জাপান : সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের নামে আদম পাচারের চেষ্টা

রাহমান মনি: অবশেষে ভেস্তে যেতে বসেছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের নামে জাপানে আদম পাচারের রমরমা ব্যবসা। আর এর মূল কারণ একটি সাহসী প্রতিবেদন। মাছরাঙা টেলিভিশনের বিশেষ প্রতিনিধি বদরুদ্দোজা বাবুর একটি অনুসন্ধানী সাহসী এবং সময়োপযোগী প্রতিবেদন প্রচারিত হয় ২২ মার্চ ২০১৫।

মাছরাঙা টিভিতে প্রচারিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায় মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে জাপানে ‘ওহফবঢ়বহফবহপব উধু ঋধরৎ ২০১৫’ নামে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের নামে ১৭১ সদস্যবিশিষ্ট একটি সংস্কৃতি প্রতিনিধি দল জাপান আগমনের কাজটি প্রায় সম্পন্ন করে এনেছিল একটি মহল। আর এই ১৭১ সদস্যবিশিষ্ট প্রতিনিধি দলের মধ্যে শিল্পী, কলাকুশলী এবং যন্ত্রী মিলে সর্বসাকুল্যে মাত্র ৩০ জন। আর বাকি ১৪১ জনই হলো আদম। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান নামে এই আদম পাচারে প্রতিজন আদম থেকে নেয়া হয়েছে গড়ে ১৫ লাখ টাকা করে। আর বিশাল অঙ্কের এই টাকার ভাগ প্রভাবশালী রাজনীতিবিদ, শিল্পী, রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী এবং দেশের স্বনামধন্য একজন ক্রিকেটার ও জাপানের একজন দালালসহ অনেকে।

আগামী ১১ ও ১২ এপ্রিল অনুষ্ঠিতব্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের জন্য স্থানীয়ভাবে একটি হলও ভাড়া নেয়া হয় এবং ১৭১ জন সদস্যের থাকার জন্য স্থানীয়ভাবে জাপানে হোটেল ইম্পেরিয়াল বুকিং দেয়া হয়। বিশাল এই আয়োজনের দায়িত্বে রয়েছে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি ‘ফেয়িস্টা ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড’ নামক একটি কোম্পানি। যার চেয়ারম্যান হলেন বিশ্বসেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান এবং প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক নকিব চৌধুরী। এই নকিব চৌধুরী জাপানের একজন দালাল ইয়োশিমাসা নিনোমিয়া যিনি নিজেকে চিওদা পলিটিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক সোসাইটির চেয়ারম্যান দাবি করেন, তার সঙ্গে ভাগ বাটোয়ারার মাধ্যমে আদম পাচারের মতো কাজের সঙ্গে জড়িত হয়ে যান।

জাপানে প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী এমডি এস. ইসলাম নান্নু, বাদল চাকলাদার, জাপান আওয়ামী লীগ সভাপতি সালেহ মোঃ আরিফ, জাপান বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মীর রেজাউল করিম রেজা, টোকিও বৈশাখী মেলা আয়োজক কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ড. শেখ আলীমুজ্জামান, ক্রীড়া প্রতিবেদক আশরাফুল ইসলাম শেলী, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব যেরোম গোমেজ, দশদিক সম্পাদক সানাউল হক, ব্যবসায়ী মনির হোসেন কর্নেল তাদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, বর্তমানে জাপান-বাংলাদেশ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক খুবই চমৎকার এবং বন্ধুত্বপূর্ণ। এমতাবস্থায় ২/৪ জন কুচক্রীর জন্য জাপানে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ধুলায় মিশে যাবে এ হতে পারে না। যেসব লোক প্রবাসী সমাজে আদম বেপারি হিসেবে পরিচিত, সমাজে কোনো স্থান নেই, অবদানও নেই এমনকি প্রবাসীদের দ্বারা কোনো আয়োজনেও এদের আনাগোনা চোখে পড়ে না, তাদের হীনস্বার্থের জন্য বন্ধুত্বপূর্ণ দুই দেশের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক প্রশ্নের মুখে পড়বে তা মেনে নেয়া যায় না কোনোমতেই।

