১৪ জুলাই থেকে ট্রাক পারাপার বন্ধ : শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি রুট

শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ঈদে যাত্রী সেবা নিশ্চিত করতে ১৪ জুলাই থেকে পন্যবাহি ট্রাক পারাপার বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া ছনবাড়ি হতে শিমুলিয়া ঘাট পর্যন্ত ১০ কি.মি. পথে বাস ঘোড়ানো (ইউ টার্ন) নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

শনিবার শিমুলিয়া ঘাটে বিআইডব্লিউটিএ’র কার্যালয়ে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এবিএম শওকত আলম মজুমদারের সভাপতিত্বে জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির বিশেষ সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।

আলোচনায় অংশ নেন- মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবিএএম মাসুদ হোসেন, নৌ পুলিশ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আলী হোসেন, লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. খালেকুজ্জামান, এএসপি শামসুজ্জামান বাবু, বিআইডব্লিউটিসির এজিএম আশিকুজ্জামান, ওসি মো. রিজাউল হক, বিআইডব্লিউটিএর বন্দর কর্মকর্তা মো. মহিউদ্দিন, বাস মালিক সমিতি, কোস্টগার্ড, লঞ্চ মালিক সমিতিসহ ঘাট সংশ্লিষ্ট সকল স্টেক হোল্ডারা প্রতিনিধি।

লৌহজংয়ের ইউএনও মো. খালেকুজ্জামান জানান, ঈদে দক্ষিণবঙ্গের যাত্রীদের নির্বিঘ্নে ফেরিসহ সকল নৌযান পারাপার, বাস চলাচল ও যাত্রী সেবা নিশ্চিত করতে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। যানজট এড়াতে আগামী ১৪ জুলাই থেকে ফেরিতে দূরপাল্লার পণ্যবাহী ট্রাকসহ সকল ধরণের ট্রাক পারাপার বন্ধ রাখা হবে। অতিজরুরী ছাড়া কোন ট্রাক পার হতে দেয়া হবেনা।

তিনি বলেন, ১০ কি.মি. দূরে শ্রীনগর উপজেলার ছন বাড়িতে এসব ট্রাক আটকে দেয়া হবে। তাছাড়া ছনবাড়ি থেকে শিমুলিয়া ঘাট পর্যন্ত এ দীর্ঘপথে কোন যাত্রীবাহী বাসকে পথিমধ্যে যাত্রী নামিয়ে দিয়ে ঢাকায় ফিরে যাবার জন্য বাস ইউটার্ন বা ঘুরাতে দেয়া হবে না। সকল বাসকে ঘাটে গিয়ে ঘুরে ঢাকায় যেতে হবে নতুবা ইউটার্ন-এর ফলে রাস্তায় যানজট লেগে যায় এবং একই সাথে যাত্রীদের দীর্ঘ পথ পায়ে হেটে ভোগান্তির শিকার হতে হয়।

এ ছাড়া আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় ২৫০ জন পুলিশ সদস্যের পাশাপাশি আনছার ও কমিউনিটি পুলিশ, স্কাউট ছাড়াও র‌্যাব সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন বলে জানান তিনি।

যুগান্তর

Leave a Reply