বহুমাত্রিক সাংস্কৃতিক ফোরামে সাপ্তাহিক প্রতিনিধি

জাপানে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বহুদেশী সাংস্কৃতিক উৎসব। গ্লোবাল পিস ফাউন্ডেশন জাপানের আয়োজনে আগামী ১৫ এবং ১৬ আগস্ট ’১৫ টোকিওর প্রাণকেন্দ্র, জাপান পার্লামেন্ট, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, জাপান সম্রাটের বাসভূমি সংলগ্ন হিবিয়া পার্কে অনুষ্ঠিতব্য দুদিনব্যাপী এই উৎসবের নাম দেয়া হয়েছে মাল্টিকালচারাল ওয়ান ফ্যামিলি ফেস্টিভ্যাল ২০১৫।

ফেস্টিভ্যালকে সামনে রেখে ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গেছে প্রস্তুতিমূলক নানা আয়োজন। বিভিন্ন সভা সেমিনার, সিম্পোজিয়াম অনুষ্ঠিত হচ্ছে টোকিওর বিভিন্ন শহরে। তার-ই অংশ হিসেবে গত ১ আগস্ট টোকিওর শিবুইয়া সিটির টোকিও উইমেন প্লাজা হলে অনুষ্ঠিত হয় বহুমাত্রিক (আন্তর্জাতিক) সাংস্কৃতিক প্রতিনিধিদের প্রকাশ্য আলোচনা সভা বা ওপেন টকশো।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন গ্লোবাল পিস ফাউন্ডেশন জাপান ব্যুরো প্রধান গোতো আয়া। তিনি ফেস্টিভ্যালের নামকরণ ‘গঁষঃরপঁষঃঁৎধষ ড়হব ভধসরষু ঋবংঃরাধষ’-এর ইতিহাস তুলে ধরে বিস্তারিত ব্যাখ্যা করেন। আসন্ন টোকিও অলিম্পিক ও প্যারা অলিম্পিক ২০২০ এবং করণীয় সম্পর্কে বিশদ ব্যাখ্যা দান করেন। জনাব গোতো জাপানে বসবাসরত বিভিন্ন দেশের কমিউনিটির সহযোগিতা কামনা করে বলেন, আমি এবং আমরা বিভিন্ন দেশ, ভিন্ন সংস্কৃতি বা ধর্মীয় বিশ্বাস ভিন্ন হলেও আমাদের কমোন আইডেনটিটি বা প্রধান পরিচয় হচ্ছে আমরা মানুষ। কাজেই যেকোনো দেশে, যেকোনো আয়োজনই সকলের অংশগ্রহণ আয়োজনকে সার্থক করে তোলে। জাত, ধর্ম, বর্ণ, সংস্কৃতি ভিন্ন হলেও আমরা সকলে এক আর তা হচ্ছে মানুষ জাতি, একটি পরিবারে আবদ্ধ। মানব পরিবার।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে টোকিও অলিম্পিক কমিটির বিশেষ দূত, টোকিও মেট্রোপলিটন এসেম্বলি মেম্বার সুজুকি তাকামিচি বলেন, টোকিও অলিম্পিক ২০২০ কে ভালোভাবে সার্থক করে তোলার জন্য বিভিন্ন প্রস্তুতিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে একই কাতারে এনে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করা বড়ই প্রয়োজন। সবার আগে এ জন্য দরকার সকলকে একটি পরিবারে আবদ্ধ করা। জাপানে বসবাসরত ভিন্ন সংস্কৃতির লোকজনের দৃষ্টিকোণ থেকে ট্রাফিক নিদর্শন, ভাষাগত সমস্যা, ধর্মীয় বিশ্বাস এবং বিভিন্ন সংস্কৃতির খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কিত আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির আরও ব্যাপক উন্নয়ন করা প্রয়োজন। এ ব্যাপারে যুব সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে। তবে আশার আলো হচ্ছে, জাপানিরা বিদেশি নাগরিকদের সম্পর্কে প্রাচীনতম দৃষ্টিভঙ্গির বদল করেছে। ছাত্র সমাজ তখন বুঝতে শিখেছে উন্নতি করতে হলে, নেতৃত্ব দিতে হলে ভিন্ন সংস্কৃতির প্রতি সম্মান জানানোর কোনো বিকল্প নেই। শুধু জাপানি ভাষা শিখে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করা বর্তমান প্রেক্ষাপটে যুতসই নয়। এজন্য জাপানি ভাষার পাশাপাশি ইংরেজি বাধ্যতামূলক এবং প্লাস আলফা হিসেবে তৃতীয় কোনো ভাষা জানা থাকলে অর্থাৎ কম হলেও ৩টি ভাষা জানা থাকলে ভালো কমিউনিকেশন রক্ষা করা যায়।

