‘ই-মোবাইল কোর্ট’: ভেজাল বিরোধী অভিযান

অনলাইনে www.ecourt.gov.bd সাইটে গিয়ে অভিযোগ করতে পারবেন যে কেউ। অভিযোগ পাওয়ার পর অভিযান শুরু হবে। একটি অভিযোগ নিষ্পত্তি করতে সময় লাগবে ১০ থেকে ১২ মিনিট!

রোজার মাস শুরুর আগ মুহূর্তে চট্টগ্রামে ‘ই-মোবাইল কোর্টের’ আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়েছে। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ এবং ভেজালমুক্ত খাবার নিশ্চিত করতে সরকারের একটি পাইলট প্রকল্পের আওতায় নগরীতে প্রথমবারের মতো পরিচালিত হলো ‘ই-মোবাইল কোর্ট’।

গতকাল সোমবার প্রথম দিনে এ ব্যাপারে ব্যবসায়ীদের মধ্যে মূলত সচেতনতা সৃষ্টি করা হয়েছে। এছাড়া দুটি বেকারিতে অভিযান চালিয়ে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এর মাধ্যমে নগরবাসী নতুন ধরনের ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার সঙ্গে পরিচিত হলেন। প্রথম দিনের ই-মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ঝোটন চন্দ্র ও সাবরিনা রহমান।

ই-মোবাইল কোর্টের ধারণা কালের কণ্ঠের কাছে ব্যাখা করেছেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ঝোটন চন্দ্র। তিনি বলেন, ‘আগে ভ্রাম্যমাণ আদালত দোকানে দোকানে গিয়ে অভিযান চালাত। সেখানে অনিয়ম-অসঙ্গতি পেলে আইনি নিদের্শনা অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতেন। ওই সময় তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত দিতে গিয়ে অনেক ক্ষেত্রে কিছু ভুলত্রুটিও হত। পরে সেগুলো আপিলে গিয়ে খারিজ হয়ে যেত। এছাড়া আগের মোবাইল কোর্ট বা ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রম পদ্ধতি কিছুটা জটিল ছিল।’ তিনি জানান, মূলত ওই দুটি কারণে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনায় পরিবর্তন আনার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। সারাদেশে চট্টগ্রাম ছাড়া আরো তিন জেলায় পাইলট প্রকল্প হিসেবে এ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। জেলাগুলো হচ্ছে ঢাকা, মুন্সিগঞ্জ ও সিরাজগঞ্জ। ই-মোবাইল কোর্টে এখন থেকে নাগরিকরা অনলাইনে অভিযোগ দিতে পারবেন। ওই অভিযোগের আওতায় ই-মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হবে। পাশাপাশি বিএসটিআই কর্মকর্তারাও তাৎক্ষণিক অভিযোগ করতে পারবেন। সেই অভিযোগ ধরে ম্যাজিস্ট্রেট অভিযান চালাবেন।

তিনি বলেন, ‘অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অভিযোগের বিপরীতে ই-মোবাইল কোর্ট আইনে কী ধরনের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া যাবে, সেই বিষয়ে নির্দেশনা পাওয়া যাবে। মানে, অভিযোগের ধারার বিপরীতে শাস্তির পরিমাণ ল্যাপটপের স্ক্রিনে ভেসে উঠবে। পরে সেখান থেকে অভিযোগ ও শাস্তির বিষয়টি প্রিন্ট নিয়ে অভিযুক্তকে দেওয়া হবে। এর পর নির্ধারিত পরিমাণ জরিমানা আদায় কিংবা কারাদণ্ডে দণ্ডিত করার বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের জানানো হবে।’

এতে কী ধরনের সুফল পাওয়া যাবে জানতে চাইলে ম্যাজিস্ট্রেট ঝোটন বলেন, ‘এখন থেকে নাগরিকরা www.ecourt.gov.bd সাইটে গিয়ে অভিযোগ দাখিল করতে পারবেন। অভিযোগ পাওয়ার পর ই-মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হবে। এতে অনিয়মের বিষয়ে মানুষ আরও বেশি সচেতন হবে। এছাড়া একটি অভিযোগ নিষ্পত্তি করতে এখন সময় লাগবে মাত্র ১০ থেকে ১২ মিনিট। ফলে অল্প সময়ে বেশি অভিযান চালানো যাবে।’

প্রথম দিনের অভিযানের অভিজ্ঞতা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘প্রথম দিনে খুব বেশি অভিযান চালানো হয়নি। মূলত ব্যবসায়ীদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করা হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে নগরীর পাহাড়তলী ও কর্নেলহাট এলাকার ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মতবিনিময় করা হয়। এর মধ্যে দুটি বেকারিতে অভিযান চালানো হয়। অভিযানকালে দেখা যায়, একটি বেকারিতে বিএসটিআইয়ের লাইসেন্স নেই এবং অন্যটিতে অত্যন্ত নোংরা পরিবেশে খাদ্যসামগ্রী তৈরি হচ্ছে। এ কারণে ই-মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে দুই বেকারিকে মোট ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।’

www.ecourt.gov.bd-এ সাইটে গিয়ে দেখা যায়, ই-মোবাইল কোর্ট সেবার মধ্যে নাগরিক অভিযোগ, মোবাইল কোর্ট আইন ২০০৯ ও বাংলাদেশের আইন দেওয়া আছে। অভিযোগকারীরা নিজের নাম, ঠিকানা, মোবাইল নম্বর, ই-মেইল ঠিকানা ব্যবহার করে অভিযোগ করতে পারবেন। অভিযোগের স্থান ও সময় উল্লেখ করে অভিযোগ দাখিল করতে হবে। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে পরবর্তীতে জেলা প্রশাসনের ই-মোবাইল কোর্ট অভিযান চালাবে।

কালেরকন্ঠ

Leave a Reply