হতেই হবে বাংলাদেশের উন্নতি : সিনহা (ভিডিওসহ)

একান্ত সাক্ষাৎকারে মিজানুর রহমান সিনহা (ভিডিওসহ)
বিশ্ব অর্থনীতিতে উদীয়মান শক্তি হিসেবে ক্রমেই শক্তিশালী হচ্ছে বাংলাদেশের অবস্থান। দেশের অর্থনীতিকে মজবুত ভিতের উপর দাঁড় করাতে যারা নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন তাদের মধ্যে অন্যতম একমি শিল্পপরিবার। একই সঙ্গে যে প্রতিষ্ঠানগুলো রফতানির মাধ্যমে বাংলাদেশকে ব্র্যান্ড হিসেবে বিশ্বদরবারে তুলে ধরতে সচেষ্ট রয়েছে— ১৯৫৪ সালে প্রতিষ্ঠিত এই শিল্পগ্রুপ তাদের অন্যতম। দি একমি ল্যাবরেটরিজ লিমিটেডের অতীত, বর্তমান আর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে দ্য রিপোর্টের সাথে কথা বলেছেন প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিজানুর রহমান সিনহা। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আমজাদ হোসেন ও রেজওয়ান আহমেদ —

একমি দেশের ঐতিহ্যবাহী শিল্পগ্রুপ, দীর্ঘ এই পথচলাকে কীভাবে মূল্যায়ন করবেন?

আমার বাবার হাত ধরে এই গ্রুপের যাত্রা শুরু। একটা ছোট ওষুধ কোম্পানির মাধ্যমে তিনি ১৯৫৪ সালে ব্যবসা শুরু করেন। সে সময় অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক পরিস্থিতি এখনকার মতো ছিল না। ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত তিনি একাই প্রতিষ্ঠানটি চালিয়েছেন। এরপর আমি যোগ দেই। তারপর আমার অন্য দুই ভাই যোগদান করেন। এর আগে আমি ১৯৬৪ সালে ব্যাংকে চাকরির মাধ্যমে ক্যারিয়ার শুরু করি। আমি সব সময় চেয়েছি প্রতিষ্ঠান বড় হোক। পরিবার, প্রতিষ্ঠানের সকল স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিরলস পরিশ্রমের মাধ্যমে আজকে এই অবস্থানে আমরা আসতে পেরেছি।

আফ্রিকাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে পণ্য বাজারজাত করে আপনারা বাংলাদেশকে ব্র্যান্ডিং করছেন?
আফ্রিকার জাম্বিয়া, কেনিয়া, গুয়াতেমালাসহ পৃথিবীর অনেক দেশেই আমরা পণ্য রফতানি করছি। পাকিস্তানেও আমাদের অফিস রয়েছে। নিজেদের উদ্যোগে এই সব কাজ করতে হয়েছে। ব্যবসায়ীরা দেশের হয়ে বাইরে প্রতিনিধিত্ব করে। এক্ষেত্রে সরকারের সহযোগিতা বাড়ানো প্রয়োজন। আশা করছি রাজনৈতিক ক্ষেত্রে আমাদের উত্তরণ হলে ব্যবসা-বাণিজ্যে আরও উন্নতি হবে।

আফ্রিকায় ওষুধ রফতানি করছেন। সেখানে ভোগ্যপণ্যের বাজারের সম্ভাবনা কী পরিমাণ?

আফ্রিকায় কৃষিপণ্যের রফতানির ক্ষেত্রে পণ্য পরিবহন ব্যবস্থা সবচেয়ে বড় সমস্যা। সব সময় জাহাজে পণ্য পরিবহন করা সম্ভব হয় না। আবার পচনশীল পণ্যের ক্ষেত্রে প্লেনে পাঠানো ছাড়া উপায় নেই। এই রকম কিছু সমস্যা রয়েছে। এই বছর আমরা ফুড আইটেম রফতানিতে মনোযোগ দিচ্ছি। এরই মধ্যে মালয়েশিয়ায় দুই কন্টেনার মাল পাঠিয়েছি। এ ছাড়া আফ্রিকার বাজারে প্রবেশ করতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

কৃষিপণ্য উৎপাদনে বিশ্বের মধ্যে বাংলাদেশের বিস্ময়কর উন্নতি হয়েছে। আইয়ুব খান আমেরিকা থেকে আমাদের চাল এনে খাওয়াইছে। অথচ এখন আমরা চাল রফতানি করি। বাংলাদেশের উন্নতি হবে, হতেই হবে। নিজেদের প্রয়োজনেই হতে হবে।

