ট্রলার দুর্ঘটনায় মামলা, এখনও চলছে নিখোঁজের সন্ধান

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার ভাসানচরের কাছে মেঘনা নদীতে বাল্কহেডের সঙ্গে যাত্রীবাহী ট্রলারের সংঘর্ষের ঘটনায় নৌযান দুটির চালকসহ মালিক ও কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। এদিকে বুধবার রাতের এ ঘটনায় নিখোঁজের সন্ধানে শনিবার সকাল থেকে আবারও নদীতে তল্লাশি শুরু হয়েছে।

গজারিয়া থানার ওসি ফেরদৌস হোসেন সাংবাদিকদের জানান, বাল্কহেড-ট্রলার সংঘর্ষের ঘটনায় শুক্রবার রাতে থানার এসআই এসআই দিদারুল আলম বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন।

“মামলায় ‘বাবা-মায়ের দোয়া’ নামের বাল্কহেড ও দুর্ঘটনা কবলিত ট্রলার এই দুটি নৌযানের চালক, মালিক ও কর্মীদের অজ্ঞাত পরিচয় দেখিয়ে আসামি করা হয়েছে।”

তবে আসামিদের কারও নাম পরিচয় উল্লেখ করা না হলেও নৌযান দুটির মালিকদের শনাক্ত করে আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

বুধবার রাত ৮টার দিকে ঝড়বৃষ্টির মধ্যে ‘মা-বাবার দোয়া’ নামের একটি বাল্কহেডের সঙ্গে অন্তত ৭৫ আরোহী বহনকারী ট্রলারের সংঘর্ষ হয়। এরপর বেশ কয়েকজন যাত্রী নিখোঁজ হন।

দুর্ঘটনার পর রাতেই ফায়ার সার্ভিস, নৌ পুলিশ ও কোস্টগার্ড উদ্ধারে নামে। শুক্রবার পর্যন্ত এ ঘটনায় পাঁচজনের লাশ উদ্ধার করা হয়, যাদের মধ্যে পরিচয় শনাক্ত হওয়ার পর চারজনের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ।

এছাড়া দুর্ঘটনাস্থলের কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া আরেকটি লাশ বেশি পচে যাওয়ায় এই দুর্ঘটনার নয় বলে ধরে নিয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

এখনও পরিচয় মেলেনি বালুবাহী বাল্কহেডের মাথায় গেঁথে যাওয়া ব্যক্তির, দুর্ঘটনার পরপরই যার লাশ উদ্ধার করা হয়েছিল।

লাশটি বাউশিয়া ঘাটে রাখা হলেও কোন স্বজন না পাওয়ায় এবং দুর্গন্ধ ছড়ানোর কারণে ছবি তুলে রেখে শনিবার সকালে মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, পুলিশের সর্বশেষ তালিকা অনুযায়ী বাউশিয়া এলাকার মো. ফয়েজ (১৬) নিখোঁজ রয়েছেন।

তবে এই সংখ্যা বেশিও হতে পারে ধারণা করে শনিবার সকাল থেকে আবারও উদ্ধার তৎপরতা শুরু হয়েছে বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তা মাসুদ হোসেন।

বিডিনিউজ

Leave a Reply