মুক্তারপুর সড়ক, চলাচলের অনুপযোগী

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার ঢাকা- মুন্সীগঞ্জ সড়কে খানাখন্দ, পিচহীন রাস্তা আর জলাবদ্ধতার কারনে সড়কপথে চলাচলে নাকাল মুন্সীগঞ্জবাসী। শহরের অনেকগুলো সড়কের বেহাল অবস্থা হলেও সবকিছুকে ছাপিয়ে দুর্ভোগের চূড়ান্ত ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ রুটের মুক্তারপুরেরপেট্রোল পাম্প থেকে মানিকপুর পর্যন্ত দু’কিলোমিটার সড়ক। চলাচলের অনুপযোগী এ রাস্তায় প্রায় প্রতিদিন ঘটছে দুর্ঘটনা, দিন দিন বেড়ে চলেছে শহরবাসীর দুর্ভোগ। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর জানিয়েছে,মোবাইল প্যাকেজের আওতায় সাময়িক ভাবে চলাচলের উপযোগী করার উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে আর চলতি বছরেই রাস্তাটি পুনর্বাসনের আওতায় নতুন করে করার উদ্যোগ গ্রহন করা হবে।

বড় বড় গর্ত, পিচের কারপেটিং উঠে গিয়ে ভাঙ্গা রাস্তা আর বর্ষার বৃষ্টির পানি জমে জলাবদ্ধতায় সড়ক পথে চলাচলে নাকাল মুন্সীগঞ্জবাসী। মুন্সীগঞ্জের অনেক সড়কে যান চলাচলে দুর্ভোগের স্বীকার হলেও সব কিছু ছাপিয়ে গেছেঢাকা-মুন্সিগঞ্জ রুটের মুক্তারপুরেরপেট্রোল পাম্প থেকে শহরের মুখে মানিকপুরের আলু গবেষণা কেন্দ্র পর্যন্ত দুই কিলোমিটার সড়ক। মুন্সীগঞ্জ থেকে ঢাকায় যাতায়াত করতে এবং জেলার টঙ্গিবাড়ী,সিরাজদিখান,লৌহজং ও শ্রীনগর উপজেলার লোকজনকে জেলা শহরে আসতে হয় এই সড়ক দিয়ে।জেলা শহরের সাথে সংযোগ করা গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কে রাতদিন হাজার হাজার মানুষের চলাচল।

চলাচল করে শত শত বাস, ট্রাক, মাইক্রোবাস, রিকশা, অটো রিকশা সহ সব ধরনের যানবাহন। দীর্ঘদিন ভাঙ্গা থাকলেও এবারের বর্ষা মৌসুমে এই সড়কে অসংখ্য বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়ে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পরেছে। বর্ষায় বৃষ্টি হলেই রাস্তার বড় বড় গর্তগুলোতে পানি জমে সৃষ্টি হচ্ছে জলাবদ্ধতা। আর এসব গর্তে যানবাহন উলটে গিয়ে প্রায় প্রতিদিন ঘটছে দুর্ঘটনা। এলাকাবাসীর দুর্ভোগ চরমে। মুন্সীগঞ্জ মুক্তারপুরের এই সড়কেই জেলার একমাত্র জেনারেল হাসপাতালের অবস্থান। তাই হাসপাতালে আসার জন্য রোগীদেরও এই সড়কেই যাতায়াত করতে হয়। ফলে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি হাসপাতালে চলাচলকারী অন্তঃসত্ত্বা নারী সহ রোগীদের অবর্ণনীয় দুর্ভোগে পরতে হচ্ছে। জেলা শহরেরঅফিস আদালত, ব্যাংক বীমাসহ নানা প্রতিষ্ঠানে যাতায়াত করতে এই সড়কের বিকল্প না থাকায় স্কুল-কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদেরও দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তাই এলাকা এবং শহরবাসীর দাবি, ঈদের আগেই রাস্তা মেরামত করে চলাচলের উপযোগী করে তোলার।

জলাবদ্ধতার জন্য রাস্তার আশ পাশের নিচু জায়গা ও ডোবা অপরিকল্পিত ভরাট হয়ে পানি নিষ্কাশিত হতে না পেরে রাস্থা ভেঙ্গে যাচ্ছে জানিয়ে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ ওয়াহিদুজ্জামান জানিয়েছেন, মোবাইল প্যাকেজের আওতায় সাময়িক ভাবে চলাচলের উপযোগী করার উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে আর চলতি বছরেই রাস্তাটি পুনর্বাসনের আওতায় নতুন করে করার উদ্যোগ গ্রহন করা হবে। তবে রাস্তা টিকিয়ে রাখার জন্য আশ পাশের এলাকা অপরিকল্পিত ভাবে ভরাট হওয়া বন্ধ হওয়া প্রয়োজন।

বিডিলাইভ

Leave a Reply