পদ্মা সেতু : পথে বসেছে ২৯ মৎস্য আড়ৎদার

পদ্মা বহুমুখি সেতু প্রকল্পের জন্য ভূমি অধিগ্রহণের ফলে পথে বসেছে মাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত ২৯ মৎস্য আড়ৎদার। ৫ বছর ধরে শত দেন দরবার করেও ক্ষতিপূরণ জোটেনি তাদের কপালে। উচ্ছেদের শিকার হওয়ার পর অনেকটাই বন্ধ হয়ে গেছে তাদের রুটি-রুজির পথ। একই সঙ্গে বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে তাদের সঙ্গে জড়িয়ে থাকা আরো প্রায় ৫ হাজার লোকের জীবিকা।

নতুন করে আড়ৎ নির্মাণের জন্য জায়গা নির্ধারণ করলেও সেখানে এখনো মাটি ভরাটের কাজ চলছে। কবে নাগাদ মাটি ভরাটের কাজ শেষ হবে আর কবেই বা শেড নির্মাণ হবে তার কিছুই জানেন না ব্যবসায়ীরা।

মাওয়ার পদ্মা সেতু প্রকল্প এলাকা সরেজমিনে ঘুরে জানা গেছে, একসময় এখানকার মৎস আড়ৎদাররা স্থানীয় এলাকাবাসীর নিত্যদিনের আমিষের চাহিদা পূরণ করে রাজধানীর ঢাকা, মুন্সীগঞ্জ, লৌহজং, সিরাজদি খান, দোহার, জাজিরা, শরিয়তপুরসহ অন্যান্য জেলার হাট-বাজারে খুচরা বিক্রির জন্য মাছ সরবরাহ করতেন। আড়ৎদারদের ঘিরে এখানকার বরফকল ও ঘাট শ্রমিক থেকে শুরু করে প্রায় ৫ হাজার লোকের কাজের ক্ষেত্র গড়ে উঠেছিল। প্রতিদিন ৪০ থেকে ৫০ লাখ টাকার মাছ বেচাকেনা হতো এই বাজারে।

পদ্মাসেতু প্রকল্পের জন্য দক্ষিণ মেদিনীমন্ডল মৌজার ৭৭৪,৭৭৬, ৮০২ ও ৮০৪ নং আরএস দাগের ১ একর ৮৮ শতাংশ জায়গার ওপর প্রতিষ্ঠিত সেই পুরনো আড়ৎটি অধিগ্রহণ করা হয়। জমি অধিগ্রহণের ফলে উচ্ছেদ হতে হয় আড়ৎদারদের।

জানা গেছে, বাংলাদেশ ব্রিজ অথরিটি (বিবিএ) থেকে বলা হয়েছিল, ক্ষতিগ্রস্থ আড়ৎ ব্যবসায়ীদের অবকাঠামোগত ক্ষতিপূরণ ও নতুন জায়গায় আড়ৎ নির্মাণ করে দেয়া হবে। কিন্তু ৫ বছরেও সে ক্ষতিপূরণ এবং নতুন আড়ৎ নির্মাণ করা হয়নি। ফলে আড়ত হারানোর পর থেকে আজ অবধি খোলা আকাশের নীচে বসে ব্যবসা পরিচালনা করছেন আড়তদাররা। রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে শত শত কোটি টাকা বিনিয়োগ করে চরম নিরাপত্তাহীনার মধ্যে প্রতিদিন রাজধানী ঢাকাসহ আশেপাশের জেলাগুলোতে খুচরা বিক্রির জন্য তারা মাছ সরবরাহ করে আসছে।

ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, তাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। এখন তারা বাধ্য হয়ে আন্দোলনের কর্মসূচি নিয়ে ভাবছেন।

গত ২১-২৪ জানুয়ারি মাওয়া পদ্মা সেতু প্রকল্পের পয়েন্ট সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, ১৯৯৫ সাল থেকে মাওয়া বাজার সংলগ্ন পদ্মা নদীর ঘাটে তারা ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন। ওই বছর ১১ এপ্রিল ‘মাওয়া মৎস্য আড়ৎ ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লিমিটেড’ এর আওতায় চলে যায় ওই আড়ৎ। ১৯৯৫ সালের ২০ মে সমিতি রেজিস্ট্রেশন পায়। যার রেজি নং-০২।

সমিতির আওতাভুক্ত ২৯ জন আড়ৎদারসহ কয়েক শ’ জেলে পরিবার এই আড়তের সঙ্গে যুক্ত থেকে জীবন জীবিকা নির্বাহ করতো। পদ্মা বহুমুখি সেতু নির্মাণ প্রকেল্পের জন্য মাওয়া মৎস্য আড়তটি অধিগ্রহণের আওতাভুক্ত হওয়ায় আড়তের ২৯ জন আড়ৎদারসহ কয়েক শ’ জেলে পরিবারের সংসারে নেমে এসেছে দুর্ভোগ। একমাত্র রুটি রুজির স্থানটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অনেকে ছিন্নমূল মানুষে পরিণত হয়েছেন।

