায় থাকত, সেখানে এখন ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঘাটে ফেরিগুলোকে যানবাহনের অপেক্ষায় অলস বসে থাকতে হচ্ছে।

ফেরিতে যানবাহন লোড-আনলোড ব্যাপক মাত্রায় কমে গেছে। এতে টোল আদায় ৬০ থেকে ৭০ ভাগ কমে গেছে। ব্যাপকভাবে আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে রাষ্ট্রের। টানা অবরোধ ও হরতালের কারণে ৪২ দিনে ৬ কোটি ৩০ লাখ টাকার রাজস্ব বঞ্চিত হয়েছে বলে জানিয়েছে বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়া ফেরিঘাট এলাকায় রেস্টুরেটসহ বিভিন্ন দোকান-পাট বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। বেচা-কেনা নেই বললেই চলে। প্রায় ২০ হাজার লোক বেকার হয়ে পড়েছে।

সরেজমিন খবর নিয়ে জানা গেছে, ঢাকা-মাওয়া-খুলনা মহাসড়কে শিমুলীয়া (মাওয়া) ফেরিঘাট ব্যস্ততম ঘাট। প্রতিদিন কয়েক হাজার যানবাহন এখানকার তিনটি ফেরিঘাট দিয়ে পারাপার হয়। হরতাল ও অবরোধের কারণে এই মহাসড়কে দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল ব্যাপকভাবে হ্রাস পেয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি সূত্র জানিয়েছে, অবরোধ-হরতালের আগে ২৪ ঘণ্টায় যেখানে ২ শতাধিক যাত্রীবাহী বাস, ৪ শতাধিক ট্রাক, ২ শতাধিক প্রাইভেটকার ঘাট দিয়ে পারাপার হতো। সেখানে এখন ৩০ থেকে ৪০টি বাস, ৫০ থেকে ৬০টি ট্রাক, ১৫ থেকে ২০টি প্রাইভেটকার পারাপার হচ্ছে। একটা ফেরি লোড করতে আড়াই থেকে ৩ ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে। যেখানে আগে ২৪ ঘণ্টায় ১৮ থেকে ২০ লাখ টাকা রাজস্ব আয় হতো, সেখানে এখন ৬ থেকে ৭ লাখ টাকা আয় হয়।

বিআইডব্লিউটিসির মাওয়া কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক এস এম আশিকুজ্জামান জানান, হরতাল-অবরোধের কারণে নৌরুটে যানবাহন পারাপার কমে যাওয়ায় ব্যাপক লোকসানের কবলে পড়েছেন তারা। প্রতিদিন প্রায় ১৫ লাখ টাকা করে গত ৪২ দিনে ৬ কোটি ৩০ লাখ টাকার রাজস্ব বঞ্চিত হয়েছে বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ।

বিআইডব্লিউটিসির মাওয়া শিমুলীয়া ফেরিঘাটের ঘাট সহকারী মো. রফিকুল ইসলাম জানান, শিমুলীয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ১৬টা ফেরি সচল আছে। যানবাহনের সংকটে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়।

রাইজিংবিডি

Leave a Reply