৩ দিন পর নিখোঁজ সোলাইমানের লাশ উদ্ধার

শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট সিবোট দুর্ঘটনা
শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে সিবোট দুর্ঘটনায় নিহত যাত্রী সোলাইমান মাদবরের (২৮) লাশ শুক্রবার রাতে পদ্মা নদী হতে জেলেরা উদ্ধার করেছে। তার বাড়ি শরিয়তপুরের জাজিরা উপজেলার কাজির হাট গ্রামে। এর পূর্বে গত ১১ মার্চ রাতে সিবোর্ট দুর্ঘটনায় পদ্মায় ডুবে সে নিখোঁজ হন। গত ১১ মার্চ বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে শিমুলিয়া ঘাট থেকে ১৯ জন যাত্রী নিয়ে লৌহজংয়ের কান্দিপাড়ার শামীম মাদবরের সিবোটটি কাওড়াকান্দির উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়।

পথিমধ্যে শিমুলিয়ার অদূরে পদ্মার ড্রেজিং পয়েন্টে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রলারের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে যাত্রীরা সকলে কমবেশী আহত হন। তাৎক্ষনিক ১৩ যাত্রী উদ্ধার হলেও সোলাইমানসহ বাকীরা নিখোঁজ হন। পরে জেলেদের সহযোগিতায় পরিবারের পক্ষ থেকে পদ্মায় খোঁজাখোজি করে গত বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে দুর্ঘটনা স্থলের কাছেই সোলাইমানের লাশ খুঁজে পায় জেলেরা। কোন রকম ময়না তদন্ত ছাড়াই শনিবার তার লাশ গ্রামের কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে মাওয়া নৌ পুলিশ ফাড়ি ইনচার্য এসআই ইউনুস আলী জানান, দুর্ঘটনার বিষয়টি সম্পর্কে তারা অবগত নয়। জাজিরা থানার ওসি ইকরাম আলী মিয়া জানান, লাশ উদ্ধারের বিষয়টি থানা অবগত আছে এবং তাকে দাফনও করা হয়েছে। উল্লেখ্য শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে সর্যাস্তের পর হতে দুর্যোদয় পর্যন্ত দুর্ঘটনা এড়াতে সিবোট চলাচল নিষিদ্ধ থাকলেও এখানে তা মানা হচ্ছেনা।

এ নিয়ে গত ৭ মার্চ জনকণ্ঠে প্রতিবেদন প্রকাশিত হলেও থেমে নেই রাতে সিবোট চলাচল। সচেতন মহল মনে করেন, ওই প্রতিবেদন প্রকাশের পর যদি সঠিক তদন্ত হতো, তবে হয়তো সোলাইমানকে রাতে সিবোট দুর্ঘটনায় পরে প্রান দিতে হতো না। এক শ্রেণি পুলিশ সদসের অতি লোভের কারণেই এমনটি হচ্ছে।

মুন্সিগঞ্জেরকাগজ

Leave a Reply