জোরপুকুরপাড় থেকে মানিকপুর সড়কের বেহাল দশা

ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কের মুক্তারপুর জোরপুকুরপাড় থেকে মানিকপুর পর্যন্ত অংশ এখন চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সড়কের প্রায় দুই কিলোমিটার এই অংশে বড় বড় অসংখ্য গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। সড়কে চলতে গিয়ে প্রায়ই ঘটে দুর্ঘটনা। আর ধুলাবালু উড়ে আশপাশের মানুষেরও যেন ত্রাহি অবস্থা। বাংলা নববর্ষের আগে এটি মেরামত করার কথা থাকলেও তা হয়নি।

জেলা শহরের মুখে এই সড়কের দুরবস্থার কারণে পথচারীদের দুর্ভোগের যেন শেষ নেই। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের (এলজিইডি) রাস্তাটি চলাচল উপযোগী করতে কোনো উদ্যোগ ল করা যাচ্ছে না। রাস্তাটির বিভিন্ন পয়েন্টে পানি জমে থেকে পাথর উঠে গেছে।

মুক্তারপুরে পেট্রলপা¤প থেকে শহরের মুখে মানিকপুরের আলু গবেষণা কেন্দ্র (কন্দাল ফসল গবেষণা কেন্দ্র) পর্যন্ত এই সড়কে রাতদিন হাজার হাজার মানুষের চলাচল। গড়ে অর্ধলাখেরও বেশি মানুষ প্রতিদিন যাতায়াত করছেন। এই সড়ক দিয়েই জেলার একমাত্র জেনারেল হাসপাতালের অবস্থান। তাই রোগীদেরও যাতায়াত করতে হয়। ফলে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি হাসপাতালে চলাচলকারী অন্তঃসত্ত্বা নারীসহ রোগীদের মারাত্মক দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

মুন্সীগঞ্জ-ঢাকা মহাসড়কের মুক্তারপুর থেকে মানিকপুর পর্যন্ত অংশের অবস্থা

মুন্সীগঞ্জ থেকে ঢাকায় যাতায়াত করতে এবং জেলার টঙ্গিবাড়ী, সিরাজদিখান, লৌহজং ও শ্রীনগর উপজেলার লোকজনকে জেলা শহরে আসতে হয় ওই সড়ক দিয়ে। জেলা শহরের অফিস-আদালত, ব্যাংক-বীমাসহ নানা প্রতিষ্ঠানে যাতায়াত করতেও এই সড়কের বিকল্প নেই। স্কুল-কলেজসহ বিভিন্ন শিাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদেরও ওই পথে চলাচল করতে হয়।

এলাকাবাসীরা জানান, কয়েক বছর ধরে সড়কটির এই বেহাল অবস্থা। হেঁটে বা গাড়িতে যাতায়াত করাও কঠিন হয়ে পড়েছে। অনেক স্থানে কার্পেটিং উঠে গেছে। সেখান দিয়ে গাড়ি যাওয়ামাত্রই সড়ক ধুলায় অন্ধকার হয়ে যাচ্ছে। পথচারীদের নাক চেপে চলাফেরা করতে হচ্ছে।

এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী ওয়াহিদুজ্জামান জানান, শিগগিরই গর্তগুলো ভরাট করতে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ জন্য প্রকল্প হাতে নেয়ার পরিকল্পনা চলছে।

মুক্তারপুরে পেট্রলপা¤প থেকে শহরের মুখে মানিকপুরের আলু গবেষণা কেন্দ্র (কন্দাল ফসল গবেষণা কেন্দ্র) পর্যন্ত এই সড়কে রাতদিন হাজার হাজার মানুষের চলাচল। গড়ে অর্ধলাখেরও বেশি মানুষ প্রতিদিন যাতায়াত করছেন। এই সড়ক দিয়েই জেলার একমাত্র জেনারেল হাসপাতালের অবস্থান। তাই রোগীদেরও যাতায়াত করতে হয়। ফলে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি হাসপাতালে চলাচলকারী অন্তঃসত্ত্বা নারীসহ রোগীদের মারাত্মক দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

নয়াদিগন্ত

Leave a Reply