পদ্মা রির্সোট আর পদ্মার চরে মানুষের ঢল

মোঃ রুবেল ইসলাম: ভারি বর্ষন আর প্রবল ঝড়কে ঊপেক্ষা করেও ঈদের দিন বিকেল থেকে লৌহজংয়ের পদ্মা রিসোর্ট আর পদ্মার চরে মানুষের ঢল নামে। মুন্সীগঞ্জ জেলায় তেমন বিনোদন কেন্দ্র না থাকলেও লৌহজংয়ের পদ্মা রিসোর্ট, পদ্মার চর আর মাওয়া রিসোর্টে ঢল নামে মানুষের। ভারি বর্ষন আর যানজটকে ঊপেক্ষা করে সকাল থেকে শুরু করে রাত অবধি এসব এলাকা গুলোতে মানুষের ঢল দেখা যায়।

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান, টঙ্গীবাড়ি, শ্রীনগর আর ঢাকার আশপাশের এলাকা থেকে শত শত মানুষ পদ্মার চরের নিরিবিলি কোলাহল মুক্ত আর যানজট মুক্ত এলাকা বেছে নিয়েছে অনেকেই বেড়ানোর জন্য। সিবোর্ট আর নৌকায় করে নদীতে বেড়ানো, চরের বিশাল এলাকায় শাপলা শালুকের ফুল কুড়ানো এর মজাই জেন আলাদা। পদ্মা রিসোর্টের সত্বাধিকারী মোহাম্মদ আলী বেপারী জানান, ঈদের আগে থেকেই সাজানো গোছানো আর ধোয়া মুছার কাজ শেষ করে তৈরী রাখা হয়েছে পদ্মার চরে তৈরী বিনোদন কেন্দ্র পদ্মা রিসোর্টকে।

এখানে নয়টি কটেজ রয়েছে ডুপ্লেক্স সিষ্টেম। প্রত্যোকটি কটেজে দুটি করে পরিবার রাএি যাপনের ব্যবস্থা রয়েছে। এখানে রয়েছে একটি রেষ্টুরেন্ট ও বিশাল করিঢোর। ঈদের দিন বিকেল থেকেই পদ্মা পাড়ি দিয়ে মানুষের ঢল নামে পদ্মা রিসোর্ট আর চর গুলোতে। বৃষ্টি ওপেক্ষা করে মানুষের ঢল সামাল দিতে হিমশিম খেতে হয় স্থানীয় প্রশাসন আর রিসোর্ট কতৃপক্ষকে। ঈদের দিন বিকেলে থেকে বিশাল যানজটের সৃষ্টি হয় মাওয়া-লৌহজং আর বালিগাঁও-টঙ্গীবাড়ি সড়কে। পদ্মা নদীতে রং বে-রঙের নৌকা আর ট্রলার গুলোতে কাপড় আর কাগজ দিয়ে সাজিয়ে ডেক্স সেট, মাইক আর ঢোলঢগর বাজিয়ে নেচে গেয়ে আনন্দ করে গোড়ে বেড়াচ্ছে যুবক যুবতিরা।

বাংলা সংবাদ

Leave a Reply