পদ্মার চরের শিশুদের বিদ্যালয়ের পাঠদান চলছে গাছ তলায়!

সুমিত সরকার সুমন: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ি উপজেলার দিঘীরপাড় ইউনিয়নের পদ্মা পাড়ের শিশুদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছে সরিষাবন শামসুল হক সরকার মেমোরিয়াল প্রাথমিক বিদ্যালয়।প্রমত্বা পদ্মার বুকে জেগে উঠা চরের সরিষাবন, ধানকোঁড়া ও কান্ধারবাড়ি গ্রামের আড়াই শতাধিক শিশু বর্তমানে ওই বিদ্যালয়ে শিশু শ্রেনী ও প্রথম শ্রেনীতে পড়াশুনা করছে।শিশুদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছে যে বিদ্যালয়টি, সেই বিদ্যালয়ের নেই কোন ভবন বা ঘর। খোলা আকাশের নীচে মাটিতে বসে শিক্ষার্থীদের দেওয়া হচ্ছে পাঠদান।

মহাকালী ঢালী বাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা তামান্না সরকার মনি বাবা শামসুল হক সরকারের নামানুসারে পদ্মার চরের অবহেলিত জনগোষ্ঠীর জন্য ওই বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেন। ২০১৪ সালের ২০ সেপ্টেম্বর আনুষ্ঠানিক ভাবে সরিষাবন গ্রামের সেকু শিকদারের বাড়িতে বড়ই গাছতলায় শিশু শ্রেনী ও প্রথম শ্রেনীর শিক্ষার্থীদের নিয়ে যাত্রা শুরু করে বিদ্যালয়টি।

এরপর সরকারি ভাবে স্বীকৃতি পেতে ওই নারী শিক্ষিকা বাবার নামের ওই বিদ্যালয়ের জন্য শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রাদি জমা দেন। বিদ্যালয়ের উন্নয়নে ছুটে যান সমাজের বিত্তবানদের কাছে। এরই মধ্যে দিঘীরপাড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরিফ হালদার বিদ্যালয়ের উন্নয়নে ২৮ শতক জমি দান করেছেন। বিদ্যালয়ের উদ্যোক্তা তামান্না সরকার মনি নিজেও দিয়েছেন ৭ শতক জমি। সরেজমিনে সরিষাবন গ্রামে বিদ্যালয় ঘুরে দেখা গেছে- পদ্মার চরের শিশুদের শিক্ষার হাতেখড়ি দিচ্ছে বিদ্যালয়টি। ১৯৮৮ সালে ভাঙ্গন কবলিত দিঘীরপাড় ইউনিয়নের পদ্মার বিশাল জলরাশির বুকে জেগে এ চরটি। চরের বুকে জেগে উঠে একদা বিলীন হয়ে যাওয়া দিঘীরপাড় ইউনিয়নের ৩ টি গ্রাম সরিষাবন, ধানকোঁড়া ও কান্ধার বাড়ি।

কয়েক বছর পরই পদ্মার চরে গড়ে উঠতে শুরু করে নতুন করে বসতি। জনবসতি গড়ে উঠলেও সেখানকার জনগোষ্ঠীর মাঝে শিক্ষা বিস্তারে সরকারি-বেসরকারি ভাবে কোন পদক্ষেপ আজ-অব্দি চোখে পড়েনি।একজন নারীর উদ্যোগে পদ্মার চরের জনগোষ্ঠীর মাঝে শিক্ষার দ্বীপ শিখা জ্বলে উঠেছে। সরিষাবন গ্রামে ইউপি চেয়ারম্যানের দান করা জমিতে মাটি ভরাট করা হচ্ছে। শিগগির সেখানে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে অন্তত একটি টিনসেট বিদ্যালয় ভবন-এমনটাই আশাবাদ ব্যক্ত করেন উদ্যোক্তা প্রাইমারী শিক্ষিকা তামান্না সরকার মনি।

জেলা শহরের মানিকপুর এলাকায় তার বাড়ি। তার সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, কোন একদিন পদ্মার চরে ঘুরতে গেলে শিশুদের শিক্ষা নিয়ে ওই আইডিয়া আসে তার মনে।এরপর মায়ের অনুপ্রেরনায় ২০১৪ সালে তিনি বিদ্যালয়ের কাজ শুরু করেন। বাড়ি বাড়ি গিয়ে সংগ্রহ করেন শিশু শিক্ষার্থী। প্রথমে সেকু সিকদারের বড়ই গাছ তলায় পাঠদান শুরু করেন।

বিদ্যালয়ের জন্য জমি পাওয়া গেলেও একটি খানি ঘরের অভাবে এখনও পর্যন্ত সেই বড়ই গাছ তলায় শিশুদের পাঠদান চলছে। তিনি নিজের কর্তব্যরত সরকারি বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা শেষে অক্লান্ত পরিশ্রম করে এ বিদ্যালয়টি দাঁড় করাচ্ছেন।বলা চলে পদ্মার চরের শিশুদের মাঝে শিক্ষার হাতেখড়ি দিচ্ছে বিদ্যালয়টি। সেখানে খন্ডকালীন ৩ শিক্ষিকা মাত্র ১ হাজার টাকা বেতনে পাঠদান দিচ্ছেন। শিক্ষিকাদের বেতন দেওয়া হচ্ছে বিদ্যালয় উদ্যোক্তার পকেট থেকে।বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা প্রসঙ্গে সরিষাবন গ্রামের সেকু সিকদার বলেন- আমার শিশু সন্তান অশিক্ষায় বেড়ে উঠুক তা আমি চাই না। প্রথমে নিজের সন্তানের কথা ভেবেই নিজ বাড়িতে বড়ই গাছ তলায় বিদ্যালয়টি যাত্রা শুরু করার কথা ভাবি।

বিডিলাইভ

2 Responses

Write a Comment»
  1. Sorisabon er chele ami / Amar sathe zogazog korar jonno onurodh janacchi / Ami schoolti kore dite chai /

  2. সরিসাবন গ্রামে সরিসাবন প্রিপ্রিমারি স্কুল আসে যা স্টুডেন্ট এর অভাবে বন্দ / অই স্কুল টা ভাল ভাবে চালানোর চেষ্টা না করে নতুন করে শুরু করার পিছনে কেমন জানি গ্রাম্য রাজনিতির গন্দ পাচ্ছি

Leave a Reply