৮০তম জন্মদিনের শ্রদ্ধা

ফরিদ আহমদ দুলাল: বাংলাদেশের প্রবন্ধ সাহিত্য, বিশেষত সমালোচনা সাহিত্য নিয়ে যখন কাউকে হাহাকার করতে শুনি, আমি ভাবি, মানুষ কি সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর লেখা পড়েন না! যদি পড়তেন তাহলে আর যাই হোক আমরা জেনে যেতাম আমাদের প্রবন্ধ সাহিত্যে সমালোচনা সাহিত্যে দীনতা থাকলেও সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর মতো শক্তিমান প্রাবন্ধিকের উজ্জ্বল উপস্থিতিও বর্তমান। তিনি কেবল আমাদের সাহিত্যে দ্যুতি ছড়াননি, বরং আমাদের প্রবন্ধ ও সমালোচনা সাহিত্যকে ঋদ্ধি দিয়ে বিশ্ব প্রেক্ষাপটে আমাদেরকে সম্মানিত করেছেন।

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর ভাষায় যেমন সৌন্দর্য, শব্দ নির্বাচনে যেমন মনীষা, বাক্যগঠনে যেমন সারল্যময় পাণ্ডিত্য, বিশ্লেষণে যেমন সতর্কতা ও লালিত্য, বিষয় নির্বাচন এবং উপস্থাপনশৈলীতেও তেমন একাগ্রতা; সর্বপোরি পাঠককে মন্ত্রমুগ্ধ ও আবিষ্ট করে রাখার অসাধারণ মুন্সিয়ানা তাঁকে বাংলা ভাষার অন্যতম প্রধান প্রাবন্ধিকের আসনে অধিষ্ঠিত হবার সমর্থন যোগায়। গীতল-পেলব-মহার্ঘ শব্দবন্ধে তিনি তাঁর রচনাকে এমন এক উচ্চতায় নিয়ে যান, যাতে পাঠক অভিভূত না হয়ে পারেন না। একজন কৃতী শিক্ষক হিসেবে শিক্ষার্থীর চোখে যেমন তিনি প্রাণবন্ত, নিষ্ঠ লেখক হিসেবেও পাঠকের কাছে তিনি সমান মনপ্রিয়। মহান এ জ্ঞানতাপসকে নিয়ে যে কথাগুলো উচ্চারণ করা হলো তার প্রতিটি বর্ণই একজন সৎ ও নিষ্ঠ পাঠকের বিবেচনাপ্রসূত। তাঁকে যখন যতটা পাঠ করেছি, তা যেন অন্তরময় হয়ে আছে।

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর মতো এত বড় মাপের মননশীল স্রষ্টার আশিতম জন্মদিনে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলতে চাই, বাংলা সাহিত্যে প্রবন্ধ-সমালোচনার নামে আমরা যত স্তূতি-সাহিত্য প্রত্যক্ষ করেছি সে ভিড়ে সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী অনন্য-স্বাতন্ত্র্যমণ্ডিত নাম। ব্যক্তিগত জীবনে নিরহংকার-নির্লোভ-স্থিতধী মেধাসম্পন্ন মননশীল শিক্ষাগুরু ও চিন্তাশীল পণ্ডিত এ মানুষটি অতি সাধারণ জীবনাচারে অভ্যস্ত। উচ্চস্বর মেধাহীন স্বার্থান্ধদের কোলাহল থেকে নিজেকে সব সময়ই নিরাপদ দূরত্বে সরিয়ে রাখতে সচেষ্ট থেকেছেন; কিন্তু বিদগ্ধ পাঠকের অন্তর থেকে কখনোই তিনি দূরে থাকেননি।

