বৃহত্তম আলু উৎপাদনকারী এলাকায় আলু চাষীরা দিশেহারা

একদিকে লেডব্লাইড রোগ ও ইঁদুরের আক্রমণ, অন্যদিকে হরতাল-অবরোধে মুন্সীগঞ্জের আলুচাষীরা বিপাকে পড়েছেন। হরতাল-অবরোধ থাকায় জমিতে আলু কেনার জন্য কোনো পাইকারের দেখা মিলছে না। আবার জমিতে ইঁদুরের আক্রমণে নষ্ট হচ্ছে আলু।

জেলা কৃষি সম্প্রাসারণ অধিদফতরের কর্মকর্তা মো. আল-মামুন জানান, এবার মুন্সীগঞ্জ জেলায় ৬ লাখ ৮৬ হাজার মেট্রিক টন আলু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ ছিল। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে দ্বিগুণ উৎপাদন হয়েছে। জেলায় ৩৭ হাজার ৬০০ হেক্টর জমিতে আলুর আবাদ হয়েছে। আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৫ হাজার হেক্টর জমি।

জেলা কৃষি সম্প্রাসারণ অধিদফতর সূত্রমতে, স্বল্প পরিমাণ জমির আলুতে ইঁদুরের আক্রমন দেখা গেছে। এ ছাড়া মাত্র এক হাজার হেক্টর জমিতে লেডব্লাইড রোগ দেখা যায়। লেডব্লাইড রোগে আলুর চারায় মড়ক দেখা দিয়েছে।

শহরের কাছে কাটাখালী এলাকার আলুচাষী হাসান বলেন, ‘এবার ৫-৭ বার জমিতে ওষুধ দিয়েছি, কোনো লাভ হয়নি। আলু বেইচ্ছা ফালামু কিন্তু কাস্টমার নাই। একদিকে ইঁদুরে নষ্ট করছে আরেকদিকে হরতাল-অবোরোধের কারণে জমিতে কাস্টমারও আসে না। এতদিনে পুরা চক খালি হয়ে যেত। পরে পিঁয়াজ, কাঁচামরিচ, টমেটো ইত্যাদি ফসল লাগাতাম। তবে এ অবস্থা থাকলে আলু জমি থেকে উঠামু নাকি এমনেই থাকবে আল্লাই জানেন।’

আলুচাষী মো. মাসুদ বলেন, ‘কষ্ট করে আমরা আলু লাগাই। কিন্তু হরতালের কারণে আলুর দাম পাই না। বিরোধী দলের কাছে আমার দাবি, এ হরতাল-অবোরোধ যেন প্রত্যাহার করে। আমাদের দুরাবস্থা থেকে রেহাই দেয়। আমরা অনেক কষ্টে আছি।’

দ্য রিপোর্ট
===========

মুন্সীগঞ্জে আলু চাষীরা দিশেহারা

সুমিত সরকার সুমন: একদিকে লেডব্লাইড রোগ ও ইঁদুরের আক্রমন, অন্যদিকে হরতাল-অবরোধ থাকায় মুন্সীগঞ্জের আলু উত্তোলন নিয়ে শংকায় পড়েছে চাষীরা। জমিতে চাষীদের এখন কান্না ছাড়া আর কিছুই করার নেই। হরতাল-অবরোধ থাকায় জমিতে আলু কেনার জন্য কোন পাইকারের দেখা নেই। আবার জমিতে ইঁদুরের আক্রমনে বিনষ্ট হচ্ছে আলু। একই সঙ্গে লেডব্লাইড রোগে আলু চারায় মড়ক দেখা দিয়েছে।

দেশের বৃহত্তম আলু উৎপাদনকারী এলাকা মুন্সীগঞ্জ। প্রতি বছরের মতো এবারো জেলার ছয়টি উপজেলার হাজার হাজার চাষি আলু আবাদ করেছে। এবার আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় মৌসুমের আগেই আলু আবাদ শুরু করেছিল কৃষক। টানা কয়েক বছরের লোকসানের পর এবার লাভের মুখ দেখবে এমনি স্বপ্ন ছিল তাঁদের। কিন্তু হঠাত করেই তাদের স্বপ্নে বাধা হয়ে এসেছে অজানা এক রোগ , হরতাল ও অবরোধ। এ রোগে প্রথম আক্রান্ত হয় গাছের পাতা। ধুসর রঙ ধারন করে মরতে শুরু করে। তারপর এটি ছড়িয়ে পরে কান্ডে, এক সময় গাছটিই মৃত গাছের মত নেতিয়ে পড়ছে।

দিনদিন বাড়ছে এই রোগের প্রকপ। তাঁদের পরামর্শেসব ধরনের ঔষধ, রাসায়নিক স্প্রে করেও ফল পাচ্ছেন না তারা। বারবার ওষুধ দেয়ায় বেড়ে যাচ্ছে উৎপাদন খরচ। আর গুটি অবস্থায় এ রোগ দেখা দেওয়ায় আতংকিত হয়ে পরছেন তারা। শংকিত আলুর উৎপাদন নিয়ে। জেলা কৃষি সম্প্রাসারন অধিদপ্তর সূত্র মতে, মুন্সীগঞ্জ জেলায় ৬ লাখ ৮৬ হাজার মেট্রিক টন আলু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন ছিল। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে দ্বিগুন উৎপাদন হয়েছে।

জেলায় ৩৭ হাজার ৬’শ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ করা হয়েছে। আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৫ হাজার হেক্টর। স্বল্প পরিমানে জমিতে আলু আবাদে ইঁদুরের আক্রমন দেখা গেছে। সবে মাত্র ১ হাজার হেক্টর জমিতে লেডব্লাইড রোগ দেখা যায়। কৃষক মো: সেলিম জানান, হরতাল অবোরোধের কারনে আলু বিক্রি করতে পারতাছি না, জমিতে কাষ্টমার আসেনা। এতো দিনে পুরা চক খালি হয়ে যেত পরে পিয়াজ, কাচা মরিচ, টমেটো ইত্যাদি ফসল লাগাতাম। তবে এ অবস্থা থাকলে আলু জমি থেকে উঠামু নাকি এমনেই থাকবে আল্লাহ যানে। উপ পরিচালক কৃষি সম্পসারন অধিদপ্তর মো: আব্দুল আজিজ জানায়, লেডব্লাইড রোগে কিছু জমিতে আকান্ত করেছে।

বিডিলাইভ

Leave a Reply