বিলীনের পথে বড় বসুরচর গ্রাম ও পাঁচগাঁও বিদ্যালয়

অবৈধ বালু উত্তোলন
গজারিয়ায় বসুরচর মৌজায় অবৈধ বালু উত্তোলনে নদীতে বিলীন হয়ে যাওয়ার পথে বড় বসুরচর গ্রাম ও বসুরচর পাঁচগাঁও উচ্চবিদ্যালয়। এলাকাসীদের মধ্যে বড় বসুরচর হতে মিনারা বেগম, পাঁচগাঁও উচ্চবিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা মোস্তাক মিয়া ও দফতরি গোলাম হোসেন জানান, সকাল ৭টা হতে রাত ১০টা পর্যন্ত বালুদস্যুরা শত শত ভলগেট বালু বিক্রি করে চলেছে। অবৈধভাবে বসুরচর মৌজায় ১নং সিটের প্রায় ১০০ বিঘা চরের খাস জমিতে ডিপকল বসিয়ে ফকির নিট নামক কোম্পানি বৈধ ও অবৈধ প্রায় ২০০ বিঘা জমিতে বালু ভরাট করেছে।

চাষীরচর গ্রামের এনামুল জানান, বালু উত্তোলন করায় আমার পাঁচ বিঘা জমি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙন শুরু হয়েছে চাষীরচর মৌজায়। কখনও দিনে নদীর পূর্ব পার ঘেঁষে আবার সকাল ও সন্ধ্যায় বসুরচর গ্রাম, উচ্চবিদ্যালয়সংলগ্ন পাড়ে দুই মাস ধরে বালু উত্তোলন করছে দস্যু দল। এতে হুমকির মুখে পড়েছে বসুরচরগ্রাম ও উচ্চবিদ্যালয়টি।

অথচ এ ব্যাপারে প্রশাসনিক কোনো নজরদারি নেই। অল্প দিনে কোটিপতি হয়েছে বালুদস্যুমহল। সরেজমিন দেখা যায়, দয়াল ভরসা, শাহ মদিনা, হাজী নূর ও আল্লাহ সহায় ৪টি ড্রেজার বালু উত্তোলন করছে। এসব ড্রেজার ৩০ থেকে ৪০ মিনিটে ৫ হাজার ফুট বালু ধারণক্ষমতা একটি ভলগেট ভরতে পারে। যা বিক্রি হয় সাড়ে ৩ হাজার থেকে চার হাজার টাকায় বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শী এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে জানতে গজারিয়া থানা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহাবুবা বিলকিসকে মোবাইল করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

গজারিয়া আলোড়ন

Leave a Reply