বিশিষ্ট জ্যোতির্বিজ্ঞানী এ আর খান আর নেই

বিজ্ঞানমনস্ক সমাজ গঠনে নিবেদিতপ্রাণ ব্যক্তিত্ব, দেশে বিজ্ঞানচর্চার প্রসারের অন্যতম পথিকৃৎ ও বিশিষ্ট জ্যোতির্বিজ্ঞানী ড. এ আর খান আর নেই। সোমবার বাংলাদেশ সময় ভোর ৫টার দিকে লন্ডনের সেন্ট মেরি হাসপাতালে তিনি ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি…রাজিউন)। তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর।

ড. এ আর খান নামে পরিচিত এই জ্যোতির্বিজ্ঞানীর মূল নাম আনোয়ারুর রহমান খান। তিনি দুই মেয়ে ও নাতি-নাতনিসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। গতকাল বিকেলে জানাজা শেষে লন্ডনের মুসলিম কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হয়েছে।

ড. এ আর খানের জন্ম ১৯৩২ সালে মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগরের ষোলঘর গ্রামে। ১৯৫৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদার্থবিজ্ঞানে তিনি স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নেন। একই বিশ্ববিদ্যালয়ে শুরু হয় তাঁর কর্মজীবন। ১৯৬০ সালে কলম্বো পরিকল্পনার ফেলো হিসেবে যুক্তরাজ্যের ন্যাশনাল ফিজিক্যাল ল্যাবরেটরি ও কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেভেন্ডিস ল্যাবরেটরিতে গবেষক হিসেবে কাজ করেন। পরে ১৯৬২ সালে লন্ডনের ইমপেরিয়াল কলেজে যোগ দেন এবং সেখান থেকে পিএইচডি ডিগ্রি করে দেশে ফেরেন। এরপর প্রথমে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ ও পরে ফলিত পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে (অধুনা তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক কৌশল বিভাগ) অধ্যাপনা ও চেয়ারম্যান হিসেবে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেছেন।

এ আর খান অধ্যাপনার পাশাপাশি দেশে বিজ্ঞানচর্চা ও বিশেষ করে জ্যোতির্বিজ্ঞানচর্চার প্রসারে আমৃত্যু কাজ করে গেছেন। ১৯৭৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর বাসভবনের গ্যারেজে প্রতিষ্ঠা করেন অনুসন্ধিৎসুচক্র বিজ্ঞান সংগঠন। তিনি গড়ে তোলেন বাংলাদেশ অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটি। ১৯৯৫ ও ২০১১ সালে বাংলাদেশের হিরণ পয়েন্ট ও পঞ্চগড় থেকে পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ পর্যবেক্ষণদলের নেতৃত্ব দেন। গ্রামীণ বিজ্ঞান শিক্ষকদের মানোন্নয়নের জন্য বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি ও বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের যৌথ আয়োজনে সত্যেন বসু বিজ্ঞান শিক্ষক ক্যাম্পের সূচনা করেন। বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক হিসেবেও দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।

এ আর খানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply