মুন্সীগঞ্জবাসী চোরের উপদ্রপে আতঙ্কিত!

পুলিশের ভূমিকা রহস্যজনক!
শেখ মো. রতন: মুন্সীগঞ্জের চোরের উপদ্রবে আতঙ্কিত শহর-শহরতলির এলাকাবাসী। দিন-দিন বেড়েই চলেছে চুরি। চোরের সংঘবদ্ধ দল দিনে-দুপুরেই চুরি করে মালামাল নিয়ে সটকে পড়ছে।

ইতিমধ্যে গত এক মাসে সদর থানার অদূরে হাসপাতাল রোডের বাগমামুদালীপাড়া, জেনারেল হাসপাতালের সামনের ওষুধ পট্টি, সদর থানা সংলগ্ন ছবিঘর সিনেমা হলের কালিবাড়ি রোড, সদর রোডের বাজার এলাকা, দেওভোগ ও মানিকপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় ওষুধের দোকান, স্বর্ণের দোকান, মুদি দোকানসহ বিভিন্ন স্কুলসহ বাসা-বাড়িতে বেশ কয়েকটি সদর থানার নাকের ডগায় দুর্ধর্ষ চুরির ঘটনা ঘটেছে।

এসব ঘটনায় চোরেরা বসত ঘরের টাকা-স্বর্ণালঙ্কার, ওষুধসহ কয়েক কোটি টাকার মালামাল নিয়ে গেছে। কিন্তু এসব চুরির ঘটনায় পুলিশকে একাধীকবার জানানো হলেও রহস্যজনকভাবে কোনো কার্যকরী পদক্ষেপ না নেওয়ায় চুরির ঘটনা দিনদিন বেড়েই চলছে।

এদিকে, সর্বশেষ বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১ টার দিকে জেনারেল হাসপাতাল সংলগ্ন বাগমামুদালী পাড়ার একটি দ্বিতল ভবনে দুর্ধর্ষ চুরির ঘটনা ঘটে। এলাকার নিতাই হাজরার বাড়িতে চোরেরা বাড়ির গ্রিল কেটে ভেতরে প্রবেশ করে কাঠের আলমারি ভেঙ্গে নগদ ৮০ হাজার টাকা ও পাঁচ ভরি সোনারগহনা নিয়ে যায়।

এ প্রসঙ্গে, বাড়ির মালিক নিতাই হাজরা জানান, তিনিসহ বাড়ির নিচতলায় রাতের খাবার খাচ্ছিলেন। খাবার শেষে নিতাই হাজরা দ্বিতীয় তলায় গিয়ে দেখেন ঘরের দরজা ভাঙ্গা। ভেতরে ঢুকে দেখেন আলমারি ভেঙ্গে নগদ টাকা ও সোনারগহনা নিয়ে গেছে চোরেরা।

এ ছাড়াও গত ৫ ই মার্চ একই এলাকার অ্যাডভোকেট শাহাবুদ্দিনের বাড়িতে কলাপসিবল গেট ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে চোরেরা ১৮ ভরি স্বর্ণালঙ্কার চুরি করে নিয়ে যায়।

এ ঘটনার পরদিন সদর থানা-পুলিশকে জানালে সদর থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই শফিকুল ইসলাম কোনো যথাযথ ব্যাবস্থা না নিয়ে উল্টো ভুক্তভোগীদের সঙ্গে অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ করে তাদের থানা থেকে লাঞ্চিত-অপমান করে থানা করে বের করে দেওয়া হয় বলে সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন ভূক্তভোগী সালেহীন হাসান।

এ ঘটনার পর ভূক্তভোগী সালেহীন হাসান অভিযোগ করে বলেন, ‘সদর থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই শফিকুল ইসলামের সঙ্গে একটি সংঘবদ্ধ চোরের দল সখ্যতা থাকতে পারে। নয়তো চোরেরা নির্বিঘ্নে এসব চুরি করে বেড়াচ্ছে। আর পুলিশ এসব ঘটনায় রহস্যজনক ভূমিকা পালন করছে।’

এর আগে গত ২৫ শে মার্চ রাতে মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার মুন্সীরহাট বাজারে শাহজালাল স্টোর নামে মুদি দোকানের উপরের টিন কেটে ভিতরে প্রবেশ করে এক চোর। পরে সিন্দুকের তালা ভেঙ্গে ১০ লাখ ও ক্যাশ বাক্স ভেঙ্গে ২ লাখ টাকা ছালার ব্যাগে ভর্তি করে চোর। ওই মুদি দোকানের সিসি ক্যামেরায় চুরির সময়কার এক দৃশ্য ধরা পড়ে। ওইদিন রাত ১০ টা ১৩ মিনিট থেকে ১০ টা ২৭ মিনিট পর্যন্ত মুদি দোকানে চুরির ওই অপারেশন চালায় একজনমাত্র চোর। সিসি ক্যামেরায় চুরির এসব দৃশ্য পুলিশের ঊর্ধতন কর্মকতাদের দেখানো হলেও ওই চোরকে পুলিশ-প্রশাসন রহস্যজনক কারণে এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে নারায়ণগঞ্জের এক ডিবি পুলিশ সদস্য জানিয়েছেন, বর্তমান সদর থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই শফিকুল ইসলাম মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় আসার আগে সে নারায়ণগঞ্জে ডিবি পুলিশে দীর্ঘদিন চাকরিরত ছিলেন। সেখানে তার একটি চোরের সংঘবদ্ধ দল ছিল।

এভাবে পুলিশ প্রশাসনের রহস্যজনক অসহযোগীতার কারণে বাগমামুদালী পাড়াসহ গোটা শহরে বস-বাসকারীরা আতঙ্কের মধ্যে দিন-রাত যাপন করছেন। প্রতিনিয়ত এ এলাকায় চুরির ঘটনা হতে থাকায় সাধারণ মানুষ ভূগছে চরম নিরাপত্তাহীনতায়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল খায়ের ফকির জানান, শহরের বিভিন্ন এলাকাগুলোতে প্রায়শই চুরির ঘটনা ঘটছে। তবে কে বা কারা এ চুরির সঙ্গে জড়িত তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

মুন্সীগঞ্জের শহর-শহরতলিতে চুরির ঘটনায় সদর থানার পুলিশ সদস্যরা জড়িত আছে কিনা সাংবাদিকদের এমন এমন প্রশ্ন করলে ওসি জানান- এসব চুরির ঘটনায় পুলিশের সেকেন্ড অফিসার এস.আই শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে গোপনভাবে তদন্ত করা হবে। তদন্তে চোরের সঙ্গে ওই পুলিশ সদস্যের সখ্যতা থাকার সত্যতা পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা করা হবে বলে।

রাইজিংবিডি

Leave a Reply