আন্দোলন কর্মসূচি পুলিশ বিভিন্ন সময় বাধাগ্রস্থ করছে

সুমিত সরকার সুমন: ঢাকার পার্শ্ববর্তী জেলা হয়েও মুন্সীগঞ্জ শহর উন্নয়নে অনেকটাই অবহেলিত। তেমনি রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনে রয়েছে নেতাকর্মীদের অনীহা। জাতীয় পর্যায় থেকে তৃনমুল পর্যন্ত নেতাকর্মীদের হত্যা-গুম, ধরপাকড়ে ভীতসন্ত্র অনেকটা বিএনপির স্থানীয় কর্মী সাধারণ।

বিএনপি-জামায়াতে জোটের লাগাতার হরতাল আর অবরোধের কর্মসূচিতে প্রায় ৩ মাস নাকাল ছিলো সারা বাংলাদেশ। কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় ভাবে সরকার পতনে বিভিন্ন আন্দোলন কর্মসূচি পালন করে দলটি।

এর মধ্যে ঢাকাসহ সমগ্র বাংলাদেশের পরিস্থিতি প্রায় স্বাভাবিক হয়ে এসেছে, সারাদেশের অবস্থাও আগের মতো নেই৷ মাঝে-মধ্যে বাসে আগুন বা পেট্রোল বোমার খবর পাওয়া গেলেও, বিএনপি নেতা-কর্মীদের প্রকাশ্যে কোনো কর্মসূচি পালন করতে দেখা যাচ্ছে না৷ তাছাড়া আন্দোলন-কর্মকান্ড গুলোতে জেলার শীর্ষস্থানীয় নেতা কর্মীদের উপস্থিতও ছিলোনা লক্ষকরার মতো।

স্থানীয় বিএনপির তৃনমুল কর্মীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, জেলার শীর্ষ স্থানীয় নেতাদের বিভাজনের কারনেই এমনটা হয়েছে। কখনো যা দেখিনি এবার দেখতে পেলাম, বিগত আন্দোলন সংগ্রামে দেখেছি কর্মীদের ডেকে ডেকে নেতাদের আনতে হতো। এবার তার উল্টো কর্মীরা মাঠে আর নেতারা ঘরে।

৩ মাস আন্দোলন সংগ্রামে প্রায়ই দেখা গেছে মাঠ পর্যায়ের কর্মীদের সাথে পুলিশের কথা কাটাকাটি, ধাক্কাধাক্কি, দৌড়ঝাপের মতোও ঘটনা ঘটেছে তবে তখন বড় বড় নেতাদের উপস্থিত ছিলোনা বল্লেই চলে।

শহর বিএনপির সভাপতি ও মুন্সীগঞ্জ পৌর মেয়র একে ইরাদত মানু জানান, বিগত দিনের আন্দোলন কর্মসূচি পুলিশ বিভিন্ন সময় বাধাগ্রস্থ করেছে। নামে বেনামের বিভিন্ন মামলায় জরিয়ে কর্মীদের হয়রানি করেছে। এখনো অনেক কর্মী রয়েছে নিরাপরাধ যারা কিছুইু জানেনা কিন্তু হাজত খাটছে।

আবার অনেকেই স্থানীয় থানা থেকে নির্দিষ্ট পরিমান অর্থ দিয়ে রেহাই পেয়েছে। কর্মী ও দলের সুবিধার্থে অনেক সময় অনেক কর্মসূচি স্থল ভাবে পালন করা হয়েছে। তবে, সামনের দিন গুলোতে কিভাবে দলীয় কর্মসূচি আরো বেগবান করাযায় সে বিষয়ে খুব শীগ্রই বৈঠক হবে। এবং নতুন রুপে আন্দোলন আসবে।

শহর বিএনপি আইন বিষয়ক সম্পাদক এড. মোঃ হালিম হোসেন জানান, বিগত দিনের আন্দোলন সংগ্রাম চলাকালীন সময়ে পুলিশকে দলীয় ক্যাডার হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। প্রতিটা কর্মসূচিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন ফোর্স ব্যবহার করা হতো শহরস্থ বিএনপির কার্যালয়ের আশেপাশে। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হতো আন্দোল কর্মসূচি বন্ধের জন্য। আমাদের কার্যালয়ের ফুটপাত থেকে নামতে দিতোনা।

কখনো তাদের সাথে ধাক্কাধাক্কি করে মিছিল নিয়ে সামনে এগুতে হতো। এখনো ঘরোয়া কোন কর্মসূচি ছাড়া তেমন কোন কর্মসূচি করতে হলে প্রশাসন থেকে অনুমতি নিতে হয়। নইলে রাতে বাড়িতে হানা। তাই বিগত দিনের আন্দোলন চলাকালীন সময়ে উপরের পর্যায়ে নেতাদের এলাকার বাইরে থাকতে হয়েছে অনেকটা সময়। তবে, সামনের দিন গুলোতে আন্দোলন আরো চাঙ্গা হবে বলে আমি বিশ্বাস করি।

Leave a Reply