জনাব সুজুকি আরও বলেন, সম্প্রতি আমি টোকিওর নামিদামি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো পরিদর্শন করেছি। আসন্ন অলিম্পিক নিয়ে তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। তাদের করণীয় কী জানতে চেয়েছি। আপনারা জেনে অবাক হবেন যে, মেগুরো শহরের নামকরা একটি জুনিয়র হাইস্কুলের শিক্ষার্থীরা আমাকে জানিয়েছে, অলিম্পিক অনুষ্ঠিত হবে, হাতে তাদের আরও ৫টি বছর সময় আছে। এই ৫ বছরের মধ্যে ভালো করে তারা কম হলেও তিনটি ভাষায় পারদর্শী হবে এবং আগত অতিথিদের দোভাষী হিসেবে অলিম্পিক এবং প্যারা অলিম্পিকে অবদান রাখায় দৃঢ় প্রত্যয় জ্ঞাপন করেছে। তাদের প্রত্যয় আমাকে আলো জাগিয়েছে।

আমিও আপনাদের সঙ্গে ওয়ান ফ্যামিলি ফেস্টিভ্যাল এর সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করছি এবং আমি আপনাদের সবাইকে উৎসাহিত করছি একটি পরিবারের সম্পর্ক উন্নয়নে।

মাল্টি কালচারাল সোসাইটি ফোরাম-এ বাংলাদেশ, চীন, জাপান, নেপাল, কোরিয়া, ব্রাজিল, কেনিয়া, ফিলিপিনস, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, কোরিয়া এবং ভিয়েতনাম এর প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন।

মুক্ত আলোচনায় বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন সাপ্তাহিক প্রতিনিধি রাহমান মনি। নিজ নিজ দেশকে তুলে ধরা জাপানিরা এমন কেন এবং টোকিও অলিম্পিক ও প্যারা অলিম্পিক ২০২০-এ জাপানে বসবাসরত বিদেশি নাগরিকদের করণীয় এই তিনটি সুনির্দিষ্ট বিষয়ের ওপর মুক্ত আলোচনা হয়।

আলোচনায় অংশ নিয়ে রাহমান মনি বাংলাদেশকে পরিচিতির পাশাপাশি বিভিন্ন ইতিবাচক দিক তুলে ধরে আক্ষেপের সঙ্গে বলেন, আমার খুব কষ্ট লাগে যখন জাপান ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াতে কেবলি বাংলাদেশের নেতিবাচক দিকগুলো দেখি। অধিকাংশ জাপানিই মনে করেন বাংলাদেশ প্রাকৃতিক দুর্যোগপূর্ণ, রাজনৈতিক সহিংসতাপূর্ণ কট্টর মৌলবাদীদের দেশ। এভাবেই তারা চিনেন ও জানেন।

কিন্তু আপনারা জানেন কি ছোট্ট একটি দেশ (জাপানের ৪০% আয়তন) এ বিপুল জনসংখ্যা (প্রায় ১৬ কোটি, জাপানে ১২ কোটি) সত্ত্বেও বাংলাদেশ খাদ্যে প্রায় স্বয়ংসম্পূর্ণ একটি দেশ, মৎস্য উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বে চতুর্থতম, তৈরি পোশাক শিল্পে বিশ্বে দ্বিতীয়তম, বিশ্বের সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ (সুন্দরবন), সবচেয়ে দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত বাংলাদেশে অবস্থিত। ২০০৬ সালে শান্তিতে নোবেল জয়ী হয়েছেন বাংলাদেশের ড. ইউনূস এবং গ্রামীণ ব্যাংক যৌথভাবে। বিশ্বের সবচেয়ে বড় এনজিওর প্রতিষ্ঠাতা একজন বাংলাদেশি (স্যার ফজলে হাসান আবেদ)।

