টেলি সামাদের সময় কাটে শুয়ে বসেই

ত্রিকোণ গুণের অধিকারী রূপালী পর্দার জনপ্রিয় কমেডিয়ান অভিনেতা টেলিসামাদ প্রায় বছর খানেকের কাছাকাছি সময় ধরে অসুস্থ হয়ে বাসায় অবস্থান করছেন। তিনি এরমধ্যে সবধরনের অভিনয়ের ব্যস্ততা থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রেখেছেন। ২০১৪ সালের ২০ মে মাসে আমেরিকায় যান। দীর্ঘ চার মাস নিউইয়র্কে অবস্থান করার পর ২৫ সেপ্টেম্বর দেশে ফিরে আসেন। আসার পর তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ ছিলেন। গত ১ অক্টোবর তার পায়ের বুড়ো আঙুলে একটি ক্ষত দেখা দেয়। এরপর ১৮ অক্টোবর টেলিসামাদকে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু এরপর সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরলেও তিনি অভিনয়ে ফিরতে পারেননি। টেলিসামাদ এখন ডাক্তারের পরামর্শে নিয়মিত ঔষদ সেবন করছেন। এছাড়া শারীরিকভাবে তিনি বেশ দুর্বল অবস্থায় রয়েছেন। যার কারণে কোন ধরনের কাজ তিনি করতে পারছেন না।

তিনি সর্বশেষ মাহফুজ আহমেদ পরিচালিত ‘জিরো ডিগ্রি’ ছবিতে অভিনয় করেছিলেন। এরপর শারীরিক অসুস্থতার কারণে আর কোন ছবিতে অভিনয় করা হয়ে উঠেনি তার। সারাদিন বাসায় বিশ্রাম আর ডাক্তারের কাছে আসা যাওয়ার মাধ্যমেই তার সময় কাটে। সর্বশেষ কয়েকদিন আগে রাজধানীর ওসমানি স্মৃতি মিলনায়তনে একটি অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন এবং গান গেয়েছিলেন।

বর্তমান শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে টেলিসামাদ বাংলামেইলকে বলেন, ‘আমি শারীরিকভাবে খুবই অসুস্থ। সপ্তাহ খানেক ধরে বিছানায় পড়ে আছি। এই শরীর ভালো লাগে তো আবার খারাপ। বিভিন্ন জায়গা থেকে অভিনয়, স্টেজশোসহ আরও অনেক কিছুর প্রস্তাব আসে। কিন্তু যেতে পরি না। মনে চায় আবার আগেরমত পুরোপুরি ব্যস্ত একজন অভিনেতা হিসেবে আবার আগের জায়গা ফিরে যাই। কিন্তু চাইলেইতো হবে না। বয়সের একটা ব্যাপার আছে। মন চাইলেই পারি না। শরীর আর আগেরমত সায় দেয় না। আমার সঙ্গে যারা অভিনয়ে এসছিল তারা অনেকেই দুনিয়া ছেড়ে চলে গেছে। শুধুই আমি বাকি রয়েছি। তারপরও আশাকরি খুব শিগগিরই অভিনয়ে ফিরবো।’

টেলিসামাদ, কৌতুক অভিনেতা হিসেবেই দর্শকদের কাছে তিনি জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। নজরুল ইসলামের পরিচালনায় ১৯৭৩ সালের দিকে ‘কার বৌ’ চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে এই অঙ্গনে পা রাখেন টেলি সামাদ। তিনি দর্শকদের কাছে যে ছবিটির মাধ্যমে সর্বাধিক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন সেটি হলো ‘পায়ে চলার পথ’।

আর সেই থেকে পথ চলা শুরু হয় জনপ্রিয় অভিনেতা টেলি সামাদের। অভিনয়, গান ও ছবি আঁকার প্রতি ঝোঁকও রয়েছে। জনপ্রিয় এই অভিনেতা ভালো গানও গাইতে পারেন। ৫০টির বেশি চলচ্চিত্রে তিনি গান গেয়েছেন। এছাড়া টালিউডের কয়েকটি ছবির গানেও কণ্ঠ দিয়েছেন। কিডনি, স্নায়ু, ডায়াবেটিক ও পায়ে গ্যাংগ্রিনসহ নানাবিধ জটিলতায়ও ভুগছেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের একটি হাসপাতালে তার শরীর বাইপাস অপারেশন করা হয়েছিল।

বাংলামেইল

Leave a Reply