গজারিয়ায় অর্থনৈতিক অঞ্চল করছে আবদুল মোনেম

দেশের সর্ববৃহৎ অবকাঠামো নির্মাতা প্রতিষ্ঠান আবদুল মোনেম লিমিটেড মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় বেসরকারি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলবে। এর প্রাথমিক প্রক্রিয়া হিসেবে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) প্রাক-যোগ্যতা লাইসেন্স দিয়েছে। এর আগে নরসিংদীর পলাশে দেশের প্রথম বেসরকারি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার জন্য এ কে খান অ্যান্ড কোম্পানিকে প্রাক-যোগ্যতা লাইসেন্স দেয় বেজা।

প্রথমে ২১৬ একর জমির ওপর প্রাথমকিভাবে অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার কাজ করবে আবদুল মোনেম লিমিটেড। পরে তা ৩০০ একর পর্যন্ত বিস্তৃতির সুযোগ থাকবে। ইতিমধ্যে মাটি ভরাটের কাজ শুরু হয়েছে। সম্পূর্ণ অবকাঠামো গড়ে উঠলে এতে আনুমানিক এক লাখ মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। উল্লেখ্য, গত ৫৮ বছরে ১৮টি ভিন্ন ভিন্ন এন্টারপ্রাইজ গড়ে তুলেছে বেসরকারি খাতের অন্যতম এ উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠানটি। গতকাল রাজধানীর কারওয়ান বাজারের বেজার প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রাক-যোগ্যতা লাইসেন্স দেওয়া হয় আবদুল মোনেম লিমিটেডকে। এতে কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল মোনেম বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরীর কাছ থেকে সনদ গ্রহণ করেন।

বেজা সূত্রে জানা যায়, মোনেম খান লিমিটেড গজারিয়ার ২১৬ একর জমিতে মাটি ভরাট, গ্যাস-বিদ্যুৎ সংযোগ, সংলগ্ন সড়ক নির্মাণ ও সীমানাপ্রাচীর নির্মাণ করবে প্রাথমিকভাবে বেজার তত্ত্বাবধানে। এরপর শিল্প-কারখানা প্রতিষ্ঠার জন্য দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আহ্বান করা হবে। বিনিয়োগ আসার পর আবদুল মোনেম লিমিটেড বিনিয়োগ ইচ্ছুক কোম্পানির সঙ্গে যৌথভাবে শিল্প-কারখানা স্থাপনের কাজ করবে।

প্রথম থেকে উৎপাদনে যাওয়া পর্যন্ত পুরো প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করবে বেজা কর্তৃপক্ষ। অনুষ্ঠানে উপস্থিত বেজা ও আবদুল মোনেম লিমিটেডের কর্মকর্তারা গজারিয়ার অর্থনৈতিক অঞ্চলটি আগামী দুই বছর পর উৎপাদনমুখী হতে পারবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী বলেন, দারিদ্র্যবিমোচন, দ্রুত শিল্পায়ন, দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্টকরণ, ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও টেকসই প্রবৃদ্ধি অর্জনসহ দেশের সর্বত্র আধুনিক প্রযুক্তির বিস্তারের লক্ষ্যে ২০১০ সালে অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের সিদ্ধান্ত হয়।

তিনি বলেন, সময়ের প্রয়োজন অনুযায়ী ইপিজেড থাকা সত্ত্বেও অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বেসরকারিভাবে পরিকল্পিত বিনিয়োগের সুযোগ সৃষ্টি না হলে শিল্পের দ্রুত প্রসার ও আধুনিকায়ন সম্ভব নয়। সরকারি বিনিয়োগের পাশাপাশি বেসরকারি বিনিয়োগকে সর্বোচ্চ উৎসাহিত করাই অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য। এটি করতে পারলে উন্নয়নকে টেকসই করার পাশাপাশি গণমুখী করা সম্ভব। তিনি আরও বলেন, খুব দ্রুতই বেজার আইন সংশোধনের পাশাপাশি নীতিমালাতেও পরিবর্তন আনা হবে।

বর্তমান আইনের অধীনে গভর্নমেন্ট টু গভর্নমেন্ট (জি টু জি) বিনিয়োগের সুযোগ নেই। জাপান, চীন কিংবা অন্য দেশের সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের দ্বিপক্ষীয় চুক্তির আওতায় সেই আগ্রহী দেশের জন্য একটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা হবে। সংশোধিতব্য আইনের আওতায় সেই নির্দিষ্ট দেশের জন্য নির্ধারিত অর্থনৈতিক অঞ্চলে শুধু সেই দেশের কোম্পানিগুলোর বিনিয়োগের সুযোগ থাকবে। টেকনাফের সাবরাংয়ে শুধু পর্যটনের জন্য একটি বিশেষ শিল্প পার্ক গড়ে তোলার জন্য বিনিয়োগ আহ্বান করা হয়েছে বলেও জানান পবন চৌধুরী।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি বিনিয়োগ বোর্ডের নির্বাহী সদস্য সিনিয়র সচিব এসএম শওকত আলী বলেন, বর্তমান সরকার সরকারি বিনিয়োগের পাশাপাশি বেসরকারি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করতে সব ধরনের প্রচেষ্টা করে যাচ্ছে। অর্থনৈতিক অঞ্চলটি খুব দ্রুতই উৎপাদনমুখী হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।অনুষ্ঠানের অপর বিশেষ অতিথি আবদুল মোনেম লিমিটেডের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক এএসএম মাইনুদ্দিন মোনেম বলেন, চীন, জাপান, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া ও কম্বোডিয়ার মতো দেশগুলো দ্রুত শিল্পোন্নত হয়েছে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল বা শিল্প পার্ক স্থাপনের মাধ্যমে।

তিনি বলেন, একটি দেশে দ্রুত শিল্প প্রসারের জন্য সে দেশের একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ অঞ্চলকে পরিকল্পিত নগরায়ন ব্যবস্থাপনার আওতায় আনতে হবে। এর অন্যতম পূর্বশর্ত হলো কর্মসংস্থান সৃষ্টি।শিল্প পার্ক প্রতিষ্ঠিত হলে এখানে প্রচুর কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে ও এর আশপাশে পরিকল্পিত নগর গড়ে উঠবে। প্রতিষ্ঠানটির অপর উপব্যবস্থাপনা পরিচালক এএসএম মহিউদ্দিন মোনেম ধন্যবাদ বক্তব্য রাখেন।

সমকাল

Leave a Reply