সিরাজদিখানে যৌতুক না পেয়ে হাত-পা বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতন

হাসপাতালে কাতরাচ্ছে আলেয়া
আমার মাথায় আগুন ধরেছে। গলায় প্রচ- ব্যথা, চোখে ঝপসা দেখছি- সারা শরীরে ব্যথা, আমি মরে যাচ্ছি। মরে গেলে কষ্ট থেকে বেঁচে যেতাম। আমার এক বছরের একটা পোলা আছে আমাকে আপনারা বাঁচান এই কথা বলতে বলতে মাথা চাপকে ধরে বালিশের নিচে মাথা নিলো আলেয়া। এ ঘটনায় সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েমহিলা ওয়ার্ড বেডে অসহ্য যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে আলেয়া। যৌতুকের টাকা দিতে না পারায় মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের হাজীগাঁও গ্রামের আলেয়া বেগম (২২) নামের এক গৃহবধূকে হাত-পা বেঁধে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আড়াই বছর আগে খুলনার রুপসা থানার খাজা ডাঙ্গা গ্রামের আবুল কালামের ছেলে ঢাকায় সিএনজি টেম্পু চালক মো. সোহেল লস্করের সঙ্গে মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের হাজীগাঁও গ্রামের রিকশা চালক শেখ আলাউদ্দিনের মেয়ে আলেয়ার বিয়ে হয়। বিয়ের দুই মাস পর ঢাকা থেকে সোহেল লস্কর আবার খুলনার রুপসায় চলে যান। এরপর থেকেই শ্বশুর আবুল কালাম (৫৫) ও স্বামী সোহেল লস্কর যৌতুকের টাকার জন্য আলেয়াকে বিভিন্নভাবে নির্যাতন করেন। আলেয়ার বাবা গরিব হওয়ায় আরো যৌতুকের দাবি মেটাতে ব্যর্থ হন। এরই জের ধরে গত গত সোমবার দিনভর ঐ গৃহবধূর ওপর নির্যাতন করে শ্বশুর-শাশুড়িসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন। তারা আলেয়ার হাত-পা বেঁধে বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর জখম করেন।

একপর্যায়ে তার মাথায় রড দিয়ে আঘাত করলে আলেয়া অজ্ঞান হয়ে যায়। অনেক সময় ধরে আলেয়ার জ্ঞান না ফিরলে প্রতিবেশীরা আলেয়াকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। খবর পেয়ে আলেয়ার মা-বাবা ঢাকা মেডিকেল গিয়ে মেয়ের এমন অবস্থা দেখে কান্নায় ভেঙ্গে পরে। খরচের টাকা না থাকায় ঐ দিন আলেয়াকে নিয়ে এসে মুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখান স্বাস্থ-কমপ্লেঙ্ েভর্তি করেন।

সিরাজদিখান স্বাস্থ-কমপ্লেঙ্রে আবাসিক চিকিৎসক ডা. নূরুন-নবী বিল্লা খান বলেন, খুলনা মেডিকেল কলেজের সিটি স্ক্যান পরীক্ষা করায় বুঝা যায় আলেয়ার মাথার ছোট হার ভেঙে গেছে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওর চিকিৎসা ঠিক ছিল। কিন্তু ওর মা-বাবা ঐ হাসপাতাল থেকে এখানে নিয়ে এসেছে। ওর অনেক কিছু টেস্ট করতে হবে। এখানে আমারা ওর প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দিতে পারবোনা। আলোয়ার মা রাহীমা বেগম বলেন, আমার স্বামী রিকশা চালায়। আমি আমার বাপের বাড়ি থেকে পাওয়া ৪ শতাংশ জায়গার ২ শতাংশ জায়গা ও আমার বসতঘর বিক্রি করে মেয়ে আলেয়ার বিয়ের ১লাখ টাকা যৌতুক দিেেয়ছি্ মদ-গাজা খেয়ে সেই টাকা খরচ করে সোহেল আবার বিশ হাজার টাকা যৌতুক চেয়ে না পেয়ে আমার মাইয়ার এই সর্বনাশ করছে।

দৈনিক জনতা

Leave a Reply