প্রবাসীরা মনে করেন আগামী ২০১৯ বিশ্বকাপ রাগবি’র আয়োজক জাপান, ২০২০ সালে বিশ্ব ক্রীড়ার মহাআসর অলিম্পিক এবং প্যারা অলিম্পিকের আয়োজক জাপান। এ আয়োজনকে বর্ণিল সাজে সজ্জিত করতে এবং তাদের জন্য আবাসন খাতে প্রচুর শ্রমের দরকার। কিন্তু এ বিপুল শ্রমিক জাপানে নেই। কাজেই এই খাতে জাপানকে বিদেশ থেকে শ্রমিক আনতে হবে। আর জাপানে বাংলাদেশি শ্রমিকদের রয়েছে ব্যাপক সুনাম, গ্রহণযোগ্যতা এবং বিশ্বস্ততা। কাজেই সম্ভাবনাময় এই খাতকে কতিপয় কয়েকজন লোভী মানুষের কারণে নষ্ট হতে দেয়া হবে বোকামি। প্রবাসী সমাজেই এদের বিচার করতে হবে। প্রয়োজনে জাপান থেকে বহিষ্কার করতে হবে।

একই দুষ্টচক্র গত ডিসেম্বর ২০১৪ ‘মহান বিজয় দিবস কনসার্ট’ আয়োজন নামে ৫২ জন আদম আনেন জাপানে। যাদের মধ্যে ৪০ জনই ছিল ভুয়া। বাকি ১২ জন কর্মকর্তা, শিল্পী-কলাকুশলী। নামকরা শিল্পীদের মধ্যে তখন আপেল মাহমুদ, এসময়ের ক্রেজ মিলা, হাসানসহ কয়েকজন মডেল ও নৃত্যশিল্পী ছিলেন। কনসার্ট করার নামে এসব শিল্পীকে জাপান আনা হলেও পূর্ব থেকে প্রবাসীরা কিছুই আঁচ করতে পারেননি। নামকাওয়াস্তে অখ্যাত একটি হল বুকিং দেয়া হলেও কোনো প্রচার ছিল না। দূতাবাসে (ভিসা প্রাপ্তির জন্য) জমা দেয়া হলেও জাপানে প্রবাসীদের দ্বারা পরিচালিত কোনো পোর্টালে তা দেয়া হয়নি। উল্লেখ্য, জাপানে প্রায় প্রতিটি আয়োজনেরই আগাম সংবাদ স্থানীয় পোর্টালগুলোতে দেয়া হয় এবং ঘোষণা দিয়ে আমন্ত্রণ জানানো হয়। দেশবিদেশওয়েবডটকম, বাংলাদেশটাইগার্সডটকম, দশদিকডটকম, নিহনবাংলাডটকমসহ আরও কয়েকটি পোর্টালে তা প্রচার করা হয়। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত বিজয় দিবস কনসার্ট এবং স্বাধীনতা দিবস ফেয়ার নামে যে দুটি আয়োজনের নামে আদম পাচারের ব্যবস্থা করা হয় তার কোনো পোস্টার, প্রচার চোখে পড়েনি প্রবাসীদের। এমনকি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক কিংবা টুইটারেও প্রচার করা হয়নি।

