পদ্মা উত্তাল : ৬ টানা ফেরি বন্ধ, দু’ পাড়ে যানজট

বৈরী আবহাওয়া ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলের পানি বৃদ্ধি পেয়ে উত্তাল হয়ে উঠেছে দক্ষিন ও পশ্চিমাঞ্চলের অন্যতম নৌরুট শিমুলিয়া – কাওড়াকান্দির পদ্মা নদী। প্রবল ঢেউয়ের সঙ্গে অতিরিক্ত ঘুর্নিস্রোত দেখা দেওয়ায় দুর্ঘটনা এড়াতে নৌরুটটিতে মঙ্গলবার ৬টি টানা (ডাম্প) ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে।

এতে দুই পাড়ে আটকা পড়েছে পন্যবাহী ট্রাক ও দুরপাল্লার বাসসহ শত শত যানবাহন। সময় মতো নদী পার হতে না পেরে অবর্ণনীয় দুর্ভোগে পড়েন হাজার হাজার যাত্রী সাধারন।

বিআইডাব্লিউটিসি সু্ত্রে জানাযায়, পদ্মার কবুতর খোলা চ্যানেল থেকে কাঠালবাড়ী টানিং পয়েন্ট পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার নদীপথে অতিরিক্ত ঘুর্ণিস্রোত দেখা দিয়েছে।

মঙ্গলবার বেলা ১২টায় কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে ২৭টি যানবাহন ও দুই শতাধিক যাত্রী‌ নিয়ে টানা ফেরি রানীগঞ্জ শিমুলিয়া ঘাটের উদ্দেশে রওনা দেয় ফেরিটি কাঠালবাড়ী টানিং পয়েন্টে অতিরিক্ত স্রোতের মুখে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে প্রায় তিন কিলোমিটার দুরে তারপাশায় ভাটিতে চলে যায়।

পরে দুপুর দেড়টার দিকে আইটির মাধ্যমে ফেরিটি উদ্বার করে শিমুলিয়া ঘাটে নিয়ে আসা হয়। এ ঘটনার পর দুর্ঘটনা এড়াতে বেলা ২টা থেকে নৌরুটে ছয়টি টানা ফেরি বন্ধ রাখা হয়েছে। ফেরি গুলো কাওড়াকান্দি ঘাটে নোঙ্গর করে রাখা হয়েছে। তবে ৩টি রো রো ও ৩টি কে টাইপ ফেরি দিয়ে ঘাট সচল রাখা হয়েছে। ফেরি চলাচল সীমিত হওয়ায় দুপুরের পর থেকে উভয় পাড়ে যানজট অসনীয় হয়ে উঠেছে।

এ দিকে ফেরির পাশাপাশি লঞ্চ, সিবোট ও ট্রলার চলাচলে মারাত্বক বিঘ্ন‌ সৃষ্টি হচ্ছে এ নৌপথে। দুর্ঘটনা এড়াতে শিমুলিয়া ঘাটের এমএল বাদশা, মধ্যপাড়া ও মুনমুন নামের তিনটি লঞ্চ বন্ধ রাখে বন্দর কতৃপক্ষ।

মাওয়া ঘাটের মেরিন অফিসার মোঃ শাহজাহান জানান, পদ্মার মাঝ নদীতে অতিরিক্ত ঘৃণিস্রোত দেখা দিয়েছে। এ কারনে টানা ফেরি ছয়টি বন্ধ রাখা হযেছে। আবহাওয়া অনুকুলে এলে ফেরিগুলো পুনরায় চালু করা হবে।

বাংলাপোষ্ট

Leave a Reply