মিরাপাড়া মসজিদ ও মাজারের দানবাক্সের টাকা লুটের অভিযোগ

সদর উপজেলার মীরাপারা মসজিদ ও লাগঘেষা মীর সাহেবের মাজারের দানবাক্সের টাকা লুটের অভিযোগ উঠেছে। এই নিয়ে মুসল্লীদের চাপা ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে। মেট্রোসেম গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. শহীদউল্লাহ এটির বৈধ মোতয়াল্লি দাবী করে বলেন, সকালে বিলুপ্ত কমিটির মোতয়াল্লি মো. সফিউদ্দিনে নেতৃত্বে মাজারের গেটের তালা ভেঙ্গে প্রায় এক বছরের দান খয়রাতের টাকা নিয়ে গেছে। প্রতি বছর শুধুমাত্র মাজারের ভেতরেই ১২ থেকে ১৪ লাখ টাকা দান খয়রাত জমা হয়।

ওয়াকফ স্টেটের পরিদর্শক, স্থানীয় ইউএনও এবং মোতয়াল্লি এই তিন জনের কাছে তিনটি তালার চাবি থাকে। এককভাবে কেউ গেট খোলার কথা নয়। কিন্তু সফিউদ্দিন নিজেকে মোতয়াল্লি দাবী করে আকস্মিক এই তালা ভেঙ্গে টাকা নিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলে তারা পালিয়ে যায়।

অন্যদিকে মো. সফিউদ্দিন নিজেকে বৈধ মোতয়াল্লি দাবী করে তালা ভাঙ্গার কথা স্বীকার করে বলেন বলেন, “আদালতের নির্দেশে থাকা সত্ত্বেও মোতয়াল্লি চাবি দেয়নি। পরে ইউএনও’র চাবি নিয়ে কিছু তালা মেকার দিয়ে ভেঙ্গে টাকা গনার সময় পুলিশ আশে। পরে চলে আসি। এপর্যন্ত প্রায় ৪০ হাজার টাকা গননা হয়েছে। কাল আবার কমিটির লোকজন নিয়ে টাকা গননা হবে। ”

এদিকে মসজিদটির ক্যাশিয়ার সিরাজুল ইসলাম তালা ভাঙ্গে টাকা লুটের ঘটনায় সদর থানায় জিডি করেছেন। সদর থানার ওসি আবুল খায়ের ফকির অভিযোগ প্রপ্তির কথা উল্লেখ করে বলেন, এটি নিয়ে তদন্ত হচ্ছে।

মো. শহীদউল্লাহ জানান, ১৫ কোটি টাকার বাজেট করে ঐতিহ্যবাহী মিরাপারা মসজিদ কমপ্লেক্স তৈরীর প্রস্তুতি চলছিল। এই পরিকল্পনা বিনষ্ট করতেই স্বার্থান্বেষী মহল এই ঘটনা ঘটিয়েছে।

মুন্সিগঞ্জেরকাগজ
ছবিঃ সংগৃহিত

Leave a Reply