ডিসেম্বর আয়োজনে একজন প্রতিমন্ত্রীও (প্রাক্তন) এসেছিলেন আদম বহরে। তিনি নিজেই নেতৃত্ব দিয়ে সঙ্গে করে নিয়ে এসেছিলেন ৫১ জনকে। তাদের রেখে তড়িঘড়ি করে দেশে ফেরত যান ব্যস্ততার কথা বলে। অথচ সেই সফরটি তার সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত সফর ছিল। কোনো অনুষ্ঠান না হওয়াতে টোকিওর বাইরে সাইতামার একটি হোটেলে শিল্পীরা অলস সময় পার করার পর আদম সন্তানদের রেখে নিজেরা অনেকটা ক্ষোভ নিয়ে দেশে চলে যান। সেই সময় স্থানীয় কয়েকজন প্রবাসী, শিল্পীদের দেখভালের দায়িত্ব পালন করেন। তাদের একজন সাইতামার শিনমাৎসুদো রেস্তোরাঁ ব্যবসায়ী এবং সংস্কৃতিকর্মী বাবু ঢালী। এই বাবু ঢালী প্রথম থেকেই বিষয়টির সঙ্গে জড়িত বলে প্রবাসীরা মনে করেন।

গত ২২ মার্চ বিকেলে টোকিওর মাচিয়া বুনকা সেন্টারে জাপান শাখা আওয়ামী লীগের কার্যকরী পরিষদের এক সভা এবং পরে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও স্বাধীনতা দিবসের ওপর এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় আওয়ামী লীগ সভাপতি সালেহ মোঃ আরিফ বেশ উষ্মার সঙ্গে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যেখানে সন্ত্রাস মোকাবিলায় সঠিক পদক্ষেপ নিয়ে সার্বিক পরিস্থিতি সামাল দিয়ে দেশের ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধারে ব্যস্ত এবং বিদেশে মিশনগুলোতে নির্দেশনা দিয়েছেন সবকিছুই সরকারের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে প্রচার চালাতে, সেখানে জাপানসহ বিশ্বের অনেক দেশেই এখন বাংলাদেশিরা নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরে রাজনৈতিক কিংবা উদ্বাস্তু ভিসার জন্য আবেদন জানাচ্ছেন। অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্যি এর সঙ্গে অনেক আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীও জড়িত। অর্থের লোভে এসব সুবিধাভোগীরা দল, সরকার তথা দেশের স্বার্থ বিসর্জন দিচ্ছেন। আওয়ামী লীগ সরকার কর্তৃক নির্যাতিত হয়ে তারা ফেরারি জীবনযাপন করছেন বলে এই জাপানেই রিফিউজি ভিসার জন্য বেশ কিছু আবেদন পড়েছে। যার মধ্যে গত ডিসেম্বরে আসা আদমদের সংখ্যাও কম নয়।

একই দিন কিতা সিটি হিগামি জুজোতে এক প্রতিবাদ সভায় বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মীর রেজাউল করিম রেজা বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার যে স্বৈরাচারী, তাদের ভয়ে কেবল বিরোধী মত-ই শুধু নয়, আপামর জনসাধারণ যে ভীত তার প্রমাণ তারা নিজেরাই। এই জাপানেই আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের হামলার শিকার হয়ে দেশ ত্যাগ করে এসেছেন এবং রিফিউজি ভিসায় আবেদন করেছেন তার প্রমাণ রয়েছে। নিজেদের কর্মীদেরই তারা ভুক্তভোগী সাজিয়ে এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র তৈরি করে এসব আবেদন জানাচ্ছেন।

জাপানে প্রবাসীদের দ্বারা পরিচালিত মূলত ২টি অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ থেকে অতিথি/শিল্পী এনে নিয়মিতভাবে অনুষ্ঠান পরিচালনা করা হয়। তার একটি টোকিও বৈশাখী মেলা এবং অপরটি প্রবাস প্রজন্ম জাপান।

তার মধ্যে আউটডোর প্রোগ্রামের মধ্যে টোকিও বৈশাখী মেলা আয়োজন হচ্ছে সবচেয়ে বড় আয়োজন। প্রায় ৬/৭ হাজার প্রবাসী বাংলাদেশিদের উপস্থিতিসহ এই মেলায় ১০ হাজারেরও বেশিসংখ্যক অতিথির পদচারণ ঘটে এই মেলায়। শুধু বিনোদন ও বাংলাদেশীয় সংস্কৃতি তুলে ধরার জন্য এই মেলাতে বাংলাদেশ থেকে কণ্ঠশিল্পীদের আমন্ত্রণ জানিয়ে আনা হয় পারিশ্রমিকের বিনিময়ে।

