দুর্নীতি : অতিরিক্ত সচিব মসিউরের নথি তলব

সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মসিউর রহমানের সম্পদসংক্রান্ত যাবতীয় নথিপত্র তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক, বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন অ্যাকাডেমির (বার্ড) মহাপরিচালক, মুন্সীগঞ্জ ও গজারিয়া সাব রেজিস্ট্রি অফিস, বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সংশ্লিষ্ট সরকারি দফতরগুলোতে নথি তলব করে গত সপ্তাহে চিঠি পাঠিয়েছে দুদক। দুদক সূত্র জানায়, অবৈধ সম্পদ অর্জন ও কর্মচারী নিয়োগসহ বিভিন্ন কার্যক্রমে অনিয়ম-দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে এসব চিঠি দেয়া হয়েছে।

দুদক সূত্র জানায়, মসিউর রহমান যখন বার্ডের মহাপরিচালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন তখন তার বিরুদ্ধে দুদকে অভিযোগ আসে। বিষয়টি নিয়ে প্রাথমিক অনুসন্ধান শুরুর পর তাকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে ন্যস্ত করা হয়। সম্প্রতি তাকে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। সূত্র জানায়, মশিউর রহমানের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ খতিয়ে দেখতে গত ২২ ফেব্রুয়ারি অনুসন্ধান কর্মকর্তা নিয়োগ করে কমিশন। দুদকের উপপরিচালক জালাল উদ্দিনকে অনুসন্ধানের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

অভিযোগের বরাত দিয়ে দুদক সূত্র জানায়, মসিউর রহমানের আমলে বার্ড অনিয়ম ও দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়। বিগত বছরের সফলতা, ব্যর্থতা ও আগামী দিনের গবেষণা, প্রায়োগিক গবেষণা, প্রশিণসহ বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করতে বার্ষিক পরিকল্পনা সম্মেলন (এপিসি) করার কথা থাকলেও ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ডিজির উদাসীনতায় তা হয়নি। এ ছাড়া তার সময়ে প্রতিষ্ঠানে বুনিয়াদি প্রশিণও হ্রাস পায়।

সূত্র মতে, বার্ডে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী নিয়োগে ব্যাপক অনিয়ম হয়। নিয়োগ কমিটি থাকা সত্ত্বেও প্রশ্নপত্র প্রণয়নসহ ডিজির বিসিএস প্রশাসনের সহকর্মী মন্ত্রণালয়ের তিনজন কর্মকর্তার মাধ্যমে বিধিবহির্ভূতভাবে নিয়োগপ্রক্রিয়া সম্পন্ন করেন। ওপেন টেন্ডারিং মেথডের (ওটিএম) পরিবর্তে ২০১৩-১৪ অর্থবছরে রিকোয়েস্ট ফর কোটেশন (আরএফকিউ) পদ্ধতিতে প্রায় ২৫ লাখ টাকার মালামাল কেনা হয়। নির্দিষ্ট কয়েকজন ঠিকাদারকে দিয়ে বিভিন্ন মেরামত ও প্রকিউরমেন্ট কাজ সম্পন্ন করা হয়। বিধি মোতাবেক নিয়মিত আইন উপদেষ্টা নিয়োগ না করে হাইকোর্টের একজন আইনজীবীকে বার্ডের খণ্ডকালীন আইন উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়।

দুদকে আসা অভিযোগে বলা হয়েছে মসিউর রহমানের অনিয়ম, দুর্নীতি ও ঘুষের টাকায় যেসব সম্পদ করা হয়েছে তার বেশির ভাগই তার ভাই, ভাইয়ের স্ত্রী, ছেলেমেয়ে ও শ্বশুরের নামে করা হয়েছে। এ ছাড়া অভিযোগে আরো বলা হয়েছে, মসিউর রহমান তার চাকরি জীবনে অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে নামে-বেনামে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া এলাকায় বহু জমিজমা কিনেছেন।

নয়াদিগন্ত

Leave a Reply