বর্ষবরণে মুখুর হয়ে উঠেছে শ্রীনগরের পাল পাড়া

আরিফ হোসেন: পহেলা বৈশাখকে সামনে রেখে শ্রীনগরের পালপাড়া গুলো এখন মুখর হয়ে উঠেছে । পাল পাড়ার প্রতিটি বাড়িতেই চলছে সাজ সাজ রব। পাল বাড়ি গুলোর শোবার ঘর থেকে রান্না ঘরের প্রতিটি কক্ষই এখন মাটির তৈরি বাঘ, ভাল্লুক, ঘোড়া, জিরাফ, কুমির, বৌ-পুতুল সহ নানা রকম খেলনা দিয়ে ঠাসা।

গত মঙ্গলবার উপজেলার ষোলঘর,তন্তর,হাঁসাড়া ও শ্রীনগর এলাকার পালপাড়া গুলোতে গিয়ে দেখা যায়, পাল বাড়ি গুলোর নারী-পুরুষ থেকে শুরু করে শিশু-বৃদ্ধরা পর্যন্ত ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন মাটির খেলনা তৈরির কাজে। বাড়ির কর্মক্ষম প্রতিটি সদস্যের একেকজন একেক রকম কাজ নিয়ে ব্যস্ত। কারো সাথে একটু কথা বলার ফুসরত নেই তাদের। কেউ মাটি নিয়ে বারবার ময়ান করে তা মিহি করছেন। কেউ ছাচে নিয়ে খেলনা তৈরি করে তা রোদে শুকাতে দিচ্ছেন। পুুরুষদের একটি অংশ খেলনা গুলো আগুনে পোড়ানোর জন্য খর-কুটোর জ্বালানী দিয়ে কুন্ডলী সাজাতে ব্যাস্ত। পরিবারের বয়সে ছোট এমন সদস্যরা ব্যস্ত আগুনে পোড়ানো খেলনায় রং করার কাজে। পরিবারের বাহিরে বাড়তি কাজের চাপ সামলাতে মজুরী হিসাবে লোক নিয়োগ করা হয়েছে অনেক বাড়িতে। আবার কোন কোন বাড়িতে বিবাহিত মেয়েদেরকে বাবার বাড়িতে নাইয়র এনে কাজ লাগানো হয়েছে।

প্রতি বছরই বৈশাখকে সামনে রেখে এসময় রাজধানী ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন স্থানের পাইকাররা এখানে আসেন খেলনা ও মাটির তৈরি বিভিন্ন সরঞ্জাম কিনতে। তাই সারা বছর এখানে কাজের তেমন চাপ না থাকলেও বৈশাখকে সামনে রেখে পুরো চৈত্র-বৈশাখ মাস জুরে চলে ব্যস্ততা। অর্ডার অনুযায়ী খেলনা সরবাহ করার জন্য দিন-রাত কাজ চলে এখানে। একাজে বাড়তি শ্রমিক নিয়োগের সুযোগ কম বলে জানান ষোলঘর এলাকার দিনেশ পাল (৭৮)। তিনি বলেন পুরো কাজটাই একটা শিল্প। অভিজ্ঞতা না থকলে একাজ করা সম্ভব নয়। আমাদের ছেলে-মেয়েরা দেখে দেখেই একাজ শিখে ফেলে। অন্যরা এসে হুট করে খেলনা তৈরি করতে পারেনা। তাই বৈশাখ এলে পরিবারের সদস্যদের উপর চাপ বাড়ে। কাজে সাহাজ্য করার জন্য অন্য কাজের সাথে সম্পৃক্ত এমন পরিবারের সাথে বিয়ে দেওয়া মেয়েরা বেড়াতে এসে তারা পরিবারের দৈনন্দিন কাজে সাহাজ্য করে। তিনি হাসতে হাসতে বলেন, এজন্য নাইয়র আসা মেয়েদের কোন পারিশ্রমিক না দেওয়া হলেও কাজ শেষে বাবার বাড়ি থেকে শশুড় বাড়ী যাওয়ার সময় তাদেরকে নতুন কাপড় দেওয়া হয়।

একই এলাকার অঞ্জন পালের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় শত ব্যস্ততার মাঝেও চলছে নিজেদের ঘর-দুয়ার ধোয়া মোছার কাজ। তৈরি হচ্ছে মুড়ি-মুরকি। ছেলে মেয়েদের জন্য কেনা হয়েছে নতুন পোষাক।

অঞ্জন পাল (৫০) জানান, সারা বছর ধরে তাদের ছেলে মেয়েরা এসময়টির অপেক্ষায় থাকে। বড়তি আয় থেকে পরিবারের সকল সদস্যদেরকে নতুন কাপড় কিনে দেওয়ার রেওয়াজ অনেক দিন ধরে চলে আসছে।

উল্টো চিত্র দেখা যায় কার্তিক পালের (৫৫) বাড়িতে গেলে তিনি খুপরি ঘরে খেলনার স্তুপ দেখিয়ে তিনি বলেন এগুলো বিক্রি করে সারা বছরের দেনা শোধ করতে হবে। এবছর ছেলে মেয়েদের নতুন কাপড় দেওয়া হবেনা।

শ্রীনগর পাল পাড়ার বাবুল পাল (৬০) জানান, শত বছর ধরে শ্রীনগর এলাকার পাল সম্প্রদায় মাটির তৈরি হাড়ি-পাতিল ও খেলনা তৈরির কাজ করে আসছে। বর্তমানে অর্ধ শতাধিক পরিবার এ পেশায় নিয়োজিত থাকলেও প্লাষ্টিক দ্রব্যের কারণে এখন আর আগের মতো তাদের তৈরি খেলনা ও জিনিস পত্রের চাহিদা নেই। এ কারণে অনেকেই বাপ-দাদার পেশা ছেড়ে অন্য পেশায় ঝুকছেন। ষোলঘর এলাকার জনি পাল (৩৫) জানান, আগে দেড় থেকে দুশ পরিবার এ কাজের সাথে সম্পৃক্ত ছিল । এখন অনেকেই এপেশা ছেড়ে যাচ্ছেন। তিনি জানান, মাটি,লাকড়ী (জ্বালানী) ও রং এর দাম দিন দিন বাড়লেও সেই হারে তাদের তৈরি জিনিস পত্রের দাম বাড়ছেনা। একারনে সারা বছর ধরে তাদের লোকসান গুনতে হয়। শুধুমাত্র উৎসব কেন্দ্রিক ব্যবসা ধরে রাখা দায় হয়ে পড়েছে। তাদের মধ্যে যারা বিভিন্ন মূর্তি তৈরির কাজ করেন তারা কিছুটা ভাল আছেন বলে জানান পবন পাল (৭৫)। তিনি বলেন, দেশের সীমা ছাড়িয়ে ভারতেও তাদের ছেলেরা ঠাকুর (মুর্তি) বানাতে যান। মুর্তি তৈরির ক্ষেত্রে এখানকার পালদের সুনাম রয়েছে সর্বত্র।

বৃদ্ধা সন্ধ্যা রানী পাল (৭৫), মাঝ বয়সী মনখুশি পাল (৪৫), স্কুল ছাত্রী শেফালী পাল (১৬) জানান এসময় টানা দুই মাস তাদের নাওয়া, খাওয়া, ঘুম না থাকলেও পরিবারের বাড়তি আয়ে তারা খুশি। #

Leave a Reply