অপরদিকে ইনডোর প্রোগ্রামের মধ্যে সবচেয়ে বড় আয়োজন হচ্ছে প্রবাস প্রজন্ম জাপান। আয়োজনটি জাপানে দুই প্রজন্মের মিলনমেলা হিসেবে খ্যাত। প্রবাসে বেড়ে ওঠা শিশু-কিশোরদের জীবনে মননে বাংলা সংস্কৃতি, ভাষা ও কৃষ্টি শেখানোই হচ্ছে এর মূল উদ্দেশ্য। শিশু-কিশোরদের উৎসাহ দেয়ার জন্য বাংলাদেশ থেকে স্ব স্ব ক্ষেত্রে স্বনামধন্যদের আমন্ত্রণ জানিয়ে সম্মাননা দেয়া হয়। কোনো সম্মানী নয়।

দুইটি আয়োজনেই এই পর্যন্ত যিনি বা যারা এসেছেন তারা সবাই আবার অনুষ্ঠান শেষে চলে যাচ্ছেন এটাই রীতি এবং নীতি। এখানে আদম ব্যবসার কোনো অভিলাষ নেই। কিন্তু হঠাৎ করে একটি প্রোগ্রাম (গোপনে) ডেকে আদম ব্যবসার অভিযোগে জাপান প্রবাসীরা ক্ষুব্ধ হয়েছেন। তাই প্রতিবেদনটি প্রচার পাওয়ার পর মুহূর্তের মধ্যেই আন্তর্জালের মাধ্যমে তা ছড়িয়ে পড়ে। প্রবাসীরা ক্ষোভে ফেটে পড়েন।

যাদের নাম এসেছে প্রতিবেদনটিতে অভিযুক্ত হিসেবে তাদের সবার সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়েছে। রিপোর্ট তৈরির স্বার্থেই যোগাযোগের চেষ্টা।

তাদের মধ্যে নেওয়াজ শরীফ আত্মপক্ষ সমর্থন করে বলেন, মাছরাঙা টেলিভিশনে প্রচারিত প্রতিবেদনটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। আমাদের কাজে ঈর্ষান্বিত হয়ে কেউ হয়ত এই কাজটি করিয়েছেন। অথবা প্রতিবেদক কারও প্ররোচনায় বা অর্থের বিনিময়ে কাজটি করেছেন। আমরা সম্পূর্ণ স্বচ্ছতা বজায় রেখেই সবকিছু করি। খুব শীঘ্রই আপনি তা দেখতে পাবেন। আমরা কাজে তার প্রমাণ দেখিয়ে দেব।

কিন্তু এর পেছনে আদম পাচার যে জড়িত এটা তো নিশ্চিত। গত ডিসেম্বরেও তো আপনারা আদম পাচার করেছেন যাদের মধ্যে প্রায় ৩৫ জন এখন জাপানে অবস্থান করছেন এবং অনেকেই রিফিউজি ভিসার জন্য আবেদন করেছেন এমন প্রশ্নের জবাবে কিছুটা অপ্রস্তুত হয়ে তিনি বলেন, আমরা যা করি বৈধভাবেই করি, স্বচ্ছতার মাধ্যমেই করি। অচিরেই বিষয়টি খোলাসা হবে বলে তিনি ফোন কেটে দেন।

অভিযুক্ত জাপানি ব্রোকার ইয়োশিমাসা নিলোমিয়া টেলিফোনে বলেন, এই বিষয় আমি কিছুই জানি না। তিনি প্রতিবেদককে তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে ফোন করার জন্য বিভিন্ন প্রশ্নবাণে জর্জরিত করেন। সাংবাদিক পরিচয় দিলে তিনি কোনো সাংবাদিকের সঙ্গে কথা বলবেন না বলে জানান। হলটি তো আপনার নামেই নেয়া এবং আপনি নিজেই তা বুকিং দিয়েছিলেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলব না বলেই লাইন কেটে দেন।