আপনারা জানেন কি জাপানের ভেন্ডিং মেশিনগুলোতে ব্যবহৃত বোতামগুলোর ১০% তৈরি হয় বাংলাদেশে। জাপানের ইউনিক্লো এবং ইতোইয়োকাদোতে বিক্রয়কৃত তৈরি পোশাকগুলো আসে বাংলাদেশ থেকে।

বাংলাদেশ হচ্ছে উদারপন্থি ইসলামি দেশ। এখানকার মানুষ ধর্মভীরু কিন্তু ধর্মান্ধ নয়। শতকরা ৮৫ ভাগ মুসলিম অধ্যুষিত দেশ হওয়া সত্ত্বেও হিন্দু, মুসলিম বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান ও অন্যান্য ধর্মাবলম্বীরা পারস্পরিক সৌহার্দ্যপূর্ণ অবস্থান এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অনন্য উদাহরণ হিসেবে বাংলাদেশ বিশ্বে স্থান করে নিয়েছে।

রাহমান মনি বলেন, রাজনৈতিক অস্থিরতা সত্যেও বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে এবং যাবে, আপনারা সেগুলো খবর পান না। কারণ, মিডিয়া সেগুলো প্রকাশ করে না। আর মিডিয়া নির্ভরশীল হওয়ায় অনেক জাপানিই বহিঃবিশ্বের সংবাদ সম্পর্কে অনেকটাই পিছিয়ে। এখনও অনেক জাপানিই মনে করেন বাংলাদেশ মানেই প্রাকৃতিক দুর্যোগপূর্ণ (বন্যা, খরা, ঘূর্ণিঝড়) একটি দেশ, ভারত, মানেই রাস্তার ওপর গরু চলাচল করবে, আফ্রিকা মানেই বিপজ্জনক বা আমেরিকা মানেই সবাই অস্ত্র বহন করে বেড়ায়। এগুলো সবই মিডিয়ার সৃষ্টি।

সাপ্তাহিক প্রতিনিধি আরও বলেন, আসন্ন ২০২০ সালে টোকিও অলিম্পিক ও প্যারা অলিম্পিকে অনেক কিছুই করার ইচ্ছা থাকলেও সে সুযোগ নেই। তারপরও জাপানে বসবাসরত বহুদেশীয় কমিউনিটিগুলো নিজ নিজ ভাষায় অফিসিয়াল পেইজ ওপেন করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে অলিম্পিকের সর্বশেষ আপডেট দিয়ে, জাপানে জীবনযাত্রার বর্ণনা জানিয়ে, আইনশৃঙ্খলা, যোগাযোগ ব্যবস্থা কিংবা খাদ্য সংস্কৃতির বর্ণনা দিয়ে জোরালো ভূমিকা রাখতে পারেন প্রবাসীরা। ব্লগে লিখেও সার্বিক ব্যবস্থার বর্ণনা দিয়ে অবদান রাখতে পারে প্রবাসীরা।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি বক্তা হিসেবে ১১ মার্চ ২০১১ ভয়াবহ ভূমিকম্পকালীন মিয়াগী প্রিকেয়ার এর সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত আকার কেসেননুসা দমকলবাহিনী প্রধান কমান্ডার সেইএৎসু সাতো ভূমিকম্প এবং বিপর্যয় উত্তর জাপান পুনর্গঠনে প্রবাসী কমিউনিটির ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, প্রবাসীদের এই সহমর্মিতা এবং সহযোগিতা আমাদের সাহস জুগিয়েছে, উৎসাহ দিয়েছে এবং হৃদয় ক্ষরণে উপশম হয়েছে।

জনাব সাতো বলেন, সম্প্রতি আমেরিকার টেক্সাস বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আক্রান্ত ওনাকা পরিদর্শন করে গেছেন। প্রবাসী বিভিন্ন কমিউনিটি পাশে দাঁড়িয়েছে আমরা কৃতজ্ঞচিত্তে তাদের শ্রদ্ধা জানাই।

তিনি বলেন, বিপর্যয়ের সময় দমকল বাহিনীর কমান্ডার হিসেবে অনেকেই প্রাণরক্ষায় কাজ করতে পারলেও প্রিয়তমা স্ত্রীকে রক্ষা করতে পারেনি। এই কষ্ট আমাকে বয়ে বেড়াতে হচ্ছে।

সবশেষে ফেস্টিভ্যাল এর থিম সঙ পরিবেশন করেন সঙ্গীত শিল্পী কিরারি চেঙ্গ।

সাপ্তাহিক

Leave a Reply