শ্রীনগরে যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে পুলিশের তল্লাশী

সার্কেল এএসপিকে অপসারণের জন্য ১৫ দিনের আল্টিমেটাম
আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে পুলিশের তল্লাশী ও ভাংচুরের অভিযোগে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠন। সমাবেশে সার্কেল এএসপিকে অপসারণের জন্য ১৫ দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছেন মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ।

রবিবার দুপুর একটার দিকে শ্রীনগর সার্কেল এএসপির কার্যালয়ের সামনে পুলিশ ও আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীরা মুখমুখি অবস্থান নেয়। এর আগে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীরা সার্কেল অফিসের সামনে জড়ো হতে থাকলে সার্কেল এএসপির কার্যালয়ে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

পুলিশ প্রথমে আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীদের সরিয়ে দিলেও পরে এমপির উপস্থিতিতে পুলিশ ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা মুখমুখি অবস্থান নেয়। এসময় এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ তার নেতা কর্মীদের নিবৃত্ত করেন। তাৎক্ষনিকভাবে ওই স্থানে এক সমাবেশে এমপি বলেন, শ্রীনগরে সকল পুলিশ সদস্য ভাল। তাদের সুনাম রয়েছে। তবে তিনি কেন্দ্রীয় কমিটির এক আওয়ামী লীগ নেতাকে ইঙ্গিত করে বলেন, সার্কেল এএসপি মো: শামসুজ্জামান এখানে তার হয়ে কাজ করছে। রাতের আধারে সে ওই নেতার পোষ্টার লাগিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন।

তিনি আরো বলেন, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী নেছার উল্লাহ সুজনের গ্রামের বাড়ি সমষপুর ও ছাত্রলীগ নেতা অনিক ইসলামের বেজগাওয়ের বাড়িতে পুলিশ শনিবার গভীর রাতে তল্লাশী ও ভাংচুর করেছে। বিষয়টি সম্পর্কে শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মুজিবুর রহমান অবগত নন। সুজন ও অনিকের বিরুদ্ধে থানায় কোন অভিযোগ নেই। তাদের অপরাধ তারা নাকি পুলিশকে গালিগালাজ করেছে। পুলিশ আমাদের মতো সরকারের অংশ। সুজন ও অনিক পুলিশের সাথে খারাপ আচরণ করে থাকলে তাদের অভিবাবক হিসাবে বিষটি আমাকেও জানাতে পারতো।

কিন্তু শ্রীনগর সার্কেল এএসপি স্থানীয় থানা পুলিশকে বাদ দিয়ে অন্য পুলিশ দিয়ে তাদের বাড়ি ঘর তল্লাশী করে তাদের বৃদ্ধ মা সহ বাড়ির লোকজনদেরকে হয়রানী করেছে। এজন্য আপাতত সার্কেল এএসপিকে অপসারণের জন্য ১৫ দিনের আল্টিমেটাম দেওয়া হচ্ছে। তা নাহলে জনগন সার্কেল এএসপির কার্যালয় ঘেরাও করে রাখবে। পরে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে ডাক বাংলো মার্কেটের সামনে আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীরা দ্বিতীয় বার সমাবেশ করে। এখানে বক্তারা সাতক্ষীরার অধিবাসী এএসপি শামসুজ্জামানকে জামায়ত কর্মী ও রাজাকার পুলিশ উল্লেখ করে দ্রুত অপসারণ দাবী করেন।

এসময় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ ডালু, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম মামুন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবু হানিফা নোমান, যুবলীগ সভাপতি ফিরোজ আল মামুন, ছাত্রলীগ সভাপতি আজিম হোসেন খান প্রমুখ।

Leave a Reply