টোকিওর অদূরে সাইতামা প্রিফেকচারের কাওয়াগুচি সিটির শিবা শিমিন হল থেকে জানানো হলো নিলোমিয়া নামের একজন হলটি বুকিং দিয়ে এর ভাড়া পরিশোধ করেন। কিন্তু আজও তিনি জানাননি এখানে কী করা হবে। তিনি কোনো যোগাযোগ করেননি। এদিকে নির্দিষ্ট দিনক্ষণও চলে আসছে।

অন্যতম অভিযুক্ত আবুল খায়েরের একাধিক ফোন নাম্বারে যোগাযোগ করেও কোনো সদুত্তর পাওয়া যায়নি। পরে তিনি দুইটি নাম্বার বন্ধ করে দেন। অপরটি রিং হলেও তিনি ফোন ধরেন না।

গত আগস্ট ২০১৪ জনৈক শিপিং ব্যবসায়ী (চট্টগ্রামের) জাহাজের খালাশি হিসেবে ১৬ জন বাংলাদেশিকে জাপানে পাচার করতে সক্ষম হন। পোর্ট থেকে জাহাজ ছেড়ে যাওয়া পর্যন্ত ১৪ দিনের একটি পারমিশন দিয়ে জাপান দেখার অনুমতি দেয়া হয়। কোনোরূপ ভিসা বা পাসপোর্টে কোনো সিল নয়। শুধু পারমিশন। অনুমতি পাওয়ার পর তারা জাপান প্রবেশ করে যে যার যার মতো ছড়িয়ে পড়ে এবং রিফিউজি ভিসার জন্য আবেদন জানান এদের মধ্যে ১৫ জন। একজন শুধু তার নিকটজন (চিবা কেন-এ) এর পরামর্শমতো তার কাছে চলে যান কোনো আবেদন ছাড়াই।

ইমিগ্রেশন তাদের আবেদন গ্রহণ করে এবং পরবর্তীতে হাজিরা থাকায় নির্দেশনা দেন। এরই মধ্যে ইমিগ্রেশন ভিন্ন ভিন্নভাবে তাদের হাজিরা নিয়ে বিভিন্ন কথা বলে এবং শুনে পরবর্তীতে নির্দিষ্ট একটি দিনে সবাইকে উপস্থিত থেকে হাজিরার নির্দেশনা দেয়। এরই মধ্যে তারা যাবতীয় খোঁজ নেয়। আবেদনকারীদের মধ্যেও একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে একই দিন হাজিরার কথাটি জানতে পারে। তারা একসঙ্গে জাহাজে করে আসার কারণে কিছুটা বন্ধুত্বও হয়ে যায়। যেহেতু তারা একইসঙ্গে এসেছে এবং একই আবেদন করেছে তাই একই দিনে হাজিরা দেয়ার বিষয়টিকে স্বাভাবিকভাবে নিয়ে বরং অনেকদিন পর আবার একসঙ্গে দেখা হওয়ার আনন্দে এক ধরনের পুলকিত হতে থাকেন। দেখাও তাদের হয়েছে টোকিও সেন্ট্রাল ইমিগ্রেশন ঝুপ্লেতে। একেবারে জাপান সরকারের আনুকূল্যে তারা সবাই এখন রাষ্ট্রীয় অতিথি হিসেবে ইমিগ্রেশন সেল-এ আপ্যায়িত হচ্ছেন। বের হওয়ার কোনো সম্ভাবনাই নেই শুধু দেশে ফেরত যাওয়া ছাড়া। এভাবেই তাদের স্বপ্নের সমাধি ঘটে।