ভুক্তভোগীরা জানান, যৌথ তদন্ত তালিকায় ও বিআইডিএস জরিপে মাওয়া মৎস্য আড়ৎ ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির নাম অন্তর্ভূক্তও করা হয়েছিল। কিন্তু কোনো ক্ষতিপূরণ মিলেনি।
এখন কী করে খাবেন ভেবে পাচ্ছেন না এই আড়ৎদাররা

সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, ক্ষতিপূরণ না পাওয়ায় বাধ্য হয়ে সমিতির পক্ষ থেকে ২০০৯ সালে ১২ আগস্ট মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক, ২০০৯ সালের ১০ সেপ্টেম্বর প্রকল্প পরিচালক, ৫ অক্টোবর, ২৪ নভেম্বর ও ২০১০ সালের ১ ফেব্রুয়ারি নির্বাহী প্রকৌশলী (পুনর্বাসন) ও নালিশ প্রতিকার কমিটির আহবায়ক বরাবরে আবেদন করা হয়। সেখানে সমিতির আওতাভূক্ত ২৯ জন আড়ৎদারের নামে ক্ষতিপূরণ প্রাপ্তির নোটিশ জারির আহবান করা হয়। কিন্তু এখনো পর্যন্ত কোনো নোটিশ জারি হয়নি।

সমিতির বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মো. চাঁন মিয়া বলেন, ‘২৯ জন আড়ৎদারের ২৯টি গদিঘর এবং ১ টি অফিস ছিল। ১ একর ৮৮ শতাংশ জায়গাসহ সব অবকাঠামো অধিগ্রহণ করা হয়। জায়গার মালিকরা ক্ষতিপূরনের টাকা পেলেও আড়ৎদাররা তাদের অবকাঠামোগত কোন ক্ষতিপূরণ পায়নি।’

কেশব দাস নামের এক আড়ৎদার বলেন, ‘মাওয়া মৎস্য আড়ৎ থেকে প্রতিদিন ৪০ লাখ থেকে ৫০ লাখ টাকার মাছ বিক্রি হতো। আড়ৎ পরিস্কার পরিচ্ছন্ন, নদীর ঘাট থেকে মাছ আড়তে আনা, আবার ট্রাকে উঠানোসহ নানা কাজের সঙ্গে জড়িত থাকতো প্রায় ৫ হাজার শ্রমিক। আজ তাদের জীবিকার পথও বন্ধ হয়ে গেছে।

আড়তদার গৌরাঙ্গ দাস, ছানারমন দাস, মাখন দাস ও গোবিন্দ দাস জানান, আড়তের প্রতিটি গদি ঘরে ১ থেকে দেড় কোটি টাকার বিনিয়োগ ছিল। আড়ৎদাররা মাঠ পর্যায়ে ক্ষুদ্র জেলেদের কাছে অগ্রিম দাদন দিয়ে রাখতেন। এখন সে জমজমাট ব্যবসা বন্ধ হয়ে পথে বসেছে আড়তদাররা।

গৌরাঙ্গ, ছানারমন, মাখন ও গোবিন্দ দাসের মত আব্দুল মজিদ শেখ, মো. দেলোয়ার হোসেন খান, শান্তিরঞ্জন দাস, মাসুদুর রহমান, টিপু, আব্দুল মালেক, মন্টু দাস, স্বপন দাস, নিরঞ্জন দাস, নারায়ন চন্দ্র দাস, মো. সাহাবউদ্দিন মাতবর, ছিদাম দাস, নন্দা দাস, জীবন দাস, মো. হামিদুল ইসলাম, আবুল কাশেম মাদবর, আব্দুল খালেক খান, মো. জালাল মৃধা, মো. সিরাজুল ইসলাম, মো. আমিনুল ইসলাম, গয়ানাথ দাস, মো. দুলাল বেপারী, হারুন মাতবর ও চাঁন মিয়ার মত আড়ৎদাররাও ব্যবসার পুঁজি হারিয়ে এখন প্রায় পথে বসেছে।

এ ব্যাপারে পদ্মাসেতু প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আড়ৎ সম্পর্কে আমরা কিছু জানি না। আড়ৎদাররা ক্ষতিপূরণের টাকা কেন পায়নি তা মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসকই বলতে পারবেন।’

রতন বালো = বাংলামেইল

Leave a Reply