বর্তমান রাজনৈতিক প্রতিকূলতা ব্যবসার পরিবেশ নষ্ট করছে বলে অনেকে বলছেন। সরকারের প্রতি আপনার প্রত্যাশা কী?
যত তাড়াতাড়ি সম্ভব রাজনৈতিক সমস্যার সুষ্ঠু সমাধান হওয়া প্রয়োজন। যারাই ক্ষমতায় থাকেন না কেন, তাদের কাছে আমরা স্বাভাবিক পরিবেশ চাই। যেখানে একজন ব্যবসায়ী নিরাপদে ব্যবসা করবে, একজন ছাত্র তার শিক্ষাজীবনের নিরাপত্তা পাবে। সাধারণ মানুষের স্বার্থের পূর্ণ নিরাপত্তা চাই।

আমার কাজ যেন নির্বিঘ্নে করতে পারি— এটাই সরকারের প্রতি আমার প্রত্যাশা, আমার কাজ আমাকে করতে দেন। সাধারণ মানুষের স্বার্থের সংরক্ষণ চাই।

একমি ল্যাবরেটরিজ পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার পরিকল্পনা করছে? ওষুধ খাতের অনেক প্রতিষ্ঠান পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত। তাদের রেখে মানুষ আপনার প্রতিষ্ঠানে কেন বিনিয়োগ করবে, আকর্ষণের জায়গাটা কোথায়?
শেয়ারবাজারে আসার পরে আমাদের মতো সাধারণ শেয়ারহোল্ডাররাও একমির মালিক হবে। আমাদের মতো সাধারণ শেয়ারহোল্ডারদের গুরুত্ব দেওয়া হবে। কোম্পানির পারফরমেন্স অনুযায়ী লভ্যাংশ প্রদান করা হবে।

কোম্পানির গ্রোথ দেখলেই বিনিয়োগকারীদের আমাদের বিষয়ে ইতিবাচক ধারণা সৃষ্টি হবে। আমরা শেয়ারবাজার থেকে টাকা উত্তোলন করে ২০১৭-১৮ সালের মধ্যে পূর্ণ ব্যবহার সম্পূর্ণ করতে পারব বলে আশা করি। যার ইতিবাচক প্রভাব পড়বে ব্যবসায়। তাই এক্ষেত্রে বলতে পারি একমির শেয়ার কিনে বিনিয়োগকারীরা লোকসানে পড়বে না। একমির উপরে সবাই আস্থা রাখতে পারে।

নতুন উদ্যোক্তাদের প্রতি আপনার পরামর্শ?
উদ্যোক্তাদের ফেয়ারনেস (স্বচ্ছতা) থাকতে হবে। রাতারাতি কেউ স্কয়ারের মতো প্রতিষ্ঠানে পরিণত হতে পারবে না। এই জন্য ফেয়ারনেস থাকতে হবে। একটা সময় হয়ত অসাধুপায়ে ধনী হওয়া যেত। এখন সেটি সম্ভব নয়। এখন ফেয়ারনেস ছাড়া সম্ভব নয়। প্রতিদিনের আন্তরিক প্রচেষ্টার মাধ্যমে বাধা টপকিয়ে এগিয়ে যেতে হবে।

সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচির বিষয়ে কিছু বলেন?
সামাজিক উন্নয়নে আমরা সামর্থ্যের মধ্যে সর্বোচ্চ চেষ্টা করি। এক্ষেত্রে অনেক সময় সামর্থ্যের বেশি ভূমিকা রাখি। বিশেষত মসজিদ, স্কুল ইত্যাদি নির্মাণে সহযোগিতা করে থাকি। এ ছাড়া রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে অনুদানের মাধ্যমে সমাজের উন্নয়নে আমরা ভূমিকা রাখি।

একটি কোম্পানিকে সফলতার শীর্ষে নেওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কী কী?
প্রতিষ্ঠানের সকল স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীকে কোম্পানির উন্নতির জন্য একসাথে কাজ করতে হবে। কোম্পানি একজনের না, এটার মালিকানা সকলের। যদি সবাইকে বুঝানো যায় তাহলে সকলের সহযোগিতা পাওয়া যায়। সবার সম্মিলিত অংশগ্রহণ থাকলে একটা প্রতিষ্ঠান অবশ্যই উন্নতি করবে।

সময় দেওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।
আপনাদেরও ধন্যবাদ।

দ্য রিপোর্ট

Leave a Reply