জাপান প্রবাসীরা মনে করে জাপানে প্রতিদিন অনুষ্ঠান হোক, দেশ থেকেও নামীদামি শিল্পী আসুক, এটা তাদের বাড়তি পাওয়া। একদিকে অনুষ্ঠান উপভোগ অপরদিকে শিল্পীদের সান্নিধ্য এ যেন মেঘ না চাইতেই বৃষ্টি পাওয়ার মতো। কিন্তু কোনোরূপ অনুষ্ঠানের আয়োজন না করে শিল্পী আনার নামে আদম পাচার কোনোভাবেই গ্রহণীয় নয়। কিছুতেই তা মেনে নেয়া যায় না। এতে করে এতদিন গড়ে ওঠা ভাবমূর্তি তো নষ্ট হবেই, সেই সঙ্গে ভবিষ্যতে যারা সত্যিকারের আয়োজন করবেন তাদের জন্য কঠিন হয়ে যাবে শিল্পীদের ভিসা পাওয়ার বিষয়টি। জাপান প্রবাসীরাও বঞ্চিত হবে বিনোদন থেকে।

প্রবাসীরা মনে করেন, জাপান-বাংলাদেশ উভয় দেশেরই উচিত তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের আইনের আওতায় আনা। যেহেতু উভয় দেশের ব্রোকারদের নাম এসেছে তাই দুই দেশকেই পদক্ষেপ নিতে হবে।

দূতাবাসেরও জানা নেই বলে দায়িত্ব এড়াবার কোনো পথ নেই। গত ডিসেম্বর এ ঘটনায় একজন প্রাক্তন প্রতিমন্ত্রী জাপান সফর করলে দূতাবাস তো ঠিকই সর্বাত্মক সহযোগিতা করেছে, প্রটোকল দিয়েছে। কিন্তু ওইটা তো কোনো সরকারি সফর ছিল না। ছিলেন না তিনি ক্ষমতায়। একজন প্রাক্তন প্রতিমন্ত্রী। তাও আবার প্রবাসীকল্যাণ কিংবা পররাষ্ট্র বিষয়কও নয়, তবে কেন এই প্রটোকল, কেন এই আতিথেয়তা? কাজেই রাষ্ট্রদূত মাসুদ-বিন-মোমেনের জানা নেই বলে এড়িয়ে যাবার কোনো সুযোগ নেই। ১৭১ জনের বিষয়টি তার কানে দেয়া হয়েছিল। কি ব্যবস্থা নিয়েছিলেন তিনি? আর যদি না জানার ভান করেন তাহলে তিনি তো প্রবাসীদের সব আয়োজনেই অংশগ্রহণ করে থাকেন। ২ দিনব্যাপী একটি আয়োজনে যেখানে ১৭১ জন অংশ নেবে সেটা না জানাটাও এক ধরনের ব্যর্থতা নয় কি?

এর আগেও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের নামে জাপানে আদম পাচার কেলেঙ্কারি ঘটেছে। বাংলাদেশ থেকে ভিসা সংগ্রহের পরও অনেক নামীদামি শিল্পীকে জাপানের বিমানবন্দর থেকে অভিবাসন বিভাগের নজরদারিতে পড়ে নকুল বিশ্বাস, বেবী নাজনীন, মমতাজ বেগম কিংবা হানিফ সংকেতের মতো প্রতিথযশা ব্যক্তিকেও হয় ফেরত যেতে হয়েছে নতুবা নাজেহাল হতে হয়েছে নজরদারির কারণে।

যখনই এমন কোনো ঘটনা প্রকাশ পেয়ে যায় তখনই শিল্পীরা আদম পাচারের ঘটনা তাদের জানা নেই বলে এড়িয়ে যান। কিংবা সাকিব আল হাসানদের মতো লোকেরাও অস্বীকার করে পাশ কাটান। এ কারণেই প্রশ্ন জাগে, তারা যেসব অনুষ্ঠানে যান কিংবা চেয়ারম্যানের পদ অলংকৃত করে ধন্য বনে যান, তারা কি ওইসব আয়োজন কিংবা প্রতিষ্ঠানের কোনোই খোঁজখবর রাখেন না, এটা কি বিশ্বাসযোগ্য? জনগণ কি এতটাই বোকা?

rahmanmoni@gmail.com
সাপ্তাহিক

Leave a Reply