সার্কিট হাউজ-জেলা প্রশাসকের ভবনকে ঘিরে বহুতল ভবন নির্মাণ

নীতিমালা উপেক্ষা করে
সেলিম মোহাম্মদ: মুন্সীগঞ্জের সরকারি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের ২শ’ গজের ভেতর বহুতল ভবন গড়ে উঠছে। এর ফলে এসব প্রতিষ্ঠানগুলো ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। যেকোন সময় এখানে বড় ধরণের ঘটনা ঘটে যেতে পারে।

এছাড়া এ বিষয়ে যাদের প্রতিবাদ করার কথা রহস্যজনকভাবে তারা নিরব ভূমিকা পালন করছেন।

জেলা প্রশাসকের বাসভবন, জেলা জজ ও সিভিল সার্জন বাসভবন ১০ হাতের ভেতর গড়ে উঠেছে বহুতল মৃধা টাওয়ার। আর এই মৃধা টাওয়ারের পূর্বপাশে রয়েছে জেলা জজ আদালত। এই মৃধা টাওয়ারের কারণে এই সরকারি প্রতিষ্ঠান গুলো ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে জেলা প্রশাসকের বাসভবন, জেলা জজ ও সিভিল সার্জন এর বাসভবন।

জেলা প্রশাসকের অফিসের দক্ষিণ দিকে গড়ে উঠেছে একাধিক বহুতল ভবন। এর একটি ভবনের মালিক জেলা প্রশাসকের সিএও-এর বোনের জামাই।

তিনিও সরকারি নীতিমালা উপেক্ষা করে সরকারি ভবনের পাশে বহুতল ভবন নির্মাণ করেছেন।

এই দুটি ভবনের কাছে রয়েছে জেলখানা, গণপূর্ত ভবন, পুলিশ সুপারের অফিস, জেলা পরিষদ ও সার্কিট হাউজ।

জেলা পরিষদ ও পুলিশ সুপারের অফিসের পশ্চিমপাশে অনেকেই বহুতল ভবন গড়ে উঠেছে। এসব কারেণে এই ভবন গুলো ভবিষতে ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

সবচেয়ে ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে সার্কিট হাউজ। কারণ এখানে থাকেন ভিআইপিরা। মন্ত্রী থেকে সচিবসহ রাষ্ট্র্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা সার্কিট হাউজে উঠেন। আর সেখানে সকল ধরণের নীতিমালা উপেক্ষা করে বানিজ্যিক বহুতল ভবন গড়ে উঠছে।

এর লাগাম এখনই টেনে ধরা উচিত বলে অনেকেই মনে করে। এর সাথে জড়িত প্রতিষ্ঠান গুলোকে এখনই এগিয়ে আসা উচিত।

বিক্রমপুর সংবাদ

Leave a Reply