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর জন্ম মুন্সিগঞ্জ জেলার শ্রীনগরে, ১৯৩৬ খ্রিস্টাব্দের ২৩ জুন। ঢাকার সেন্ট গ্রেগোরিস হাই স্কুল থেকে ১৯৫০-এ মেট্রিকুলেশন পাশ করে, নটরডেম কলেজে ভর্তি হন এবং আইএ পাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে, সেখান থেকে ১৯৫৬-তে ইংরেজি সাহিত্যে এমএ পাশ করে সে বছরই মুন্সিগঞ্জের হরগঙ্গা কলেজে শিক্ষকতায় নিয়োজিত হন; পাশাপাশি ঢাকার জগন্নাথ কলেজেও খণ্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে কাজ করেন। ১৯৫৭ খ্রিস্টাব্দে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন। পরবর্তীকালে যুক্তরাজ্যের লিডস ইউনিভার্সিটি থেকে পোস্ট গ্রাজুয়েট এবং লেজিস্টার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি লাভ করেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা কালে তিনি মাসিক পরিক্রমা (১৯৬০-৬২), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পত্রিকা (১৯৭২), ত্রৈমাসিক সাহিত্যপত্র (১৯৮৪) ইত্যাদি সাহিত্য পত্রিকা সম্পাদনা করেন, বর্তমানে তিনি ‘নতুনদিগন্ত’ নামে সাহিত্য পত্রিকা সম্পাদনার পাশাপাশি ‘সমাজ রূপায়ন অধ্যয়ন কেন্দ্র’ নামের একটি প্রাগ্রসর প্রতিষ্ঠানের সাথে নিজেকে যুক্ত রেখেছেন। তিনি তারুণ্যের সাথেও যুক্ত। প্রায় চল্লিশটির মতো সৃষ্টিশীল ও মননশীল গ্রন্থের প্রণেতা সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী আমাদের পশ্চাদপদ সমাজকে এগিয়ে নেয়ার বাতিঘর হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন। সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর প্রকাশিত গ্রন্থ তালিকায় আছে ‘ছোটদের শেক্সপিয়ার’, ‘অন্বেষণ’, ‘বুনো হাঁস’, ‘কাব্যের স্বভাব’, ‘ইনট্রোডিউসিং নজরুল ইসলাম’, ‘দ্বিতীয় ভুবন’, ‘এরিস্টোটালের কাব্য’, ‘তাকিয়ে দেখা’, ‘নিরাশ্রয় গৃহী’, ‘আরণ্যক দৃশ্যাবলি’, ‘শরৎচন্দ্র ও সামন্তবাদ’, ‘কুমুর বন্ধন’, ‘বঙ্কিমচন্দ্রের জমিদার ও কৃষক’, ‘আমার পিতার মুখ’, ‘স্বাধীনতা ও সংস্কৃতি’, ‘দরজাটা খোলা’, ‘উনিশ শতকের বাংলা পদ্যের সামাজিক ব্যাকরণ’, ‘উপর কাঠামোর ভিতরেই’, ‘হোমারের ওডেসি’, ‘আশির দশকের বাংলাদেশের সমাজ’, ‘বেকনের মৌমাছিরা’, ‘লিও টলস্টয়: অনেক প্রসঙ্গের কয়েকটি’, ‘মুখ ও মুখশ্রী’, ‘শ্রেণি, সময় ও সাহিত্য’, ‘বাঙালি কাকে বলি’, ‘স্বাধীনতার স্পৃহা’, ‘বৃত্তের ভাঙাগড়া’, ‘ভালো মানুষের জগৎ’, ‘রাষ্ট্র ও কল্পলোক’, ‘দুই যাত্রায় এক যাত্রী’, ‘উদ্যান এবং উদ্যানের বাইরে’ ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

সর্বজন শ্রদ্ধেয় শিক্ষক প্রফেসর ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী সাহিত্যকর্মে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ‘বাংলা একাডেমি স্বর্ণপদক’, ‘বিচারপতি ইব্রাহিম পুরস্কার’, ‘অলক্ত সাহিত্য পুরস্কার’, ‘বেগম জেবুন্নেসা ও কাজী মাহবুবুল্লাহ ফাউন্ডেশন পুরস্কার’ সহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্তরে বেশকিছু পুরস্কার ও সম্মাননা লাভ করেছেন। সবচেয়ে বড় কথা, তিনি পেয়েছেন তাঁর পাঠকের ভালোবাসা ও সম্মান আর শিক্ষক হিসেবে পেয়েছেন ছাত্রদের গভীর শ্রদ্ধা। আজ তাঁর আশিতম জন্মদিনে তাঁকে বাংলা ভাষা-সাহিত্যের প্রধান প্রাবন্ধিক হিসেবে সম্মান জানিয়ে নিজে গৌরবান্বিত হতে চাই। তাঁর সুস্বাস্থ্য ও সৃষ্টিশীল দীর্ঘ জীবন প্রত্যাশা করি।

বিডি নিউজ

Leave a Reply