কাহালুতে অভিনব প্রতারণা: হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে লাখ লাখ টাকা

বগুড়ার কাহালু উপজেলার জামগ্রাম ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের প্রতারকচক্রকে কোনোভাবেই প্রতিরোধ করা যাচ্ছে না। চক্রটি কৌশল পরিবর্তন করে এখন সুন্দরী মেয়েদের দিয়ে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। মাঝে মধ্যে লোক দেখানো পুলিশি অভিযান চললেও নির্মূল হচ্ছে না প্রতারণা ব্যবসা।

এক সময় জামগ্রাম ইউনিয়নে বেশকিছু এলাকায় শিশু অপহরণ করে মোটা অঙ্কের মুক্তিপণ আদায় করত চক্রটি। পরে তারাই কৌশলে ব্যবসার ধরন পাল্টিয়ে সোনার মূর্তির নামে প্রতারণার জমজমাট ব্যবসা চালু করে। শুরুর দিকে দুই-একটি গ্রামে হাতেগোনা কয়েকজন অপরাধী এই কাজের সাথে জড়িত থাকলেও এখন জামগ্রাম ইউনিয়নের অধিকাংশ গ্রামসহ পাশের দুর্গাপুর ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি গ্রামে এই প্রতারণা ব্যবসা ছড়িয়ে পড়েছে। এই চক্রের সদস্যরা দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে রিকশাচালক বা শ্রমিকের কাজ করতে গিয়ে সেখানে এক শ্রেণীর লোভী ব্যবসায়ী ও বিত্তশালী ব্যক্তিদের সাথে সখ্যতা গড়ে তোলে তাদের মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে। এরপর মেয়েদের দিয়ে মোবাইলের মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে, এরই একপর্যায় তাদের বাড়িতে দাওয়াত করা হয়। আর এই সুবাদে কেউ এলেই সোনার মূর্তি দেয়ার কথা বলে নকল মূর্তি দিয়ে হাতিয়ে নেয় লাখ লাখ টাকা। এ ছাড়াও অল্প দামে মালামাল ও গরু কিনে দেয়ার কথা বলেও চক্রটি হাতিয়ে নেয় লাখ লাখ টাকা।

পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে লাগানো প্রতারকচক্রের নারী সদস্যদের ছবিসংবলিত সতর্কতামূলক পোস্টার ও বিলবোর্ড

কাহালু থানার ওসি সমিত কুমার কুণ্ডু এই থানায় যোগদানের পর প্রতারক চক্রের নারী সদস্যসহ বেশ কিছু সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করেন। তার পরও বন্ধ হয়নি প্রতারণা ব্যবসা। সম্প্রতি এই ধরনের প্রতারণা প্রতিরোধে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে একটি জনসভা করা হয়। ওই সভায় পুলিশ সুপার, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পাশাপাশি জনসচেতনামূলক বিলবোর্ড লাগানো হয়। কিন্তু কয়েক দিনের মধ্যেই এই বিলবোর্ডগুলো রাতের আঁধারে চক্রটি ভেঙে ফেলে।

গত শুক্রবার থানা পুলিশ বাটু লিটন নামক প্রতারক চক্রের এক সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর উপজেলার মহিষ বাতান গ্রামের আবদুল মজিদকে দাওয়াত করে নিয়ে এসে তার কাছ থেকে ১১ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে তাকে আটকে রেখে চার লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। এ ছাড়া মুন্সীগঞ্জ জেলার লোহজং উপজেলার মেদিনী মণ্ডল ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার আবদুল হালিমকে দাওয়াত করে এনে নকল স্বর্ণের মূর্তি দিয়ে হাতিয়ে নেয় প্রায় সাড়ে তিন লাখ টাকা।

নয়াদিগন্ত

Leave a Reply